সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অমিত শাহ’র ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার, আজম খানের বহাল

4-Amit shah azom khanভারতের হিন্দুত্ববাদি দল বিজেপি’র সাধারণ সম্পাদক অমিত শাহ’র ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এর ফলে এখন থেকে তিনি উত্তরপ্রদেশে নির্বাচনী প্রচারে অংশ নিতে পারবেন। গত বৃহস্পতিবার রাতে নির্বাচন কমিশনের এক বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়। সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশের মুজাফফরনগরে নির্বাচনি প্রচারে গিয়ে উস্কানিমূলক মমত্মব্য দিয়েছিলেন গুজরাটের সাবেক মন্ত্রী ও বিজেপি নেতা অমিত শাহ। নরেন্দ্র মোদীর ঘনিষ্ঠজন হিসেবে পরিচিত অমিত শাহ বলেছিলেন, ‘‘যে সরকার জাঠেদের খুনিদের আশ্রয় ও পুনর্বাসন দিচ্ছে, তাদের ক্ষমতা থেকে তাড়ানোর লড়াই হল এবারের নির্বাচন। বদলা নিয়ে মর্যাদা রক্ষা করা ছাড়া এ ভোটের আর কোনো অর্থ নেই।’’জাঠেদের উত্তেজিত করতে শাহ এ কথাও বলেন, ‘‘নাওয়া-খাওয়া ছাড়া মানুষ বাঁচতে পারে, কিন্তু অপমান সহ্য করে নয়। বদলা চাই, বদলা।’’অমিত শাহর এ ধরনের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া কংগ্রেস মুখপাত্র মণীশ তিওয়ারি বলেন, ‘‘মোদী ও তার সহযোগীদের প্রকৃত চেহারা প্রকাশ পাচ্ছে। মারধর, বদলা নেওয়া, কেটে ফেলা এসবই ওদের দর্শন। গুজরাটের পর এবার গোটা দেশে সাম্প্রদায়িকতার বিষ ছড়াতে চাইছেন মোদী। ‘‘ পাশাপাশি অমিত শাহকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়ে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয় কংগ্রেস। কংগ্রেসের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশন অমিত শাহর ভাষণের ভিডিও ফুটেজ দেখে সিদ্ধামত্ম নেয়, উত্তরপ্রদেশে আর কোনো জনসভা করতে দেয়া হবে না অমিত শাহকে। এরপরই সুর নরম করেন এই বিজেপি নেতা। তিনি ক্ষমা চেয়ে চিঠি লেখেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার ভি এস সম্পতকে। প্রতিশ্রুতি দেন, আর কখনো উস্কানিমূলক বক্তব্যে দেবেন না। তার ওই চিঠি পেয়ে জরুরি বৈঠকে বসে নির্বাচন কমিশন। শেষ পর্যমত্ম তাকে ক্ষমা করা হয়। ফলে ওই রাজ্যে ভোটের প্রচারে অংশ নেয়ার ক্ষেত্রে আর কোনও বাঁধা রইল না অমিত শাহের। তবে নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, অমিত শাহের নির্বাচনি জনসভাগুলোর ভিডিও ফুটেজের ওপর নজর রাখা হবে। প্রতিশ্রুতি পালন না করলে তার বিরুদ্ধে ফের কঠোর  ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে, একই ধরনের অভিযোগে অভিযুক্ত সমাজবাদি পাটির্র নেতা আজম খানের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেনি না নির্বাচন কমিশন। অমিত শাহের মতো তিনিও নির্বাচন কমিশনকে চিঠি পাঠিয়েছিলেন। তাতে অবশ্য ক্ষমা চাননি। শুধু নিষেধাজ্ঞ প্রত্যাহারের আর্জি জানানো হয়। কিন্তু তাতে কাজ হয়নি। সম্প্রতি উত্তর প্রদেশের গাজিয়াবাদ এলাকায় একটি জনসভায় আজম দাবি করেন, কারগিল জয়ের মূল কারিগর হলেন সেনাবাহিনীর মুসলিম জওয়ানরা। বিরোধীদের অভিযোগ, রাজ্যের ১৮ শতাংশ সংখ্যালঘু ভোটের দিকে তাকিয়েই এ ধরনের উস্কানিমূলক বক্তব্য রেখেছেন আজম। কমিশন জানিয়েছে, ‘‘উস্কানিমূলক ওই মমত্মব্যে রাজ্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি নষ্ট হয়েছে। ওই মমত্মব্য জাতীয় সংহতিরও অমত্মরায়।’’ এরপর কমিশন আজম খানের নির্বাচনী প্রচারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে।