শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

‘অর্থনৈতিক মুক্তির পথে দেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন শেখ হাসিনা’

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এবং বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বকে ধ্বংসের ষড়যন্ত্র করা হয়েছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য সে ষড়যন্ত্র সফল হতে পারে নি। বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর প্রদর্শিত পথে অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।

শনিবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগের পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪১ তম শাহদাত বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সমিতির উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত নির্বাচন বানচালের নামে দেশে নাশকতা করে এবং পেট্রোল-বোমা দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে সরকার পতনে ব্যর্থ হয়ে জঙ্গিবাদ সৃষ্টির মাধ্যমে বিদেশী হত্যার পথ বেছে নিয়েছে।

রামপাল কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে বিএনপির অবস্থানের কঠোর সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছে। আর সেই আওয়ামী লীগের সরকার কখনো চাইবে দেশের পরিবেশ নষ্ট হোক।

তিনি বলেন, সরকার সকল কিছু বিবেচনা করে এ বিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। যারা এ বিষয়টি নিয়ে রাজনীতি করছে তারা অনেকেই নি:শেষ হওয়ার পথে।

আওয়ামী লীগের এ নেতা আরো বলেন, হোলি আর্টিজান ও শোলাকিয়া হামলার হোতারা যেমন নি:শেষ হয়ে যাচ্ছে তেমনি দেশের অগ্রযাত্রার বিরুদ্ধে যারা রাজনীতি করছে তারাও নি:শেষ হয়ে যাবে।

সমিতির সভাপতি শেখ কবির হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)-এর চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আব্দুল মান্নান।

আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন এশিয়া প্যাসিফিক ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সভাপতি সি এম শফি, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড. আব্দুল মান্নান চৌধুরী, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য একেএম এনামুল হক শামীম ও ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সভাপতি সবুর খান।

আলোচনা সভা শেষে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কাল রাতে নিহত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকলের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

Spread the love