রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অসহায় নারীকে নিয়ে পুলিশ সদস্যের প্রতারণার খেলা

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ

নীলফামারী জেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলার গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের পশ্চিম দলিরাম গ্রামের তহির উদ্দিনের সুন্দরী তহুজা বেগম (২৩) এক পুলিশ কর্মকর্তার খপ্পরে পরে প্রতারণার শিকার হয়েছেন। তার সংসার ভেঙ্গে তছনছ হয়ে গেছে। মেয়েটি ন্যায় বিচারের আশায় বিভিন্ন পুলিশ কর্মকর্তার দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। সে বলে সুন্দরী হয়ে জন্ম নেয়াটাই তার আজন্ম পাপ হয়েছে। তহুজা বেগম জানায়, ২০০৫ সালে ঘটা করে তার বিয়ে হয় গাজিপুর জেলা কাপাসিয়া থানার শাহিন মিয়ার ছেলে আবু সায়েমের সাথে। ২০০৬ সালে স্বামী-স্ত্রী সৌদি আরবে চাকরীর জন্য পাড়ি জমায়। ২০১১ সালে সৌদি আরব থেকে ফিরে আসেন গ্রামের বাড়িতে। সুখে শান্তিতে বসবাস করার একপর্যায়ে তহুজা বেগম বাবার বাড়ি কিশোরগঞ্জের পশ্চিম দলিরাম গ্রামে বেড়াতে আসে। একপর্যায়ে পরিচয় হয় কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের পুষণা গ্রামের জয়নাল আবেদীনের ছেলে ডেসটিনির এজেন্ট আহাদুল ইসলামের সাথে। আহাদুল ইসলাম তহুজাকে ডেসটিনির সদস্য হতে বলেন। সহজ সরল তহুজা তার কথায় রাজি হয়ে ২০ হাজার টাকা দিয়ে সদস্য হন। পরে আহাদুল ২ টাকার জুডিশিয়াল ফাঁকা স্ট্যাম্পে ২০ হাজার টাকা ফেরত না দেয়ার জন্য কৌশলে তহুজার স্বাক্ষর নেন। তহুজা আহাদুলের চালাকি ধরতে পেরে এবং ফাঁকা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেয়ার জন্য আহাদুলের বিরুদ্ধে সাধারণ ডায়েরী করতে কিশোরগঞ্জ থানার এএসআই আব্দুর রউফের কাছে যান। এর সূত্র ধরে পরিচয় হয় ভন্ড প্রতারক পুলিশ অফিসারের সাথে। পুলিশ অফিসার আব্দুর রউফ তহুজার রূপ ও সরলতার সুযোগ নিয়ে তার বাড়িতে যাওয়া আসা করতে শুরু করেন। তহুজা স্বামী সন্তান নিয়ে যেখানে থাকেন তার ঠিকানা নেয় পুলিশ অফিসার আব্দুর রউফ। একপর্যায়ে এএসআই আব্দুর রউফ কিশোরগঞ্জ থানা হতে ট্রান্সফার হয়ে ঢাকায় র‌্যাবে যোগদান করে এবং তহুজার বাসা হেমায়েতপুরের মোল্লাবাড়িতে যাওয়া আসা শুরু করেন। একদিন তহুজার স্বামীর অবর্তমানে বাসায় গিয়ে তাকে বিয়ে করার কথা বলে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে এবং তহুজার স্বামী আবু সায়েমকে তালাক দিতে বাধ্য করে। মেয়েটিকে আব্দুর রউফের ভাড়া বাসায় নিয়ে গিয়ে ৫ লাখ টাকা দেনমোহর করে বিয়ের নামে ভূয়া কাবিন নামায় স্বাক্ষর নেয় এবং তহুজার সাথে সেখানে সাত মাস ঘর সংসার করে আব্দুর রউফ। নারী লোভী এএসআই আব্দুর রউফ একদিন হুট করে তহুজাকে না জানিয়ে ট্রান্সফার নিয়ে চলে আসেন নীলফামারীর ডোমার থানায়। তখন থেকে প্রতারক নারী লোভী এএসআই আব্দুর রউফ বিয়ে অস্বীকার করে আসছেন। আর অবলা নারী তহুজা স্বামীর দাবি নিয়ে পুলিশের উচ্চ পর্যায়ে বিভিন্ন কর্মকর্তার কাছে ধর্ণা দিচ্ছেন বিচারের আশায়।

 

ডোমার থানায় কর্মরত এএসআই আব্দুর রউফের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি তহুজাকে দুই মাস আগে তালাক দিয়েছেন।

 

 

 

 

 

 

Spread the love