মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আকষ্মিক ভাবে তিস্তায় পানি বৃদ্ধি আনন্দের জোয়ারে ভাসছে কৃষক

জাহাঙ্গীর আলম রেজা, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : শুক্রবার রাত থেকে দেশের সর্ববৃহত সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজ পানিতে টই টুম্বুর হয়ে উঠেছে৷ তিস্তা নদীতে উজানের ভারতের গজল ডোবা থেকে ঢল নেমে পানিতে টই টম্বুর হয়ে প্রান ফিরে পেেয়েছে মরা তিস্তা৷ শুকিয়ে থাকা তিস্তায় হু-হু করে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নব যৌবনে ফিরে এসেছে তিস্তা৷ নদীজুড়ে চলছে সো্রত ধারা৷ গত মার্চ মাসে তিস্তার নদীর পানি প্রবাহ গড়ে ছিল ১০০ কিউসেক৷ গত বৃহস্পতিবার পানি প্রবাহ ১০০ কিউসেক থাকলেও শুক্রবার সকাল ৬টায় তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্ট উজানের পানি প্রবাহের বৃদ্ধি পেতে শুরু করে৷ বেলা ৩টায় এটি বৃদ্ধি পেয়ে ৮শত কিউসেকে আসে৷ শনিবার সকালে পানি আরও বৃদ্ধৈপেয়ে ২হাজার কিউসেকে দাড়ায়৷ তিস্তা ব্যারাজের সেচ প্রকল্পের কমান্ড এলাকায় কৃষকরা ভরপুর পানি পেয়ে আনন্দে আত্নহারা হয়ে পড়েছে৷ পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্রে জানায় গত বছরে এ সময় তিস্তায় ৩৫০ কিউসেক পানি পাওয়া গিয়েছিল৷ তিস্তা পাড়ের ঝাড়শিঙ্গেরশ্বর চরের নৌকার মাঝি হারুন শেখ (৪০) জানায়, তিস্তা নদীতে যেন জোয়ার শুরু হয়েছে৷ এ জোয়ারে তিস্তা ফুলে ফেপে উঠছে৷ প্রধান খাল, শাখা খালে পানিতে ভরে গেছে৷ শনিবার দুপুরে দেখা যায় উজান থেকে তিস্তা নদী বাংলাদেশের প্রবেশ পথ নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের কালিগঞ্জ জিরো পয়েন্টে দিয়ে সো্রতধারায় হু-হু করে পানি আসছে৷ যা দ্র“ত প্রবাহে চলে যাচ্ছে ভাটির দিকে৷ গত কয়েক দিন আগেও নদীর বুকে যে ধু-ধু বালুচর দেখা গিয়েছিল, তা যেন নিমিষেই নদীর পানিতে চাপা পড়ে যাচ্ছে৷ নদীর কুল কিনারা ভরে উঠছে ধীরে ধীরে৷ ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে তিস্তার পানি কমতে কমতে দাঁড়িয়েছিল ১০০ কিউসেকে৷ অথচ এ নদীতে স্বাভাবিকভাবে গড়ে পাঁচ হাজার থেকে ছয় হাজার কিউসেক পানি থাকা প্রয়োজন৷ গত ২৩ ফেব্রুয়ারী থেকে তিস্তা ব্যারাজ পয়েন্টে পানি কমতে শুরু করে৷ এ অবস্থা চলে ২এপ্রিল পর্যন্ত ৷ এদিকে হঠাত্ করে তিস্তার পানি হু-হু করে বৃদ্ধির বিষয়টি অবাক করে দিয়েছে তিস্তা পাড়ের মানুষজনকে৷ তিস্তার পাড়ের আবুল কাশেম জানায়, তিস্তা নদীকে যখন দেখি শুকায়ে যায় তখন হারিয়ে যাওয়া জমি জিরাত বালুর চরে চোখে পড়ে বুকটা খাঁ-খাঁ করে উঠে৷ পুর্ব ছাতনাই গ্রামের হারুন-অর রশিদ জানায়, ৩ এপ্রিল শুক্রবার ভোর থেকে হঠাৎ শুনতে পাই তিস্তা নদী থেকে স্্রোতের শব্দ বাতাসে ভেসে আসছে৷ অবাক হয়ে ছুটে যাই নদীর পাড়ে৷ দেখতে পাই উজান থেকে তিস্তার পানি শো-শো শব্দে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে৷ এখন তিস্তা নদী দেখে খুব ভাল লাগছে তিস্তায় পানি ভরে উঠছে৷ তিস্তা পাড়ের ভাষানীর চরের নৌকা মাঝি মফিজার রহমান (৪২) বললেন, ভারত হয়তো তাদের গজলডোবা ব্যারাজের গেট খুলে দেয়ায় পানির জোয়ার বেড়ে গেছে৷ তিস্তা সেচ ক্যানেলের ধারে নাউতরা গ্রামের কৃষক বেলাল হোসেন ( ৪৩) জানায়, হঠাৎ আজ তিস্তা সেচখাল পানিতে ভরে গেছে৷ এখন দেখছি পানি রাখার জায়গা নাই৷ এই পানি খুব উপকারে আসছে৷ এখন বোরো ধানের শীষ ধরেছে৷ এই পানি পেয়ে ধানের ক্ষেতগুলো তরতাজা হয়ে ফুটে উঠেছে৷ তিস্তার পলির পানি আর ভু-গর্ভের সেচের পানির মধ্যে ফারাক আছে৷ তিস্তার সেচে ফলন ভাল হয়৷ তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী সুরুজ্জামান বলেন, তিস্তা নদীর পানি এখন বৃদ্ধি পাচ্ছে৷ সোমবার দুপুর ১২টায় তিস্তায় পানি প্রবাহ ছিল ২ হাজার কিউসেক৷ বর্তমানে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বংপুরের গঙ্গাচরা, দিনাজপুরের চিনির বন্দর পর্যন্ত সেচ খালে পানি সরবরাহ করা হচ্ছে৷ নীলফামারী, রংপুর ও দিনাজপুর জেলার ১২টি উপজেলা প্রায় ৬৫ হাজারহেক্টর জমিতে সেচের পানি সরবরাহ করা হচ্ছে৷ তিনি জানান এবার খরিপ ১ মৌসুমে ২৮ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে সেচ দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়৷ কিন্তু সেচ দেয়া যায় ৪০ হাজার ৫০০ হেক্টরে৷ তিনি বলেন গত ১৩ এপ্রিল থেকে তিস্তায় পানি প্রবাহ বৃদ্ধি পেয়ে দেড় হাজার কিউসেকের উপরে চলে যায়৷ এরপর ২২ এপ্রিল মঙ্গলবার পানি বৃদ্ধি পেয়ে ৩ হাজার কিউসেকের উপরে চলে যাওয়ায় সেচখাল গুলো ভরিয়ে দেয়া হয়েছে৷

Spread the love