বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আক্রান্ত হলে নিজের অস্ত্র ব্যবহার করবে বিজিবি

বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহম্মেদ বলেছেন, তিনি বলেন, ‘বিজিবি মানুষ হত্যা করতে চায় না। সে ধরনের নির্দেশও বিজিবির ওপর নেই। তবে মানুষ হত্যা করতে দেখলে এবং নিজে আক্রান্ত হলে জীবন বাঁচানোর তাগিদে যেকোনো আক্রমণ প্রতিহত করবে। আক্রান্ত হলে সে নিজের অস্ত্র ব্যবহার করতে পারবে, এটা তার অধিকার।’

 

বৃহস্পতিবার দুপুরে বিজিবির সদর দফতরে সম্মেলনকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

মহাপরিচালক বলেন, সম্প্রতি হরতাল-অবরোধে তিন-চার জায়গায় বিজিবির সদস্যদের ওপর ককটেল নিক্ষেপ করা হয়েছে। এতে তেমন কেউ আহত হননি। তবে যেভাবে পেট্রোল বোমা দিয়ে হামলা চালানো হচ্ছে তা যদি বিজিবির সদস্যদের ওপর করা হয় অথবা কোনো বিজিবির সদস্য যদি দেখেন, কেউ একজন পেট্রোল বোমা ছুড়ে মারছেন, সে ক্ষেত্রে অবশ্যই পাঁচজনের জীবন বাঁচাতে একজনকে নিবৃত করা জায়েজ হবে। তা হোক অস্ত্র প্রয়োগ করে আর হোক তা অন্য কিছু দিয়ে। প্রয়োজন এবং সময়ই বলে দেবে কী করতে হবে।

 

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহায়তা দিতে এ পর্যন্ত দেশের ২১ জেলায় বিজিবি নামানো হয়েছে। অবরোধের মধ্যে রাতে মহাসড়কে দূরপাল্লার যান চলাচলেও নিরাপত্তা দিচ্ছে এ বাহিনী।

 

বিজিবি সদস্যরা কত দিন এভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন- জানতে চাইলে মেজর জেনারেল আজিজ  বলেন, ‘২০১৩ সালের কথা তো আপনাদের মনে আছে, সুতরাং আমরা মাসের পর মাস, যত দিন প্রয়োজন, সিভিল প্রশাসনকে সহায়তা করে যাব।’

 

তিনি বলেন, ঢাকার বাইরে ১৭টি জেলায় বিজিবি সদস্যরা সার্বক্ষণিক টহলে রয়েছেন। প্রতিদিনি ৮০-৮৫ প্লাটুন বিজিবি কাজ করছে। ৩৫ জেলা থেকে বিজিবি চাওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, সেসব জেলার জন্য ৭০-৭৫ প্লাটুন বিজিবি প্রস্তুত রাখা হয়েছে, যাতে প্রয়োজন হলেই তারা যেতে পারেন।

 

বিজিবি মহাপরিচালক বলেন, জনগণের জানমাল রক্ষার্থে র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি বিজিবি অবশ্যই কাজ করে যাবে। সে ক্ষেত্রে বিজিবির সদস্যদের কিছু ছুটিতে ও কিছু ট্রেনিংয়ে থাকায় একটু সমস্যা হচ্ছে। আবার সীমান্ত ঠিক রাখতে হচ্ছে। তাই কষ্ট হলেও অভ্যন্তরীণ আইনশৃঙ্খলা রক্ষা করতেই সরকারকে সহযোগিতা করা হচ্ছে।

Spread the love