শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আগামীকাল জুমাতুল বিদা : রাতে পবিত্র লাইলাতুল ক্বদর

JUmaআগামীকাল পবিত্র মাহে রমজানের শেষ শুক্রবার, দিনের বেলা পালন করা হবে পবিত্র জুমাতুল বিদা এবং দিন শেষে হাজার মাসের চেয়েও পূণ্যময় রাত্রি- পবিত্র লাইলাতুল কদর। এই দিনটি মুসলিম বিশ্বের কাছে জুমাতুল বিদা নামে পরিচিত। এ দিনটি আল-কুদস দিবস হিসেবেও পালিত হয়। মূলত জুমাতুল বিদার মধ্য দিয়ে মাহে রমজানকে বিদায় সম্ভাষণ জানানো হয়। ইসলামিক ফাউন্ডেশন সূত্র জানায়, জুমাতুল বিদায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে দেশ ও জাতির কল্যাণ এবং মুসলিম উম্মাহর ঐক্য ও শান্তি কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হবে।
রমজানের বিদায়ী জুমা অর্থাৎ পবিত্র মাহে রমজানের শেষ শুক্রবার মুসলমানদের জন্য অতি মূল্যবান। এ দিন সিয়াম শেষ হয়ে যাওয়ার সতর্কতামূলক দিবস। যে ৩টি বিষয় জুমাতুল বিদাকে আল্লাহর করুণা, দয়া, ক্ষমা, তথা মাগফিরাত ও নাজাত লাভের দিবস হিসেবে চিহ্নিত করেছে, তা হচ্ছে রমজান, জুমাতুল বিদা এবং শেষ শুক্রবার আল-কুদস দিবস।
এদিকে দিবাগত রাতেই আসছে হাজার মাসের চেয়েও উত্তম পবিত্র লাইলাতুল কদর সমগ্র মানবজাতির জন্য অত্যন্ত বরকতময় ও পুণ্যময় রজনী। এ রজনীতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা আল্লাহর নৈকট্য ও রহমত লাভের আশায় ইবাদত বন্দেগী করে অতিবাহিত করে থাকেন। এ উপলক্ষে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকারমসহ দেশের সব মসজিদে রাতব্যাপি বিশেষ ইবাদত বন্দেগী, ওয়াজ মাহফিল, ধর্মীয় বয়ান ও আখেরী মোনাজাতের আয়োজন করা হয়েছে। পবিত্রতম রজনী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলাদা আলাদা বাণী দিয়েছেন। এছাড়া বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াও বাণী দিয়েছেন।
এ উপলক্ষে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে আগামীকাল শুক্রবার সকাল ১১ থেকে রাত ৩টা পর্যন্ত আলোচনা, ইবাদত বন্দেগিসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হবে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- সকাল ১১টা থেকে সোয়া ১২টা পর্যন্ত শবে ক্বদরের গুরুত্ব ও তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা সভা, বেলা ২টা থেকে সোয়া ৩টা পর্যন্ত পবিত্র কুরআনের ২৬তম প্যারার তাফসির, রাত ৮টা থেকে পৌনে ৯টা পর্যন্ত পবিত্র কুরআনের ৩০তম পারার সংক্ষিপ্ত আলোচনা, রাত সাড়ে ১০টায় থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত শবে ক্বদর : আলোচনা ও মিলাদ মাহফিল এবং রাত ১২ থেকে ৩টা পর্যন্ত কিয়ামুল লাইল; অতপর বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে।
মহিমান্বিত রজনী পবিত্র লাইলাতুল কদর উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশসহ মুসলিম বিশ্বের সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানিয়েছেন। তিনি বলেন, হাজার মাসের চেয়েও উত্তম পবিত্র লাইলাতুল কদর সমগ্র মানবজাতির জন্য অত্যন্ত বরকতময় ও পুণ্যময় রজনি। মুসলমানদের পবিত্র ধর্মীয় গ্রন্থ আল-কোরান লাইলাতুল কদরে নাজিল হয়।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে বলেন, পবিত্র কোরআনের শিক্ষা আমাদের পার্থিব সুখ-শান্তির পাশাপাশি আখিরাতের মুক্তির পথ দেখায়। তিনি বলেন, সিয়াম সাধনার মাস রমজানের মহিমান্বিত রাত লাইলাতুল কদর। এই রাতে মানব জাতির পথ নির্দেশক পবিত্র আল-কোরআন পৃথিবীতে নাজিল হয়।
শেখ হাসিনা বলেন, পবিত্র এই রাতে ইবাদত-বন্দেগীর মাধ্যমে আমরা মহান আল্লাহর নৈকট্য লাভ করতে পারি। অর্জন করতে পারি তাঁর অসীম রহমত, বরকত ও মাগফেরাত। তিনি এই পবিত্র রজনীতে মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ ও মুসলিম জাহানের উত্তরোত্তর উন্নতি, অব্যাহত শান্তি ও কল্যাণ কামনা করেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email