বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আগামীকাল ২১ অক্টোবর সাবেক প্রতিমন্ত্রী আব্দুর রৌফ চৌধুরীর ৮ম মৃত্যু বার্ষিকী

মোঃ শামসুল আলম বোচাগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ আগামীকাল ২১ অক্টোবর বুধবার গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সাবেক প্রতিমন্ত্রী, মরহুম আব্দুর রৌফ চৌধুরীর ৮ম মৃত্যু বার্ষিকী। আব্দুর রৌফ চৌধুরী ১৯৩৭ সালের ২৮ ডিসেম্বর দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলার ধনতলা গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন এবং ২০০৭ সালের২১ অক্টোবর মৃত্যুবরন করেন। তার বর্ণাঢ্য জীবনে তিনি স্ত্রী রমিজা চৌধুরী, একমাত্র পুত্র বর্তমান বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপিসহ ৫ কন্যা রেখে গেছেন। রৌফ চৌধুরী ১৯৫২ সালে সিরাজগঞ্জ থেকে মেট্রিকুলেশন এরপর ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি ও দিনাজপুর সুরেন্দ্রনাথ কলেজ থেকে বিএ পাস করার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের একজন আস্থাভাজন নেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেন। তিনি বৃহত্তর দিনাজপুর জেলার ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি সুরেন্দ্র নাথ কলেজের ছাত্র সংসদের নেতৃত্বদেন। ১৯৬২ সালে হামিদুর রহমান শিক্ষা কমিশন বিরোধী আন্দোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রণীত ৬ দফা আন্দোলন পরবর্তীতে ছাত্র সমাজের ১১ দফাসহ আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনে তিনি ছিলেন প্রথম কাতারে। স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে পূর্বাঞ্চলীয় জোনে মুজিব সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ ও কামরুজ্জামানের দূত হিসেবে কাজ করেছেন। ৭৫’ এ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে স্ব-পরিবারে হত্যার আন্দোলন এবং ৭৫’র পরবর্তী সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলনে রৌফ চৌধুরীর ভুমিকা ছিল অসামান্য। যার ফলে তিনি আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাজন হয়ে ওঠেন। আশির দশকে তিনি দিনাজপুর জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। সেই সময়ে দলের দুযোর্গ মহুর্তে তিনি নিজের জমি বিক্রি করে দলকে সুসংগঠিত করেছিলেন। ১৯৮৮ সালে বোচাগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও ১৯৯৬ সালে দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসন থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে বাংলাদেশ সরকারের ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। আব্দুর রৌফ চৌধুরীর দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অসংখ্য স্কুল, কলেজ,মাদরাসা, মসজিদ, মন্দির প্রতিষ্ঠা করেছেন। জীবদ্দশায় তিনি অসহায়, দরিদ্র মানুষের পাশ থেকে সহযোগিতা করতেন। তিনি শুধুমাত্র রাজনীতির জন্য নিজের বসতভিটা ছেড়ে দিনাজপুরের রেহানা ও নিউ হোটেলে দীর্ঘ সময় কাটিয়েছেন। রাজনীতির পাশাপাশি খেলাধুলায় তিনি ছিলেন আলোচিত ব্যক্তিত্ব। ২০০৭ সালের ২১ অক্টোবর তার মৃত্যু পর ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর ৮ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার একমাত্র পুত্র দিনাজপুর-২ (বিরর-বোচাগঞ্জ) আসন থেকে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হিসেবে বিপুল ভোটের ব্যবধানে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ২০১০ সালে আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলে এমপি খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পান। একমাত্র পুত্রের এত বড় সাফল্য তিনি দেখে যেতে পারেননি। আজ যদি তিনি বেঁচে থাকতেন তাহলে পুত্রের এই রাজনৈতিক সাফল্যে তিনি   গর্বিত হতেন। আমরা এই মহান নেতার মৃত্যু বার্ষিকীতে তার রুহের আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি। মহান আল্লাহ যেন তাকে বেহেস্ত নসিব করেন। আমিন। এছাড়াও আব্দুর রৌফ চৌধুরীর ৮ম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে বোচাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ বিস্তারিত কর্মর্সচি গ্রহন করেছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email