বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আগুনে পুড়ে ছাই সর্বশান্ত ব্যবসায়ীর আত্ন-বিলাপ

জাহাঙ্গীর আলম রেজা ডিমলা(নীলফামারী)প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডিমলা বাজারে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় নিঃস্ব হয়ে যাওয়া কাপড় ব্যবসায়ী নজরুলের আর্তনাদ কি হবে আমার, কি হবে আমার সন্তানদের ? সব হারিয়ে পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়া দোকানের সামনে বসে প্রলাপ বকছে আর মাঝে মাঝেই মূর্ছা যাচ্ছে নজরুল।

গত বুধবার ভোর ৬ টায় উপজেলা সদরের বাবুরহাট (মধ্যবাজার) সরকার মার্কেটে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় প্রায় অর্ধশতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে ক্ষতির পরিমান প্রায় ২০ কোটি টাকা বলে প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে। নিঃস্ব হয়ে যায় অনেক প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। তাদের মধ্যেই নজরুল একজন। দির্ঘদিন ধরে ভারা জায়গায় আল ইমরান কথষ্টোর নামের প্রতিষ্ঠানটি সু-নামের সহিত পরিচালনা করে আসছিলেন তিনি। হটাৎ কালবৈশাখী ঝড়ের মতো মুহুর্তেই আগুনের লেলিহান শিখা আঘাতহানে সেই প্রতিষ্ঠানে। আগুন লেগে পুড়ে ছাই হয়ে যায় নজরুলের স্বপ্নের কথ ষ্টোরটি। আয়ের উৎসের ভরসা বলতে পুড়ে যাওয়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটিই ছিলো তার একমাত্র অবলম্বন। ভিটে মাটি নাই বল্লেই চলে। বৃদ্ধ পিতা মফিজ উদ্দিন(৭০)স্ত্রী আমিনা(৩৫) ও চার সন্তান নিয়ে তার সংসার। বড় মেয়ে নার্গিস আক্তারকে বুকভরা আশা নিয়ে উচ্চ শিক্ষিত করার লক্ষে রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্সে ভর্তি করিয়ে দেন। নার্গিস ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩য় বর্ষের ছাত্রী। ২য় মেয়ে নাসরিন ডিমলা মহিলা মহাবিদ্যালয়ের ডিগ্রি ১ম বর্ষের ছাত্রী, ছেলে আল ইমরান ডিমলা সরকারী রানী বৃন্দা রানী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্র আর ছোট মেয়ে জান্নাত ডিমলা শিশুতির্থ বিদ্যালয়ে ৩য় শ্রেনীতে অধ্যায়ন করছে। নজরুল বলেন,শেষ সম্বল ভিটেমাটি টুকু বিক্রি করে প্রায় ৪০ লক্ষ টাকার মালামাল তুলে অনেক কষ্টে ব্যবসা কেন্দ্রটি দাড় করিয়েছি। আমার একমাত্র সম্বল ছিলো এই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটিই। যা দিয়ে উপার্জন করে আমি আমার বৃদ্ধ পিতা,স্ত্রী সন্তানদের মুখে দুবেলা অন্য আর সন্তানদের উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করার আশায় পড়ালেখার খরচ জোগাতাম। কিন্তু কি হবে এখন আমার সন্তানদের! কিভাবে জোগাবো তাদের পড়ালেখার খচর,কিভাবে অন্য দিবো সংসারের সদস্যদের মুখে,কে নিবে আমার সন্তান সংসারের ভার? একের পর এক প্রশ্ন আর প্রলাপ বকেই যাচ্ছেন নজরুল। আর মাঝে মাঝেই মূর্ছা যাচ্ছেন পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়া দোকানের দিকে ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে। অগ্নিকান্ডের ঘটনায় অর্ধশতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই হয়ে গেলেও একমাত্র নজরুলের ঘুড়ে দাড়ানোর বিষয়ে চিন্তিত এলাকার সচেতন মহল। নজরুলের আর্তনাদে নিস্তব্দ নজরুলের বসবাস পল্লি। পরিবারের একমাত্র কর্মক্ষম ব্যক্তির আর্তনাদে অস্বাভাবিক আচরন করছে পরিবারের বাকি সদস্যরাও। সন্তানেরা সংঙ্কিত তাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে। বাবুরহাট বাজারের ঔষধ ব্যবসায়ী গোলাম রব্বানী,আমিনুর রহমান,থাই ব্যবসায়ী মুকুল চন্দ্র রায়,গালামাল ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলামসহ অনেকেই বলেন,পুড়ে যাওয়া ব্যবসায়ীদের মধ্যে নজরুলের ঘুড়ে দাড়ানোর কোন উপয় নেই। সরকারীভাবে সাহায্য সহযোগীতা পেলে হয়তো নজরুল পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটি পুনঃরায় চালু করতে পারবে। নজরুলের গ্রামের আছির উদ্দিন,হাকিম মিয়া,মাসুম কবীর,হাফিজুল কবীর বলেন,নজরুল নিজের ভিটেমাটি টুকু বিক্রী করে প্রায় ৪০ টাকার মালামাল তুলে ব্যবসাটি পরিচালনা করে আসছিলেন। প্রতিষ্ঠানটি পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়ায় নজরুলের আত্নবিলাপে গ্রামের আকাশ বাতাস পয্যন্ত ভারি হয়ে আসছে। নাওয়া খাওয়া বাদ দিয়েছে নজরুলসহ পরিবারের বাকী সদস্যরাও। তারা সরকার এবং বিভিন্ন এনজিও সহ সমাজের বিত্তবানদের নিঃস্ব নজরুলরে পাশে দাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন । নজরুলের বৃদ্ধ পিতা কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন,আমার ছেলেটাকে একটু দয়া করেন। আপনারা দয়া না করলে আমাদের পরিবারের সকলকে না খেয়ে মরতে হবে। নীলফামারীÑ১(ডোমার-ডিমলা) আসনের সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার বলেন,আগুনে পুড়ে যাওয়া ক্ষতিগ্রস্ত সকল ব্যবসায়ীর পক্ষে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ করা হয়েছে। এবং তাদের সাহায্য করার বিষয়ে আমি চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন,সরকারীভাবে সহযোগীতার জন্য আবেদন করা হয়েছে। তবে এখন পয্যন্ত তা পাওয়া যায়নি। হয়তো দু এক দিনের মধ্যে তা পাওয়া যাবে বলে আশা করছি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email