সোমবার ৫ জুন ২০২৩ ২২শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আজও পূর্নবাসিত হয়নি পার্বতীপুরের চিড়াকুটা আদিবাসীর ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার। খোলা আকাশের নীচে বসবাস

সোহেল সানি : দিনাজপুরের পার্বতীপুরের হাবিবপুর চিড়াকুটা আদিবাসী পল্লীতে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনার ৯ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনও পূর্নবাসিত হয়নি সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার। খোলা আকাশের নীচে মানববেতর জীবন যাপন করছে তারা। আদিবাসীদের দায়ের করা মামলায় আসামীরা জামিনে এসে হুমকী দিচ্ছেন বলে জানান মামলার বাদী নিলীমা মেহব্রম। ফলে অনেক আদিবাসী পুরুষ গ্রামে আসতে পারছেন না। জেলা প্রশাসনের আশ্বাসের পরেও আদিবাসীদের পুর্নবাসনে দীর্ঘসূত্রীতায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন আদিবাসী নেতারা। তবে আদিবাসীদের নিরাপত্তা দিতে প্রশাসন এখনও অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প বহাল রেখেছে। পুলিশ ১৯জন আদিবাসী পুরুষকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে পাঠায়। এরপর বিভিন্ন সময়ে ১৫জন জামিন পেয়েছেন। কিন্তু কারাগারে এখনো আটক আছেন মানিক টুডুর দুই পুত্র হাবিল টুডু (৫৭) ও বার্ণাবাস টুডু (৪০), পাসকাল টুডুর পুত্র জুবিয়েল টুডু (২২) এবং আলফ্রেড হেমব্রমের পুত্র জীবন হেমব্রম রুবেন (২১)।

পাসকাল টুডু বলেন, জামিন নিতে যে অর্থের প্রয়োজন সেটা দিতে পারিনি। ফলে ছেলেদের জামিন নিতে পারছিনা।

মামলার বাদিনী আদিবাসী নিলীমা হেমব্রম বলেন, গত ২৪ জানুয়ারীর আদিবাসী পল্লীতে হামলা অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটে প্রায় পোনে এক কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে পুলিশ কিছু সংখ্যক গরু, ধান, শ্যালো মেশিন, টিউবওয়েল উদ্ধার করতে পেরেছে।

বাচ্চু হেমব্রমের (৪৫) দুইটি মাটির ঘর হামলার সময় ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালানো হয়। সবগুলো ঘরের টিন খুলে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। ফলে আশ্রয় নেন প্রতিবেশি ও মামাত বোন নীলিমা হেমব্রমের বাড়িতে।

জাতীয় আদিবাসী পরিষদের সভাপতি রবীন্দ্র নাথ সরেন বলেন, স্থানীয় প্রশাসন ও এনজিও হাড়ি পাতিল ও শীত নিবারনের জন্য কম্বল বিতরন করেছেন। জেলা প্রশাসন ও মন্ত্রী মহোদয় গৃহ নির্মানের আশ্বাস দিলেও ঘটনার ৯ মাস অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত গৃহ নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়নি। ফলে পরিবার এখনও খোলা আকাশের নীচে বসবাস করে মানবেতর জীবন যাপন করছে। বৃষ্টির কারনে মাটির দেয়াল ভেঙ্গে পড়েছে। তা ছাড়াও মামলার ভয়ে এখনও পুরুষরা ঘরে ফিরতে পারছেনা।

এব্যাপারে পার্বতীপুর মডেল থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মোঃ আঃ রাজ্জাক বলেন, আদিবাসীদের লুন্ঠিত অনেক গবাদীপশু ও মালামাল উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার চেষ্টা চলমান আছে।

উলে­খ্য, গত ২৪ জানুয়ারী দিনাজপুরের পার্বতীপুরের মোস্তফাপুর ইউনিয়নের হাবিবপুরে জমি (খতিয়ান জেএল-৬৯, সিএস-৫৯, এসএ-৫২, দাগ-৬১০ দলা) ১৪ একর জমি নিয়ে আদিবাসীদের সাথে বড়দল সরকার পাড়া গ্রামের জহুরুল হকের লোকজনের সাথে সংঘর্ষ বাঁধে। এতে তীর বিদ্ধ হয়ে জহুরুল হকের ছেলে শাফিউল ইসলাম সোহাগ মারা যায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে জহুরুল হকের অনুসারীরাসহ চারপাশের গ্রামের হাজারো মানুষ আদিবাসী পল্লীতে অগ্নিসংযোগ ও লুটতরাজ করে। এতে অর্ধশত বাড়ী ক্ষতিগ্রস্ত হয়। লুটপাট করা হয় আদিবাসীদের দেড় শতাধিক গরুসহ পরিবারের সব কিছুই। এ ঘটনায় পরস্পর দুটি মামলা হয়েছে।