শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজও রক্তে রঞ্জিত গাজা ।জাতিসংঘ-বিশ্ব সম্প্রদায় নিরব দর্শক।

Gazaফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় ৭ম দিনের মতো আজ সেমাবারও হামলা অব্যাহত আছে। চলমান এ হামলায় এ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭২ জনে। আহত হয়েছে প্রায় দেড় হাজার মানুষ। এদিকে ইসরাইলের এ হত্যাযজ্ঞ বন্ধে জাতিসংঘের কাছে আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা চেয়েছেন ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। পক্ষান্তরে শিশুদের আর্তচিৎকার, কান্নায় ভারী হয়ে উঠেছে গাজা উপত্যকা। হতাহতদের স্বজন ও ক্ষতিগ্রস্তদের আহাজারি যেন থামছেই না। হাসপাতালগুলোতে প্রতিনিয়তই বাড়ছে আহতদের সংখ্যা।
গণমাধ্যমের খবরে জানা যায়, ইসরাইলি হামলার কারণে রবিবার জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুনের কাছে দেয়া এক চিঠিতে আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা চেয়েছেন ফিলিস্তিনের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাস। এ ব্যাপারে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান তিনি। অপরদিকে ইসরাইলের এ হামলা প্রতিবাদে গাজাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চলছে বিক্ষোভ। বিশ্বব্যাপী- ফিলিস্তিন মুক্ত করো, গাজা মুক্ত করো বলে শ্লোগান উঠেছে। তবে এসব বিক্ষোভ সমাবেশ এবং জাতিসংঘের আহ্বানকে একরকম বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে বিমান এবং স্থল অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে ইসরাইল।
জাতিসংঘের আহ্বানকে পাত্তা না দিয়ে গাজায় বিমান হামলার পাশাপাশি স্বল্প পরিসরে স্থল হামলাও শুরু করেছে ইসরাইল। রবিবার স্থল হামলা শুরুর পর ফিলিস্তিনিদের গাজার উত্তরাঞ্চল ছেড়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে ইসরাইল। বিকালে এলাকা না ছাড়লে কড়া মাসুল দিতে হবে বলে বিমান থেকে লিফলেট ফেলেছে ইসরাইলী বাহিনী। এরই মধ্যে অন্তত ১৭ হাজার মানুষ শরণার্থীতে পরিণত হয়েছে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ।
গাজার এক বাসিন্দা বলেন, ইসরাইলি বাহিনী সতর্ক বার্তা পাঠিয়েছে। তাই আমরা আমাদের ঘরে থাকতে ভয় পাচ্ছি। আমরা দ্রুত এখান থেকে চলে যেতে চাই। তার আগে আমাদের স্কুলে যেতে হবে বাচ্চাদের মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা করতে গাজার আরেক  বাসিন্দা বলেন, এখানে থাকা সত্যিই কঠিন। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত আমাদের স্বজনদের এ অবস্থায় রেখেই আমাদের চলে যেতে হচ্ছে।