রবিবার ২২ মে ২০২২ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজ কলঙ্কময় পিলখানা ট্রাজেডি দিবস

BDRআজ কলঙ্কময় পিলখানা ট্র্যাজেডি দিবস। ভয়াল ২৫ ফেব্রুয়ারি। পিলখানা ট্রাজেডির ৫ বছর পূর্তি হচ্ছে আজ। ২০০৯ সালের এদিনে কতিপয় বিপদগামী বিডিআর সদস্য পিলখানায় পৈশাচিক কায়দায় ৫৭ জন সেনাকর্মকর্তাসহ ৭৪ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করেছিল।  জাতি আজ গভীর শ্রদ্ধাভরে তাঁদের স্মরণ করছে।
ভয়াল এই দিনে ল্যান্সনায়েক ইকরাম, সিপাহি সেলিম রেজা, কাজল আলী, বাছেদ ও শামীম আল মামুন জুয়েলসহ বিডিআরের কিছু সংখ্যক বিপথগামী ঘাতকের হিংস্র তাণ্ডবে তৎকালীন বিডিআর মহাপরিচালক, স্ত্রী, সহ ৫৭ সেনা পরিবারসহ শতাধিক পরিবার ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।
নির্মম এ ঘটনায় স্বজনহারাদের কান্না থামেনি আজও। নির্মম ও নৃশংস এ হত্যাযজ্ঞের বিচার চলতি বছরেই শেষ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।
পিলখানা ট্র্যাজেডি ঘটে যাওয়ার পরে প্রথমে কোতোয়ালি থানায় ও পরে নিউ মার্কেট থানায় সদর ব্যাটালিয়নের ডিএডি তৌহিদুল আলমসহ ৬ জনের নাম উলেস্নখ করে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে একটি মামলা দায়ের করে পুলিশ। এছাড়াও বাহিনীর নিজস্ব আইনে পিলখানাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ৫৭টি বিদ্রোহ মামলা দায়ের করা হয়। এসব মামলায় ৬ হাজারেরও বেশি বিডিআর সদস্যকে আসামি করা হয়।
গত বছরের ২০শে অক্টোবর সদর রাইফেল ব্যাটালিয়নের ৭২৩ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়ার মধ্য দিয়ে ৫৭টি বিদ্রোহের মামলার নিষ্পত্তি হয়। তবে ২০১১ সালের ৫ই জানুয়ারি পুরান ঢাকা আলিয়া মাদরাসা মাঠসংলগ্ন অস্থায়ী ঢাকা মহানগর জজ আদালতে হত্যা মামলার বিচার কার্যক্রম শুরু হলেও অদ্যাবধি এ বিচার কার্যক্রম সম্পন্ন হয়নি। ৫৭টি বিদ্রোহ মামলায় বিডিআরের নিজস্ব আইনে গঠিত বিশেষ আদালতে ৫৯২৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়।
তাদের মধ্যে সর্বোচ্চ সাজা দেয়া হয় ৮৭০ জনকে। একই সঙ্গে সকল সাজাপ্রাপ্তকে ১০০ টাকা করে জরিমানা ও চাকরিচ্যুত করা হয়। এসব মামলা থেকে বেকসুর খালাস পান ১১৫ জন বিডিআর সদস্য। খালাসপ্রাপ্ত সকল বিডিআর সদস্যই বর্তমানে বিজিবিতে (সাবেক বিডিআর) চাকরি ফিরে পেয়েছেন।
তদন্তের পর হত্যা মামলায় ২৩ বেসামরিক ব্যক্তিসহ প্রথমে ৮২৪ জনের বিরুদ্ধে ও পরে সম্পূরক চার্জশিটে আরও ২৬ জনকে অভিযুক্ত করা হয়। বেসামরিক ব্যক্তিদের মধ্যে বিএনপি নেতা নাসিরউদ্দিন আহমেদ পিন্টু, বিএনপির স্থানীয় নেত্রী সুরাইয়া বেগম ও আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক বিডিআর সদস্য তোরাব আলীও রয়েছেন। এ মামলার ২০ আসামি এখনও পলাতক রয়েছেন।
অপরদিকে হত্যা মামলার সঙ্গে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের মামলাটিও চলছে একই আদালতে। এ মামলায় প্রথমে ৮০৮ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দেয়া হয়। পরে আরও ২৬ জনের বিরুদ্ধে সম্পূরক অভিযোগপত্র দেয়ায় এ মামলায় মোট আসামি দাঁড়ায় ৮৩৪ জনে। এদের মধ্যে মারা গেছেন ৩ জন।

 

বিচার প্রক্রিয়া সম্পর্কে বিজিবির মহাপরিচালক জানিয়েছেন, বিডিআর বিদ্রোহ ও পিলখানা হত্যাকাণ্ডের মতো কলঙ্কজনক অধ্যায়কে পেছনে রেখেই আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে।

25 †deªæqvwi‡K knx` †mbv w`em †NvlYv Kivi `vwe h_v_© Ges hviv IBw`b wb‡R‡`i AvZ¥vûwZ w`‡q‡Qb Zv‡`i gi‡YvËi exiDËg উপাধি দেওয়ার দাবি জানান সুশীল সমাজ।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email