বৃহস্পতিবার ১১ অগাস্ট ২০২২ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজ বিশ্বভালবাসা দিবস

v d bআজ বিশ্ব ভালবাসা দিবস।

বিশ্বের অন্যান্য

দেশের মতো নান কর্মসূচীর

মধ্যদিয়ে

বাংলাদেশেও পালিত হচ্ছে বিশ্ব ভালোবাসা

দিবস। বিশ্ব ভালোবাসা দিবস বা ভ্যালেন্টাইন্স

ডের উৎপত্তি নিয়ে বহু ইতিহাস থাকলেও এটি

পাশ্চাত্যের  কালচারেরই একটি অনুসঙ্গ। ইতিহাস

থেকে জানা যায়, ২৬৯ সালে ইতালির রোম

নগরীতে সেন্ট ভ্যালেন্টাইন্স নামে একজন খৃষ্টান

পাদ্রী ও চিকিৎসক ছিলেন। ধর্ম প্রচার-অভিযোগে

তৎকালীন রোমান সম্রাট দ্বিতীয় ক্রাডিয়াস

তাকে বন্দি করেন। কারণ তখন রোমান সাম্রাজ্য

খৃষ্টান ধর্ম প্রচার নিষিদ্ধ ছিল। বন্দি অবস্থায়

তিনি জনৈক কারারক্ষীর দৃষ্টহীন মেয়েকে

চিকিৎসার মাধ্যমে সুস্থ করে তোলেন। এতে সেন্ট

ভ্যালেইটাইনের জনপ্রিয়তার প্রতি ঈর্ষান্বিত হয়ে

রাজা তাকে মৃত্যুদন্ড দেন। সে দিনটিই ১৪ই

ফেব্রুয়ারি ছিল।

অতঃপর ৪৯৬ সালে পোপ সেন্ট জেলাসিউও ১ম

জুলিয়াস ভ্যালেন্টাইন্স স্মরনে ১৪ ফেব্রুয়ারিকে

ভ্যালেন্টাইন্স ডে ঘোষণা করেন। তবে খৃস্টীয় এ

ভ্যালেন্টাইন দিবসের চেতনা বিনষ্ট হওয়ায়

১৭৭৬ সালে ফ্রান্স সরকার কর্তৃক ভ্যালেইটাইন

উৎসব নিষিদ্ধ হয়। ইংল্যান্ডে ক্ষমতাসীন উৎসব

পিউরিটানরাও একসময় প্রশাসনিকভাবে এ

দিবস উৎযাপন করা নিষিদ্ধ দেয়। এছাড়া

অস্ট্রিয়া, হাঙ্গেরি ও জার্মানীতে বিভিন্ন সময়ে এ

দিবস প্রত্যাখ্যাত হয়।

বর্তমানে গোটা বিশ্বেই দিবসটি বিশেষভাবে

পালিত হচ্ছে নানা বর্নিল আয়োজনে।  বর্তমান

কালে পাশ্চাত্যে এ উৎসব মহাসমারোহে

উদযাপন করা হয়। যুক্তরাজ্যে মোট জনসংখ্যার

অর্ধেক প্রায় ১০০ কোটি পাউন্ড ব্যায় করে এ

ভালোবাসা দিবসের জন্য কার্ড, ফুল, চকোলেট,

অন্যান্য উপহার সামগ্রী ও শুভেচ্ছা কার্ড ক্রয়

করতে, এবং আনুমানিক প্রায় ২.৫ কোটি শুভেচ্ছা

কার্ড আদাপ্রদান করা হয়।

১৯৯৩ সাল হতে এ দিবসটি বাংলাদেশে পালন

করা শুরু হয়, যার অন্যতম পুরোধা বিশিস্ট

শফিক রেহমান এর হাত ধরে। প্রথমত তৎকালিন

সাপ্তাহিক যাযাদির মাধ্যমেই তিনি এটা শুরু

করেন।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email