শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজ বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস

Proputionআজ শুক্রবার এবারের বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস। অন্যান্য বছরের মতো এবারও বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাথে বাংলাদেশে দিবসটি পালনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ উপলক্ষে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে নান কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে। দিবসটির এ বছরের প্রতিপাদ্য হচ্ছে- ‘তারুণ্যে বিনিয়োগ, আগামীর উন্নয়ন’। বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলাদা আলাদা বাণী দিয়েছেন।
দিবসটি উপলক্ষ্যে প্রতিবারের মতো এবারও পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর জাতীয় পর্যায় থেকে শুরু করে জেলা উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হবে। এর মধ্যে রয়েছে র‌্যালী, আলোচনা সভা ইত্যাদি। দিবসের মূল অনুষ্ঠান হবে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখবেন।
অনুষ্ঠানে জনসংখ্যা কার্যক্রমে বিশেষ অবদান রাখায় মাঠ পর্যায়ে দেশের শ্রেষ্ঠ পরিবার পরিকল্পনা কর্মী ও সেবা প্রদানকারী সংস্থাসমূহ এবং এফপি মিডিয়া এওয়ার্ড বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার প্রদান করা হবে। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষ্যে রেডিও এবং টেলিভিশনে বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার, পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতর থেকে স্মরণিকা, ব্রোশিউর, লিফলেট, পোস্টার ও বিভিন্ন দৈনিকে ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হবে। ডাক বিভাগের মাধ্যমে একটি স্মরক ডাকটিকেট উন্মোচন করা হবে।
পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের তথ্যমতে, ১৯৫১ সালে বাংলাদেশে (তৎকালীন পূর্বপাকিস্তান) জনসংখ্যা ছিল ২ কোটি ৩ লাখ। বর্তমানে দেশের জনসংখ্যা ১৪ কোটি ২৩ লাখ ১৯ হাজার। জনসংখ্যা বৃদ্ধির বার্ষিক হার ১ দশমিক ৩৪ শতাংশ। প্রতি বর্গ কিলোমিটারে এখানে বাস করে ৯৭৯ জন মানুষ।
রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেছেন, ছেলে মেয়ের মধ্যে কোন বৈষম্য না করে সকল বিষয়ে সমান সুযোগ দিয়ে তাদেরকে জনসম্পদে পরিণত করতে পারলে বাংলাদেশ অচিরেই সমৃদ্ধ দেশে পরিণত হবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের ভূ-আয়তনের তুলনায় জনসংখ্যা অনেক বেশি। দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নে সম্পদ ও জনসংখ্যার ভারসাম্য রক্ষা করা অতীব গুরুত্বপূর্ণ। জনসংখ্যাকে জনসম্পদে রূপান্তর করতে পারলেই দেশের সার্বিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে। বিশ্ব জনসংখ্যা দিবসে এ বছরের প্রতিপাদ্য ‘তারুণ্যে বিনিয়োগ, আগামীর উন্নয়ন’ দেশের বর্তমান আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটে অত্যন্ত সময়োপযোগী ও যথার্থ বলে তিনি উল্লেখ করেন।
আবদুল হামিদ বলেন, বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় এক-চতুর্থাংশ তরুণ প্রজন্ম। তাদের শিক্ষা, সুস্বাস্থ্য ও জীবনদক্ষতার ওপর নির্ভর করছে দেশের ভবিষ্যৎ সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন। ভবিষ্যতের কাণ্ডারি হিসেবে তাই এই তরুণ প্রজন্মকে দক্ষ, সুশিক্ষিত ও সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হিসেবে গড়ে তোলা আবশ্যক। কিশোরকাল হচ্ছে জীবন গঠনের সঠিক ও উপযুক্ত সময়।
রাষ্ট্রপতি বলেন, কিশোর-কিশোরীরা যাতে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে ওঠতে পারে সে জন্য তাদের শৈশব থেকেই দেশপ্রেমের মহান শিক্ষাসহ সঠিক দিক নির্দেশনা দিতে হবে। তাদের সামাজিক ও নৈতিক শিক্ষার পাশাপাশি প্রজনন স্বাস্থ্যবিষয়ক শিক্ষা নিশ্চিত করাও জরুরি বলে তিনি উল্লেখ করেন। বাণীতে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যদিয়ে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস ২০১৪ পালনের উদ্যোগকে স্বাগত জানান তিনি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে তরুণ সম্প্রদায়কে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য ও প্রজনন সেবা প্রদানের জন্য সরকারের পাশাপাশি দেশের সকল বেসরকারি সংগঠন, গণমাধ্যম, সচেতন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ভবিষ্যতের এই তরুণ সম্প্রদায়কে জনসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে আমাদের সরকার অঙ্গীকারাবদ্ধ। আমরা তরুণ সম্প্রদায়ের শিক্ষা, জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধির পাশাপাশি তাদের প্রজনন স্বাস্থ্যের পরিচর্যা নিশ্চিত করতে নানাবিধ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছি।
শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশে জনসংখ্যার মোট ৩৩ শতাংশই কিশোর ও যুব শ্রেণি। মোট জনসংখ্যার এই গুরুত্বপূর্ণ অংশ আগামী বছরগুলোতে দেশের মোট প্রজনন হার ও জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারকে প্রভাবিত করবে। তিনি বলেন, তৃণমূলে স্বাস্থ্যসেবা সঠিক ভাবে পৌঁছে দেবার জন্য সারাদেশে কমিউনিটি ক্লিনিক চালু করা হয়েছে। প্রতিমাসে ৩০ হাজার স্যাটেলাইট ক্লিনিক ঘরে ঘরে গিয়ে পরিবার পরিকল্পনা এবং মা ও শিশুস্বাস্থ্য বিষয়ে সেবা ও পরামর্শ প্রদান করছে। কমিউনিটি ক্লিনিক ও ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় পর্যায়ের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা খাতের প্রতিটি স্তরে কিশোর ও যুব শ্রেণির জন্য সেবা প্রদানের সুব্যবস্থা রয়েছে।
এবারের দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘তারুণ্যে বিনিয়োগ, আগামীর উন্নয়ন’। প্রধানমন্ত্রী প্রতিবছরের ন্যায় এবারও বাংলাদেশে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালন করায় আনন্দ প্রকাশ করেন এবং বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস ২০১৪ উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসূচির সাফল্য কামনা করেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email