শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আজ ২৬ আগষ্ট ফুলবাড়ী দিবস

মেহেদি হাসান, ফুলবাড়ী প্রতিনিধি ॥ আজ ২৬ আগষ্ট ফুলবাড়ী দিবস। ২০০৬ সালের এই দিনে দিনাজপুরের ফুলবাড়ী কয়লা খনি প্রকল্প বাতিল এবং এশিয়া এনার্জীকে প্রত্যাহারের দাবীতে তেল, গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির উদ্যোগে মিছিল সমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশ ও বিডিআর এর সাথে জনতার সংঘর্ষে সালেকীন (২০), তরিকুল (২১) ও আমিন (১৩) নিহত হয়। আহত হয় ২ শতাধিক। এ সময় এশিয়া এনার্জীর স্থানীয় অফিস উত্তেজিত জনতা ভেঙ্গে দেয়। শুরু হয় লাগাতার হরতাল।

এই ঘটনায় ফুলবাড়ী বাসীর বাধ ভাঙ্গা আন্দালনের মুখে ফুলবাড়ী শহর ছাড়তে বাধ্য হয় বিডিআরসহ আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা।  ফুলবাড়ী জনপদ লাখো জনতার আন্দোলনের মুখে ২০০৬ সালের ৩০ আগস্ট’ তৎকালীন জোট সরকারের একজন উপমন্ত্রী ও রাজশাহী সিটি মেয়র ফুলবাড়ীতে এসে আন্দোলনরত নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠকের পর এশিয়া এনার্জীকে প্রত্যহারসহ ৬ দফা চুক্তি স্বাক্ষরের পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। এরপর থেকে এই দিন টিকে ফুলবাড়ী বাসী ফুলবাড়ী দিবস হিসাবে পালন করে আসছে।

এবারো ফুলবাড়ী সম্মিলিত পেশা জীবি সংগঠন ও তেলগ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি দিবসটি পালনের জন্য নানা কর্মসুচি গ্রহন করেছে।

এদিকে ফুলবাড়ী দিবস ১০বছর পেরিয়ে গেলেও আজও বাস্তবায়ন হয়নি ফুলবাড়ীবাসীর সঙ্গে তৎকালীন সরকারের সম্পাদিত ৬ দফা চুক্তি। এজন্য আন্দোলনকারী সংগঠন সম্মিলিত পেশাজীবি সংগঠন ও তেল গ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি সে সময় বিরোধী দলে থাকা অবস্থায় বর্তমান প্রধানমন্ত্রী যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে ছিল তার বাস্তবায়নের জন্য আহবান জানান।

এ বিষয়ে ফুলবাড়ী সম্মিলিত পেশাজীবি সংগঠনের  আহবায়ক ও পৌর মেয়র মুর্তুজা সরকার মানিক বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ২০০৬ সালে বিরোধী দলীয় নেতা থাকা কালীন ফুলবাড়ীতে এসে ফুলবাড়ী বাসীকে প্রতিশ্রুতি দিয়ে গিয়ে ছিলেন, তিনি যদি ক্ষমতায় যান তাহলে ফুলবাড়ীবাসীর সঙ্গে সম্পাদিত ৬ দফা চুক্তি বাস্তবায়ন করবেন। কিন্তু দাবীগুলো আজও বাস্তবায়ন হয়নি।

অপর দিকে তেলগ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ফুলবাড়ী শাখার আহবায়ক সৈয়দ সাইফুল ইসলাম জুয়েল বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বিরোধী দলে থাকা অবস্থায় ২০০৬ সালে ফুলবাড়ীতে এসে ফুলবাড়ীর বীর জনতাকে অভিনন্দন জানিয়েছিলেন। তিনি ফুলবাড়ীবাসীর সঙ্গে সম্পাদিত ৬ দফা চুক্তি বাস্তবায়নের ঘোষনা দিয়েছিল, কিন্তু ক্ষমতায় গিয়ে আজও সেই প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন করেনি। এর কারনে আবারো এশিয়া এনার্জির কমিশন ভোগী দালালেরা নানা ভাবে ফুলবাড়ী বাসীকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা করছেন। এ কারণে দ্রুত সময়ে ফুলবাড়ী বাসীর ৬ দফা চুক্তি বাস্তবায়নের দাবী জানান।

উল্লেখ্য, ফুলবাড়ী পৌর এলাকাসহ এর আশপাশের এলাকায় ভূগর্ভে কয়লার সন্ধান পাওয়ার পর এশিয়া এনার্জী নামে একটি বিদেশী কোম্পানী ২০০৫ সালের ২ অক্টোবর ফুলবাড়ীতে কয়লার সম্ভাবতা যাচাইয়ের কাজ শুরু করে। তারা ওই এলাকায় ১১টি কূপ খনন করে। ফুলবাড়ী, বিরামপুর, নবাবগঞ্জ ও পার্বতীপুর উপজেলার অধীনে ৭টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার অংশ ফুলবাড়ী প্রকল্প এলাকার অভ্যন্তরে অবস্থিত। খনি বাস্তবায়নে ৫ হাজার ৯’শ ৩৩ হেক্টর জমি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এর মধ্যে কৃষি জমির পরিমান ৪ হাজার ৭’শ ৬২ হেক্টর। খনির মেয়াদকালে প্রায় ৪০ হাজার মানুষ এবং প্রায় ২০ হাজার স্থাপনা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এক পর্যায়ে উন্মুক্ত পদ্ধতিতে কয়লা উত্তোলনের প্রক্রিয়া শুরু করলে পরিবেশ বিপর্যয়ের আশংকা এবং এলাকায় প্রায় ৪০ হাজার মানুষকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার প্রয়োজনীয়তা দেখা দিলে ফুলবাড়ীর মানুষ “ফুলবাড়ী রক্ষা কমিটি” নামে একটি আন্দোলন কমিটি গঠন করে আন্দোলন শুরু করে। তেল, গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি খনি বিরোধী আন্দোলনে যোগ দেয়। শুরু হয় তীব্র আন্দোলন। চলতে থাকে মিছিল, মিটিং এবং সমাবেশ। এরপরও এশিয়া এনার্জী তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রাখে। আন্দোলনে বিস্ফোরণ ঘটে ২০০৬ সালের ২৬ আগষ্ট।

২৬ আগষ্ট ফুলবাড়ী দিবস উপলক্ষে র‌্যালী ও সমাবেশ সহ ব্যাপক কর্মসূচী গ্রহণ করেছে তেলগ্যাস খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির এবং সম্মিলিত পেশা জীবি সংগঠন।

Spread the love