মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আটোয়ারীতে অগ্নিকান্ডে ৯ পরিবার সর্বশান্ত

Fair Stationপঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে এক অগ্নিকান্ডে ৯ পরিবারের সবকিছুই পুড়ে ছাঁই হয়ে গেছে। অগ্নিকান্ডে মীনা(৯) ও সাধনা(৭) নামের দুই শিশু দগ্ধ হয়ে বর্তমানে আটোয়ারী হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। এসময় ২টি গরু, ৪-৫টি ছাগল সহ অসংখ্য হাস-মুরগী আগুনে দগ্ধ হয়ে মারা গেছে। অগ্নিকান্ডে ধান-চাল, গম, নগদ টাকা, জমির দলিল, আসবাবপত্র সহ সংসারের সবকিছুই পুড়ে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্থরা মানবেতর জীবন-যাপন করছে। প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে অগ্নিকান্ডে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান প্রায় কুড়ি লক্ষাধিক টাকা।

ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনাটি বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টায় উপজেলার আলোয়াখোয়া ইউনিয়নের পালপাড়া গ্রামে ঘটে। আটোয়ারী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দয়ারামের মেয়ে মীনা (৩য় শ্রেণী) পাল জানায়, তার বাবার শোয়ার ঘরের কয়েলের আগুন হতে আগুনের সুত্রপাত হয়ে মুহুর্তেই প্রতিবেশীদের ঘরে তা বিস্তার লাভ করে। অগ্নিকান্ডে দয়ারামের ভাই বলরাম পাল, বিশ্বনাথ পাল, দ্বিনত পাল, ফনি পাল, কেঁথেরু পাল, সদানন্দ পাল, মনদেব পাল ও ধনে পালের প্রায় ২৫টি ঘর সম্পুর্ন ভষ্মীভূত হয় এবং আগুনের হাত থেকে রক্ষা পেতে আরো ৪-৫টি পরিবারের বেশকিছু ঘর ভেঙ্গে ফেলা হয়। আহত অপর শিশু ওই গ্রামের বলরাম পালের মেয়ে।

আটোয়ারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আশরাফুল ইসলামের নির্দেশক্রমে আলোয়াখোয়া ইউ’পি চেয়ারম্যান মো. তৌহিদুল ইসলাম তাৎক্ষণিক ক্ষতিগ্রস্থ প্রতিটি পরিবারে নগদ এক হাজার টাকা, ১০ কেজি চাল ও ২টি করে কম্বল বিতরণ করেন। আলোয়াখোয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বিশিষ্ট শিল্পপতি মো. শামসুজোহা আগুনে পুড়ে যাওয়া প্রত্যেক পরিবারের মাঝে এক বান্ডিল করে ঢেউটিন বিতরণ করার ঘোষনা দেন ও এলাকাবাসী ক্ষতিগ্রস্থদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করেন। অগ্নিকান্ড শুরুর প্রায় দেড় ঘন্টা পর পঞ্চগড় হতে ফায়ার সার্ভিসের লোকজন এসে আগুন নেভাতে সহায়তা করে।

উল্লেখ্য, আটোয়ারীতে কোন ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন না থাকায় প্রতিবছর এ মৌসুমে আগুনে পুড়ছে লক্ষ লক্ষ টাকার সম্পদ এবং অগ্নিকান্ডে শিশু সহ বহু গবাদিপশুর মর্মান্তিক প্রানহাণী ঘটছে। দ্রুত উপজেলায় একটি ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন বসানো হোক এটি এলাকাবাসীর প্রাণের দাবী।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email