শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪ ৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আটোয়ারীতে কাজলী বেগমের মৃত্যুর ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা ?

 

শাহীনুর ইসলাম, আটোয়ারী, পঞ্চগড় প্রতিনিধি

পঞ্চগড়ের আটোয়ারীতে কাজলী বেগমের মৃত্যুর ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা এনিয়ে এলাকায় নানা গুঞ্জন চলছে। ঘটনাটি ঘটেছে আটোয়ারী উপজেলার বলরামপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ সাতখামার গ্রামে। জনৈক প্রভাবশালী ও স্থানীয় ইউ.পি সদস্য সৈয়দ আলী মেম্বার ঘটনাটি ভিন্নখাতে ব্যবহারের চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

এলাকাবাসি জানায়,  উপজেলার দক্ষিণ সাতখামার গ্রামের মোস্তফার ছেলে হারুনের সাথে প্রেমের সম্পর্ক ধরে গত ৪ বছর আগে বিয়ে হয় ঠাকুরগাঁয়ের কাজলী বেগমের সাথে। তাদের সংসারে হাবিবা নামে এক বছরের একটি কন্যা সন্তানও রয়েছে। গত ৩১ জানুয়ারি স্বামী হারুনের তাস খেলায় বাধা দেয়ায় তার হারুন তাকে অমানবিক মারপিট করে। মারপিটে কাজলী জ্ঞান হারিয়ে ফেললে কৌশলে তার মুখে বিষ ঢেলে দিয়ে বোদা হাসপাতালে নিয়ে যায়। কাজলীর অবস্থার অবনতি হলে ঠাকুরগাঁও হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। ওই দিনেই রাত প্রায় সাড়ে ৭টার সময় কাজলী মারা যায়। কাজলীর বাবাকে মোবাইল ফোনে খবর দিলে তিনি লোকজন সহ সাতখামারে আসেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে কাজলীর স্বামী হারুনকে গ্রেফতার করে এবং লাশ ময়না তদন্তের জন্য পঞ্চগড় মর্গে প্রেরণ করে। অভিযোগে জানা যায়, এলাকার প্রভাবশালী ও ইউ.পি সদস্য সৈয়দ আলীর মধ্যস্ততায় কাজলীর বাবা-ভাই-ভগ্নিপতিদের ৪৫ হাজার টাকায় ম্যানেজ করে ফেলে। পুলিশও ম্যানেজ হয়ে ঐদিনেই রাতে গ্রেফতারকৃত আসামি হারুনকে ছেড়ে দেয়। এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য সৈয়দ আলী কাজলী হত্যার ব্যাপারে কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। তবে হারুনের মা সালেহা সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বলেছেন কাজলীর মৃত্যুর ঘটনাটি আল্লাহই ভাল জানেন। আটোয়ারী থেকে একদল সাংবাদিক ঘটনাস্থলে গেলে আব্দুল মান্নান সাংবাদিকদের ম্যানেজের চেষ্টা করে। কাজলী আত্মহত্যা করে থাকলে তার পিতাকে টাকা দিয়ে ম্যানেজ করতে হবে কেন ? পুলিশ হারুনকে কেন গ্রেফতার করেছিল ? এলাকাবাসির জিজ্ঞাসা কাজলীর মৃত্যুর ঘটনাটি হত্যা না আত্মহত্যা ?

Spread the love