শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আতাউর স্যারের যত কষ্ট

আমা‌দের আতাউ‌রের সা‌থে আজ‌কে হঠাৎ দেখা।চিরাচ‌রিত আতাউর‌কে দে‌খে যে ভা‌বে আ‌মি অভ্যস্হ আজ‌কে সে রকম ম‌নে হ‌লো না। কাছাকা‌ছি আস‌তেই আমা‌কে প্রায় কাম‌ড়ে ধরার অবস্হা। দুপু‌রের আগুন ঝরা‌নো সূর্যটা‌কে নি‌জের দু’‌টো চো‌খের ম‌ধ্যে না‌মি‌য়ে এ‌নে তার পু‌রো তাপ ঢে‌লে দি‌লো আমার বরাব‌রে,

“তুই আমার এতবড় ক্ষ‌তিটা কর‌লি কেন?”
আ‌মি হতভম্ব। একদম টাস‌কি খাওয়া অবস্হা।
সফট হ্যা‌ন্ডে ডি‌ফেন্স ক‌রি ঝানু ব্যাটসম্যা‌নের মত,
“‌কি ক্ষ‌তি দোস্ত!”
‌”‌তো‌কে ছোট‌বেলা থে‌কেই দে‌খি ঘটনা ঘটা‌নোর পর তুই আর ভাজা মাছটা উল্টায় খাই‌তে পা‌রিস না।” তাপ বে‌ড়েই চ‌লে।
এটা ঠিকই বল‌লো ও। মাছ এলা‌র্জি আমার জ‌ন্মের পর থে‌কেই, বি‌শেষ ক‌রে কাঁটা বে‌ছে খাওয়ার ব্যাপা‌রে। তবুও বিষ‌য়ের গুরুত্ব বোঝার চেষ্টা ক‌রি সু‌বোধ বাল‌কের মত।
“‌মোবাই‌লের দাম ছয় হাজার, ফেসবুক খোলার খরচ তিনশ,‌ ডাক্তা‌রের ফিস আর চশমা বদলা‌নো বাবদ আড়াই হাজার, বউ‌য়ের বিমাতা সুলভ আচরন সব কিছু মি‌লে আমার জীবন‌তো ছ্যাড়াব্যাড়া ক‌রে দি‌লি তুই।”
‌সি‌লি প‌য়ে‌ন্টে দাঁড়া‌নো ফিল্ডা‌রের কা‌নের পাশ দি‌য়ে সাই ক‌রে বে‌রি‌য়ে বাউন্ডা‌রি রো‌পে হুম‌ড়ি খাওয়া বলটার দি‌কে বোকার মত তা‌কি‌য়ে থাকা অবস্হা তখন আমার।
খর‌চের যথাযথ হিসাবটা ক‌রে ফে‌লি তৎক্ষনাৎ। কিন্তু বউ‌য়ের “‌বিমাতা” সুলভ আচরনের ব্যাপারটা মাথায় ঢো‌কেনা। ক্যাবলাকান্তর মত আ‌রেকবার জিজ্ঞাসু দৃ‌ষ্টি মে‌লি ওর দি‌কে,
“‌ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খুল‌তে বল‌ছি‌লি না আমা‌কে?”
“হ্যা, তো!”
“আ‌রে ব্যাটা ঝা‌মেলা‌তো তখন থিকাই শুরু”
উই‌কে‌টের পেছ‌নে দাঁড়া‌নো মুশ‌ফিকুর র‌হি‌মের মত খপ ক‌রে ধ‌রে ফে‌লি ও‌কে,
“আ‌বে নাটক ক‌রিসনা, কি হ‌ই‌ছে বিস্তা‌রিত বল।”

সূ‌র্যের তাপ কম‌তে শুরু ক‌রে। গলাটা‌কে সপ্তম থে‌কে যথাসম্ভব না‌মি‌য়ে এবার আতাউর( জৈব) সার বিস্তা‌রিত বলা শুরু ক‌রে-
‘দোস্ত সবার সা‌থে নিয়‌মিত যোগা‌যোগ রাখা যা‌বে এইটা চিন্তা ক‌রে তোর কথা মত একটা ফেসবুক আই‌ডি খুলার সিদ্ধান্ত নিলাম। একটা মোবাই‌লো কিনলাম। পাড়ার জু‌নিয়ার একটা ছে‌লে‌কে তিন‌দিন মোগলাই, প‌রোটা-শিককাবাব, চা খাওয়ায় ফ্রেন্ড রি‌কো‌য়েষ্ট পাঠা‌নো শিখলাম। তারপর দোস্ত নেশা ধইরা গ্যা‌লো। এগা‌রোটায় ফোন হা‌তে নি‌লে ভোর পাঁচটা বা‌জে কোন‌দিক দিয়া টের পাইনা। ছয়টায় একটা ব্যাচ পড়াই, নয়টায় ক‌লেজ, আমার‌তো দোস্ত ঘুম কা‌টেনা! বউ প্রথম প্রথম হাত দিয়া ধাক্কাই‌তো এখন পা দিয়া ঠ্যা‌লে। ছাত্র ছা‌ত্রীরা হাসাহা‌সি ক‌রে, ইজ্জত‌তো আমার গা‌ছে উঠ‌ছে‌রে ভাই। বাঁচা আমা‌কে!”

‌কিছু না ব‌লে উ‌ঠে (পা‌লি‌য়ে)এ‌সে‌ছি আ‌মি। ঝাঁ‌কের বান্দরগুলা, “ক‌ষ্টে ক‌ষ্টে নষ্ট হ‌চ্ছি”- আতাউ‌র স্যা‌রের হাত থে‌কে এবার তোরা আমা‌কে বাঁচা।

Spread the love