শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি : সেতুমন্ত্রী

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী  ওবায়দুল কাদের বলেছেন, অত্যন্ত সতর্ক ও সংযমী হয়ে আমরা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছি। আমাদের সেনাবাহিনী, বর্ডার গার্ড, র‌্যাব ও আইনশৃঙ্খলা প্রয়োগকারী সংস্থা সবাই প্রস্তুত আছে।

মঙ্গলবার বেলা পৌনে ১১টায় গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার কালনায় মধুমতি সেতু পরিদর্শনকালে সম্প্রতি সীমান্তে উত্তেজনা ও আঞ্চলিক অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির চেষ্টায় মিয়ানমারের কার্যকলাপ সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে সেতুমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সারাবিশ্বে মুদ্রাস্ফীতি, জ্বালানি সংকট ও জীবনযাত্রার মান বেড়েছে। এর প্রভাব আমাদের ওপরও পড়েছে। আমাদের জ্বালানি তেলের দাম বাড়াতে হয়েছে। তাই এখন যুদ্ধ করার সময় নয়। আমরা শান্তির পক্ষে। মিয়ানমারও শান্তির পক্ষে আসবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার কালনায় মধুমতি নদীর ওপর দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের বহু প্রতীক্ষিত ৯৫৯ কোটি ৮৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ৬৯০ মিটার দীর্ঘ সেতু নির্মিত হয়েছে। সেতুটি নির্মাণের মধ্যদিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কথা দিয়ে কথা রেখেছেন।

তিনি আরও বলেন, সেতুর কাজ জুলাই মাসে শেষ হওয়ার কথা ছিল। যথাসময়ই শেষ হয়েছে। কালনা সেতু যত ছোট হোক না কেন এর উল্লেখযোগ্য দিক রয়েছে। এটা হলো পদ্মা সেতুর মিসিং লিংক। কাজেই পদ্মা সেতুর সব সুফল দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের কাছে পৌঁছাতে হলে এ সেতু নির্মাণের কোনো বিকল্প ছিল না। একইসঙ্গে নড়াইলবাসীর জন্য সেতুটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। নড়াইল থেকে যশোর, বেনাপোল, মাগুরা, ঝিনাইদহ, সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাটের যোগাযোগ সহজ হবে। ফলে গোটা অঞ্চল উপকৃত হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ইতোমধ্যে পদ্মা সেতু নির্মিত হয়েছে। এখনো বড় অঞ্চলটি আমরা কানেক্ট করতে পারিনি। এ সেতুটির  উদ্বোধনের বিষয়ে মন্ত্রণালয় থেকে প্রধানমন্ত্রীকে একটি সামারি পাঠানো হয়েছে। আমি নিজেও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি সেতুটির নামকরণ করেছেন ‘মধুমতি সেতু’। যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরে তিনি উদ্বোধনের তারিখ ঘোষণা করবেন। তবে অক্টোবর মাসেই তিনি সেতুটি উদ্বোধন করবেন বলে ধারণা করা যাচ্ছে। আমাদের লক্ষ্যই-প্রধানমন্ত্রীর লক্ষ্য। এ সরকারের আমলে এত বেশি সড়ক সংযোগ হয়েছে, যার নজির অন্য কোথাও নেই। সমতল থেকে পাহাড় পর্যন্ত সড়কের উন্নয়ন হয়েছে।

নড়াইল-২ আসনের সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মতুর্জা, নড়াইল, লোহাগড়া ও কাশিয়ানী উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠন এবং যোগাযোগ ও সেতু বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email