মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ২০২৪ ১০ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আমরা যেখানে দেশকে এগিয়ে নিচ্ছি, সেখানে অন্যজন ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছে

একুশে পদক পাওয়া ব্যক্তিদের ধন্যবাদ জানান এবং তাদের সফলতা ও দীর্ঘায়ু কামনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘অনেকে দেশের পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে দুই দলের নেত্রীকে এক করে ফেলেন। এটা কেমন অবিচার? আমরা যেখানে দেশকে এগিয়ে নিচ্ছি, সেখানে অন্যজন ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছে। অথচ আপনারা দোষারোপের সময় দুইজনকেই এক করে ফেলেন, এ কেমন কথা!’

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর ওসমানি স্মৃতি মিলনায়তনে একুশে পদক-২০১৫ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা
জামায়াত-বিএনপির সন্ত্রাস থেকে জাতিকে মুক্তি দিতে এবং বিশ্বে একটি ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে গড়ে তুলতে আমি দেশের সকল সচেতন জনগণের সহায়তা চাই।

বিএনপির চলমান হরতাল অবরোধের প্রতি ইঙ্গিত দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১ জানুয়ারি আমরা ৪ কোটি ৪৪ লাখ ২৩ হাজার ছাত্রছাত্রীর হাতে বই তুলে দিয়েছি। কিন্তু ৬ জানুয়ারি থেকে অবরোধ-হরতাল চলছে। প্রতিটি কর্মদিবসে হরতাল দেয়া হচ্ছে। আমাদের ছেলে-মেয়েরা স্কুলে যেতে পারছে না। তারাই আমাদের ভবিষ্যৎ। অথচ তাদের পড়ালেখায় বাধা দেয়া হচ্ছে।’ বই পাওয়া এসব শিক্ষার্থীদের অপরাধ কী তা জানতে চান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘দরিদ্র বাবা-মায়েরা তাদের সন্তানদের স্কুলে পাঠাতে পারেন না। তাই আমরা তাদের বৃত্তি দিয়ে স্কুলে পাঠাচ্ছি। ৭৮ লাখ ৫০ হাজার ছাত্রছাত্রীকে বিশেষ বৃত্তি দেয়া হচ্ছে।’

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে শিক্ষা, সংস্কৃতি, অর্থনীতি, প্রযুক্তি, খাদ্য, স্বাস্থ্য, চিকিৎসা, বিদ্যুৎ, খেলাধুলা ও মানুষের জীবন-যাত্রার মানোন্নয়নে তার সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, ‘যখন দেশের মানুষ সুন্দর ও সাচ্ছন্দ্যপূর্ণ জীবনের স্বপ্ন দেখা শুরু করেছে তখন সে স্বপ্নকে পুড়িয়ে দেয়া এ কেমন আন্দোলন?’

গোপন জায়গা থেকে আন্দোলনের ঘোষণা দিয়ে মানুষ হত্যা করার দুর্বৃত্তায়ন থেকে দেশকে রক্ষা করতে সবার সহযোগিতা চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

PM-02একুশে পদকপ্রাপ্তরা হলেন— ভাষা আন্দোলনের জন্য (মরণোত্তর) পিয়ারু সরদার, স্বাধীনতা যুদ্ধে অধ্যাপক এম মুজিবুর রহমান দেবদাস, ভাষা ও সাহিত্যে অধ্যাপক দ্বিজেন শর্মা, ভাষা ও সাহিত্যে মুহম্মদ নুরুল হুদা, শিল্প ও সংস্কৃতি (মরণোত্তর) আবদুর রহমান বয়াতি, শিল্প ও সংস্কৃতিতে এটিএম শামসুজ্জামান, শিক্ষায় অধ্যাপক এম এ মান্নান, শিক্ষায় অধ্যাপক সনৎ কুমার সাহা, গবেষণায় আবুল কালাম মোহাম্মদ জাকারিয়া, সাংবাদিকতায় কামাল লোহানি, গণমাধ্যমে ফরিদুর রেজা সাগর, সমাজ সেবায় ঝর্ণাধারা চৌধুরী, সমাজ সেবায় শ্রীমাত সত্যপ্রিয় মহাথেরো, সমাজ সেবায় অধ্যাপক ডা. অরূপ রতন চৌধুরী। প্রত্যেক পদক প্রাপ্তকে এক লাখ টাকার একটি চেক এবং একটি ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট দেওয়া হয়।
Spread the love