বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আর হানাহানি নয়, আসুন বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাই:প্রধানমন্ত্রী

PM PICআর হানাহানি নয়, আসুন বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাই। দেশের মানুষ জঙ্গিবাদ চায় না। আমরা বাংলাদেশকে সেভাবে গড়তে চাই যেখানে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, হানাহানি থাকবে না। বাংলাদেশ হবে দক্ষিণ এশিয়া ও বিশ্বের একটি উন্নত দেশ। ইতিমধ্যে সরকার সুষ্ঠু কর্ম পরিবেশ সৃষ্টি করতে পেরেছে বলেই আজকে দেশ শান্তির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আজ মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে স্বাধীনতা পুরস্কার-২০১৪ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন পরবর্তী দেশের অবস্থা তুলে ধরে বলেন, সবচেয়ে বড় কথা একটা সুষ্ঠু পরিবেশ সৃষ্টি করা, যে যার কর্মস্থলে তার নিজের কাজ করবে। সেটা সামরিক বা বেসামরিক হোক, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থা বা ব্যবসায়ী হোক, প্রত্যেকে তার কর্মক্সেত্রে একটা সুষ্ঠু পরিবেশ চায়। আমরা কর্মক্ষেত্রে একটি সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করতে সক্ষম হয়েছি। যাকে বলে জব সেটিসফেকশন।
প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনকালীন সময়ে বিভিন্ন সংস্থার অবদানের প্রশংসা করে বলেন, একটি বিষয় আমি সত্যিই প্রশংসা করি, আমাদের প্রশাসন, সশস্ত্র বাহিনী, পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচন এই নির্বাচন যাতে অনুষ্ঠিত হতে পারে, মানুষের জানমাল যাতে রক্ষা পায়, দেশের শাসনকার্য যাতে সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হতে পারে সেভাবেই তারা দৃঢ় পদক্ষেপ নিয়েছে। মনে হচ্ছে যেন আমরা যেভাবে মুক্তিযুদ্ধ করেছি ঠিক সেভাবে সমগ্র জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড যারা করেছে তাদের প্রতিহত করেছে।
দশম সংসদ নির্বাচন প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, নির্বাচনের মাধ্যমে দেশে শান্তি ফিরে এসেছে। আবার আমরা অর্থনৈতিক অগ্রগতির পথে পা রাখতে সক্ষম হয়েছি। এবারই প্রথম বাঙলাদেশে একটি সরকারের ধারাবাহিকতা রক্ষা হয়েছে। আর সেই সরকার সেই দলের নেতৃত্বে আসে যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম করেছে, যাদের নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছে। যারা সৃষ্টি করে, যারা ত্যাগ স্বীকার করে তারাই জানে কিভাবে তাদের সৃষ্ট কর্মকে রক্ষা করতে হয়।
প্রধানমন্ত্রী অবৈধ ক্ষমতা দখলকারী ও স্বাধীনতা বিরোধীদের ইঙ্গিত করে বলেন, যারা হঠাৎ উড়ে এসে জুড়ে বসে ক্ষমতা দখল করে, তারা শুধু ব্যস্ত থাকে কিভাবে ভোগদখল করা যায়। তারা শুধু নিজেদের জন্য ভোগ করতে পারে। যারা খল করে ক্ষমতায় এসেছিল ভোগ করার দিকে তাদের যতোটা নজর ছিলো উন্নয়নের দিকে ততোটা নজর ছিল না। অথচ পৃথিবীর যে কোনো দেশে যারা দেশের জন্য ত্যাগ শিকার করেছে তাদের হাতে রাষ্ট্রক্ষমতা আসলে দেশ উন্নত হয়েছে।
স্বাধীনতা পদক বিতরণ অনুষ্ঠানের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ স্বাধীনতা যুদ্ধের সকল শহীদ, জাতীয় চার নেতা, স্বাধীনতা যুদ্ধে নির্যাতিত নারী, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের গভীর শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধুর বলিষ্ঠ নেতৃত্ব ছিল বলেই যুদ্ধবিধবস্ত বাংলাদেশ অতি অল্পসময়েই ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করে। মাত্র সাড়ে ৩ বছরের মধ্যে বিধ্বস্ত অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ায়। ভারতীয় মিত্রবাহিনীর সৈন্যরা ফিরে যান। সারা বিশ্বে এ ধরনের ঘটনা বিরল দৃষ্টান্ত। বঙ্গবন্ধু যখন দেশকে অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য পদক্ষেপ নেন তখনই অমানিশার অন্ধকার নেমে আসে। ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়।
প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন সময় আওয়ামী লীগ সরকারের অবদানের কথা তুলে ধরে বলেন, যে জাতি যুদ্ধ করে নিজেদের স্বাধীনতা অর্জন করেছে তারা কেন পারবে না নিজেদের অর্থনৈতিকভাবে মুক্ত করতে। তারা কেন পারবে না বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে। এর জন্য প্রয়োজন আত্মবিশ্বাস, অনুপ্রেরণা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, দক্ষভাবে দেশ পরিচালনা করা।
প্রধানমন্ত্রী সবাইকে লাখো কণ্ঠে জাতীয় সঙ্গীত কর্মসূচিতে অংশ নেয়অর আহ্বান জানিয়ে বলেন, আগামীকাল ২৬ মার্চ প্যারেড স্কয়ারে লাখো কণ্ঠে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া হবে। সকলকে আমন্ত্রণ জানাই। যারা দূরে আছেন তারা নিজ নিজ জায়গা থেকে একাত্ম হবেন। আমরা এদেশটা সুন্দরভাবে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email