বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আসামে জঙ্গি হামলায় নিহতের সংখ্যা ৬৪

ভারতের আসাম রাজ্যের ২টি জেলায় আলাদা আলাদা জঙ্গি হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৪ জন। নিহতদের মধ্যে ১০ নারী ও ১৩ শিশু রয়েছে।

এ কে-৪৭ রাইফেলের মতো অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্রের পাশাপাশি ধারালো অস্ত্র নিয়েও হত্যালীলা চালিয়েছে জঙ্গিরা। আহতের সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়েছে।

সোমবার পুলিশের গুলিতে চিরং জেলায় দুজন এনডিএফবি(এস) জঙ্গির মৃত্যু হয়। তার পরই সংবিজিত বসুমাতারির নেতৃত্বাধীন ওই সংগঠন হুমকি দেয়, ওই ঘটনার বদলা নিতে মঙ্গলবার রাত ৯টার পর থেকে গণহত্যা শুরু করবে তারা। সেই হুমকিকেই এ দিন ঘড়ির কাঁটা মিলিয়ে অক্ষরে অক্ষরে সত্যি করে ছাড়ল জঙ্গিরা।
আসাম পুলিশের প্রধান খগেন শর্মা জানিয়েছেন, সবচেয়ে বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন সনিতপুর জেলার সিমাংপাড়া গ্রামে। শুধু ওই গ্রামেই নিহত হয়েছে অন্তত ২১ জন। তিনি বলেন, গত সোমবার এক নিরাপত্তা অভিযানে এনডিএফবির দুই শীর্ষ নেতা নিহত হন। ওই অভিযানের প্রতিশোধ হিসেবেই সংগঠনটি হামলা চালিয়ে থাকতে পারে।
ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট অফ বোড়োল্যান্ড বা এনডিএফবি দাবি করেছে, তারা আদিবাসী বোড়ো জনগোষ্ঠীর অধিকারের জন্য লড়াই করছে। এর আগে তারা আসামের মুসলিম জনগোষ্ঠী ও অন্যান্য জাতিগোষ্ঠীর ওপরও হামলা চালিয়েছিল। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এ হামলাকে কাপুরুষোচিত অভিহিত করে এর নিন্দা জানিয়েছেন। হামলার পর রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে পুরো আসাম প্রদেশে।
এ ঘটনায় রাজ্যজুড়ে সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। একই সঙ্গে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে ভুটানের সঙ্গে স্থলসীমান্ত। তবে এসব হামলার পরও বিচ্ছিন্নতাবাদী অভিযান বন্ধ করা হবে না বলে জানিয়েছেন রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ। আসাম পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিচালক পল্লব ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, তাদের ধারণা বিচ্ছিন্নতাবাদী ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট অব বড়োল্যান্ড-এনডিএফবি-সংবিজিত গোষ্ঠীর সদস্যরা এ হামলা চালিয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, সম্প্রতি সেনা অভিযানে এনডিএফবির কয়েকজন সদস্য মারা যাওয়ার প্রতিশোধে চালানো হয়েছে এসব হামলা।

উল্লেখ্য সাম্প্রতিক সময়ে বোডো গেরিলারা আদিবাসী ও মুসলিমদের ওপর ভয়াবহ ধরণের হামলা চালিয়ে আসছে। চলতি বছরের প্রথম দিকে সীমান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট সহিংসতায় প্রায় ১০ হাজার লোক তাদের বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়েছে। প্রাণ হারিয়েছে ৪৫ জনেরও বেশি। এছাড়া আসামের একই এলাকায় ২০১২ সালের জাতিগত দাঙ্গায় প্রায় একশ লোকের প্রাণহানি এবং চার লাখেরও বেশি লোক বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

Spread the love