রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইউক্রেন ইস্যুতে আবারও উত্তেজনা

ইউক্রেন ইস্যু নিয়ে আবারও রাশিয়া ও পশ্চিমাদের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হচ্ছে। মস্কোর ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা যায় কি না তা ভেবে দেখার ঘোষণা দিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, ইউক্রেনের বিদ্রোহী অধ্যুষিত অঞ্চলে আবারও রাশিয়ার হস্তক্ষেপ বেড়েছে। ন্যাটোর মহাসচিবও ইউক্রেনে হস্তক্ষেপ বন্ধ করতে রাশিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

সর্বশেষ খবরে মঙ্গলবার বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় রাশিয়াপন্থী বিদ্রোহীদের হামলায় অন্তত নয় ইউক্রেনীয় সেনা নিহত হয়েছেন। এর আগের দিন সোমবার কিয়েভ (ইউক্রেনের রাজধানী) দাবি করে, গত ২৪ ঘণ্টায় তাদের সাত সেনা নিহত হয়েছেন। এর কয়েকদিন আগে ইউক্রেনের গুরুত্বপূর্ণ বন্দর মারিওপুলে হামলা চালায় বিদ্রোহীরা। এতে অন্তত ৩০ বেসামরিক লোক নিহত হয়।

ইউক্রেনের সামরিকবাহিনীর মুখপাত্র ভ্লাদিস্লাভ স্লেজনভ বলেছেন, ‘গত ২৪ ঘণ্টায় তাদের ৯ সেনা নিহত ও ২৯ জন আহত হয়েছেন।’ তিনি জানান, বিদ্রোহী অধ্যুষিত দোনেৎস্ক রাজ্যের উত্তরে দেবাল্টসেভ শহরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। কৌশলগত দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ এ শহরটিতে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে দুই পক্ষের মধ্যে যুদ্ধবিরতি চুক্তি স্বাক্ষরের পর উভয়পক্ষের সংঘর্ষ সীমিত পর্যায়ে অব্যাহত থাকলেও সর্বশেষ এ সব ঘটনাকে সবচেয়ে ভয়াবহ বলে অভিহিত করা হচ্ছে। মঙ্গলবার জাতিসংঘ বলেছে, গত বছরের এপ্রিল মাসে শুরু হওয়া সংঘর্ষে এ পর্যন্ত ৫ হাজার ১৮৭ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ১১ হাজার ৫১৫ জন। এ ছাড়া ১০ লাখের বেশী লোক উদ্বাস্তু হয়েছেন।

এ সব ঘটনার প্রেক্ষিতে ইউক্রেনের পার্লামেন্ট একটি জরুরী অধিবেশনে বসতে যাচ্ছে। যেখানে রাশিয়াকে ‘আক্রমণকারী রাষ্ট্র’ হিসেবে অভিহিত করে তার ওপর ভোটাভোটি হতে পারে। এ ছাড়া বিশেষ এই অধিবেশনে আর কি সিদ্ধান্ত হবে তা প্রকাশ করা হয়নি।

এর আগে গত সপ্তাহে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য লুহানস্ক ও দোনেৎস্কের রাশিয়াপন্থী বিদ্রোহীরা বেলারুশের রাজধানী মিনস্কে অনুষ্ঠিত অস্ত্রবিরতি চুক্তি ভঙের ঘোষণা দেয়। বিদ্রোহীরা জানায়, তারা উল্লিখিত দুটি রাজ্য থেকে ইউক্রেন সেনাদের হটাতে চায়। ইউক্রেন সেনাদের হটানোই তাদের মূল উদ্দেশ্য বলে জানায় তারা।

এদিকে, জাতিসংঘে মার্কিন দূত সামান্থা পাওয়ার সোমবার বলেছেন, কিয়েভ নিয়ন্ত্রিত মারিওপুল বন্দরে ভয়াবহ হামলার ঘটনা প্রমাণ করে ইউক্রেনে মস্কোর হস্তক্ষেপ বেড়েছে।

অন্যদিকে, রাশিয়ার ওপর অধিকতর কী নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা যায় তা ভেবে দেখতে সদস্য দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ইইউ নেতারা। আগামী বৃহস্পতিবার তারা বিষয়টি নিয়ে একটি জরুরী বৈঠকে বসার ঘোষণা দিয়েছেন। এক বিবৃতিতে এ আহ্বান জানানোর পাশাপাশি রাশিয়াকে মিনস্ক চুক্তি মেনে চলার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি ইইউ’র একটি সম্মেলনও রয়েছে।

ইউক্রেন নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে সর্বশেষ হামলার ব্যাপারে ন্যাটোর মহাসচিব জেন্স স্টোলেনবার্গ রাশিয়াপন্থী বিদ্রোহীদের সহযোগিতা না করতে মস্কোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। গত বছর গৃহযুদ্ধ শুরুর পর থেকেই কিয়েভ, ন্যাটো, যুক্তরাষ্ট্র ও ইইউ অভিযোগ করছে, রাশিয়া ইউক্রেন বিদ্রোহীদের অর্থ, অস্ত্র ও সৈন্য দিয়ে সরাসরি সহযোগিতা করছে। কিন্তু মস্কো বরাবরই সে অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। সূত্র : রয়টার্স/বিবিসি।

Spread the love