রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইটিভির চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম জেলহাজতে

পর্নোগ্রাফি আইনে দায়ের করা মামলায় ইটিভির চেয়ারম্যান আব্দুস সালামকে বিকেল সাড়ে ৩টায় তাকে আদালতে তোলা হয়। তাকে সাত দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ক্যান্টনমেন্ট থানার উপপরিদর্শক (এসআই) বেনজির আহমেদ।  জব্দকৃত আলামতের সিডি ছাড়া জামিন বা রিমান্ড শুনানি করা হবে না। তাই রিমান্ড ও জামিন শুনানির জন্য ৮ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত।

 

মঙ্গলবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মেহের নিগার সূচনা এ আদেশ দেন।

 

শুনানি শেষে পুলিশ ইটিভির চেয়ারম্যান আব্দুস সালামকে জেলহাজতে প্রেরণ করে।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, মামলার আসামি জহিরুল হক প্রতারণামূলকভাবে মামলার বাদী কানিজ ফাতেমার অজ্ঞাতে তার স্থিরচিত্র, ভিডিওচিত্র গোপন ক্যামেরায় ধারণ করে অন্য মহিলার অশ্লীল ছবির মুখমণ্ডলে সংযুক্ত করে তা ইন্টারনেট, মোবাইল ফোন, ফেসবুকে, ইলেকট্রনিক ডিভাইসের মাধ্যমে ২০১৪ সালের ৪ অক্টোবর মামলার অপর আসামির কাছে সরবরাহ করে। ২০১৪ সালের ৬ নভেম্বর রাত ৯টা ৩০ মিনিটে ইটিভির ‘একুশের চোখ’ নামক অনুষ্ঠানে তা প্রচার করে। একুশে টেলিভিশনে নোংরা ও অশ্লীল ছবি আসামিরা সম্প্রচার করায় ২০১৪ সালের ১৭ নভেম্বর কানিজ ফাতেমা ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ওয়ায়েজ কুরুনী খান চৌধুরীর আদালতে পর্নোগ্রফি আইনে মামলাটি দায়ের করেন।

 

আদালত মামলাটি এজাহার হিসেবে নেওয়ার জন্য ক্যান্টনমেন্ট থানাকে নির্দেশ দেন। ক্যান্টনমেন্ট থানা ২০১৪ সালের ২৭ নভেম্বর মামলাটি এজাহার হিসেবে নেয়।

 

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- জহিরুল হক ইমরান, ইটিভির সিনিয়র রিপোর্টার মো. ইলিয়াস, শাহাজালাল ও মো. জাকির হোসেন।

 

মঙ্গলবার ভোরে ইটিভির কার্যালয়ের সামনে থেকে আব্দুস সালামকে গ্রেফতার করে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ।

 

Spread the love