শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঈদের উৎসবে সারাদেশ।

Eid-01ঈদের উৎসবে মেতেছে দেশ। পবিত্র মাহে রমজানে দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর সারাদেশের মুসলমান আজ মঙ্গলবার পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করছে। সকাল হওয়ার সাথে সাথে রঙবেরঙের পাঞ্জাবি পরে শিশু, কিশোর, যুবক, বৃদ্ধ ঈদ জামাতে উপস্থিত হতে শুরু করে। নামাজ শেষে করে কোলাকুলি। বয়সের ব্যবধান, ধনী গরিব সবাই কাধেঁ কাঁধ মিলেয়ে ঈদগাঁয়ে নামাজ আদায় করে। সরকারি ও বেসরকারি ভাবে আগেই ঈদ উদযাপনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। রাজধানীর ঈদগাহ ময়দানে প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হয়। গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় শাওয়াল মাসের চাঁদ যায়। ফলে আজ বাংলার ঘরে ঘরে বলে চলেছে আনন্দের বন্যা। এদিকে দেশের সবচেয়ে বড় জামাত শোলাকিয়ায় অনুষ্ঠিত হয়। জেলা পর্যায় ছাড়াও দেশের সর্বত্র ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যে ঈদের জামাত এবং স্বতস্ফূর্ত ঈদ পালন করছে মুসলিমরা।
পবিত্র রমজান শেষে সোমবার ঈদের চাঁদ দেখা যাওয়ায় আজ পহেলা শাওয়াল যথাযথ ধর্মীয় ভাবগম্ভীর পরিবেশে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে সারাদেশে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপন করার কথা ঘোষণা করেন জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান। জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের কার্যালয়ে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠকে সভাপত্বি করেন ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রী। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, ধর্মসচিব চৌধুরী মো: বাবুল হাসান, প্রধান তথ্য কর্মকর্তা মো: তছির আহামদ, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক শামীম মোহাম্মদ এবং জাতীয় মসজিদের খতিব মো: সালাউদ্দিন, আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক মো: শাহ আলম প্রমুখ।
সোমবার সন্ধ্যায় চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠক শেষে মন্ত্রী শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখার খবর সাংবাদিকদের জানানোর পর বিশেষ মুনাজাত করা হয়। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি এডভোকেট আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশবাসীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে আলাদা আলাদা বাণী দিয়েছেন। এছাড়া বিরোধী দলের নেতা বেগম রওশন এরশাদ, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদও দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।
অপরদিকে সোমবার থেকে সরকারি ছুটি শুরু হয়েছে। ঈদের দিন সরকারি, আধা সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হবে। রাজধানীতে বনানীর ঢাকা গেট থেকে বঙ্গভবন পর্যন্ত প্রধান সড়ক এবং সড়ক দ্বীপ জাতীয় পতাকা এবং বাংলা ও আরবিতে ঈদ মোবারক লেখা ব্যানার ও ফেস্টুন দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে। এছাড়া দেশের সকল মহানগর, জেলা ও উপজেলা শহরের প্রধান সড়ক এবং সড়ক দ্বীপ ও জাতীয় পতাকা এবং ব্যানার ও ফেস্টুনে সজ্জিত করা হয়েছে। ঈদের দিন সন্ধ্যায় দেশের গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ভবনে আলোকসজ্জা করা হচ্ছে।
বাংলাদেশ বেতার, বাংলাদেশ টেলিভিশন এবং বেসরকারি স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেলগুলো ঈদ উপলক্ষে বিশেষ অনুষ্ঠান সম্প্রচার করছে। বিভিন্ন পত্র পত্রিকা ও এ উপলক্ষে বিশেষ সংখ্যা প্রকাশ করেছে। এদিন দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল, কারাগার, সরকারি শিশু সদন, ছোটমনি নিবাস, সামাজিক প্রতিবন্ধী কেন্দ্র, আশ্রয়কেন্দ্র, ভবঘুরে কল্যাণ কেন্দ্র ও দুস্থ কল্যাণ কেন্দ্রে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।
ঈদের দিন ঢাকা মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে বিনোদনমূলক চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে। সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের বিনা টিকেটে উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সব শিশুপার্কে প্রবেশ, বিনোদন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা থাকবে। বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা প্রশাসন এবং স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহ জাতীয় ও স্থানীয় কর্মসূচির মধ্যদিয়ে ঈদ উদযাপন করছে। বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসসমূহেও যথাযথ মর্যাদায় ঈদুল ফিতর উদযাপিত হয়। অপরদিকে ঈদে মুসল্লীদের নিরাপত্তা ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় সারাদেশে বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email