শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঈদের পর ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ঘোষণা খালেদার

Bnp Kআসন্ন ঈদুল ফিতরের পর থেকে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ঘোষণা দিলেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। সোমবার রজধানীর মতিঝিলে হোটেল পূর্বানীতে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) এক ইফতার অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি আবারও এ ঘোষণা দিলেন। সরকারের বিরুদ্ধে ঈদের পর জোরালো আন্দোলনের নামতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, দেশে এখন কোনো বৈধ সরকার নেই। জোর করে অবৈধ সরকার ক্ষমতায় বসে আছে। ঈদের পর আমরা সবাই মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে সরকারের অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলব। আল্লাহ আমাদের সঙ্গে আছেন, জনগণ আমাদের সাথে আছে, বিজয় আমাদের সুনিশ্চিত।
ইফতারের আগে বিভিন্ন টেবিলে গিয়ে শরিক দলের নেতাদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন খালেদা জিয়া। অনুষ্ঠানে তার সঙ্গে একই টেবিলে জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান ছাড়াও ছিলেন বিএনপির মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাগপার খোন্দকার লুৎফর রহমান, জামায়াতে ইসলামীর আমিনুল ইসলাম, ইসলামী ঐক্যজোটের আবদুল লতিফ নেজামী, খেলাফত মজলিশের মুহাম্মদ ইসহাক, জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) মোস্তফা জামাল হায়দার এবং কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম।
অনুষ্ঠানে জোট নেতাদের মধ্যে এনপিপির শেখ শওকত হোসেন নিলু, ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, এলডিপির  রেদোয়ান আহমেদ, শাহাদত হোসেন সেলিম, লেবার পার্টির মুস্তাফিজুর রহমান ইরান, হামদুল্লাহ আল মেহেদি, এনডিপির খন্দকার গোলাম মূর্তজা, ন্যাপের জেবেল রহমান গানি,গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া, পিপলস লীগের গরীবে নেওয়াজ, সৈয়দ মাহবুব হোসেন, মুসলিম লীগের এএইচএম কামরুজ্জামান, ইসলামিক পার্টির আবদুল মোবিন, ন্যাপ ভাসানীর আজহারুল ইসলাম, জমিয়তের উলামা ইসলামের রেজাউল করীম, সাম্যবাদী দলের সাঈদ আহমেদ, জামায়াতের রিদওয়ান উল্লাহ শাহিদী, কল্যাণ পার্টির এম এম আমিনুর রহমান, ডেমোক্রেটিক লীগের সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, জাগপার আসাদুর রহমান খান, তাসমিয়া প্রধান, শেখ জামাল উদ্দিন ইফতার অনুষ্ঠানে ছিলেন।
ইফতার পার্টিতেত বিএনপি জাময়াত পন্থী বুদ্ধিজীবী ও অন্যান্যের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমেদ, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের পিয়াস করীম, ইনকিলাবের সম্পাদক এএমএম বাহাউদ্দিন, নয়া দিগন্তের সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমেদ, রাজশাহী মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, গাজীপুরের মেয়র এমএ মান্নান। অন্যান্যের মধ্যে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছেলে পিরোজপুরের জিয়ানগর উপজেলার চেয়ারম্যান শামীম সাঈদী, সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর স্ত্রী ফরহাত কাদের চৌধুরী, ছোট ছেলে হুম্মাম কাদের চৌধুরীও ইফতার অনুষ্ঠানে যোগ দেন।
খালেদা জিয়া বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে সরকারি জোট ভোট পেয়েছে ৫ ভাগ। বাকি ৯৫ ভাগ জনগণ ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে আছে। সরকারের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অপশাসনের অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, মানুষের কল্যাণ ও দেশের উন্নয়নের দিকে তাদের কোনো নজর নেই। দ্রব্যমূল্যে জনগণের নাভিঃশ্বাস উঠেছে। তা নিরসনে সরকারের কোনো নজর নেই। রাজধানীর রাস্তা-ঘাটের কী অবস্থা! ঢাকার সড়ক ও হাইওয়ে যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে গেছে। সেদিকে তাদের কোনো নজর নেই।
আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বজায় রাখতেও সরকার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে বলে দাবি করে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, গতকাল রবিবার আমার দেয়া ইফতার অনুষ্ঠান থেকে ফেরার পথে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি সভাপতিকে সরকারের গুণ্ডাবাহিনী, র‌্যাব-পুলিশ-গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন গুম করতে চেষ্টা করেছিল। জনগণের প্রতিরোধের মুখে তিনি রক্ষা পেয়েছেন। নারায়ণগঞ্জের ৭ খুনের আসামিদের জামাই আদরে রাখা হয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, এর সুষ্ঠু বিচার এই সরকার করবে না।
বিএনপি প্রধান বলেন, তাদের যদি সত্যিকারভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করা হত, তাহলে উপর তলার অনেকে ফেঁসে যাবে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রীও সাত খুনের দায় এড়াতে পারবেন না। বাংলাদেশের জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা অনুযায়ী বিএনপির দাবি মেনে নিয়ে গণতান্ত্রিক পরিবেশ তৈরি করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান খালেদা।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email