রবিবার ১৪ অগাস্ট ২০২২ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

উত্তরাঞ্চল থেকে বিলীন হচ্ছে গ্রাম বাংলার লোকজ সামগ্রী

মানিক চিরিবন্দর রানীরবন্দর প্রতিনিধি দিনাজপুর :

চিরিবন্দর উপজেলাসহ গোটা উত্তরাঞ্চল থেকে দিনে দিনে হারিয়ে যেতে বসেছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী লোকজ সামগ্রী। এখন ওই সব সামগ্রী রূপকথার গল্পমাত্র এবং বিলুপ্ত হয়ে স্থান পেয়েছে কাগজে কলমে, বইয়ের পাতায়।এক সময় আমাদের গ্রাম বাংলার ঘরে ও বাইরে কাজ করার জন্য যে জিনিসগুলি খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল ঢেঁকি, জাঁতা তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য। গ্রাম বাংলার কৃষাণ কৃষাণীরা নবান্নের উৎসব পালন করতো ঢেঁকি ও জাতার সাহায্যে।অগ্রহায়ন মাসে মাঠ থেকে রোপা আমন ধান ঘরে তোলার পর ধানকে চাউলে পরিণত করতো ঢেঁকির মাধমে।

যেমন তারা পল্লী কবি জসিমুদ্দিনের সুরে বলতো
’ও বউ ধান ভানেরে ঢেঁকিতে পাড় দিয়া,
ঢেঁকি নাচে বউ নাচে হেলিয়া দুলিয়া
ও বউ ধান ভানেরে ……………… ।”
তখন গ্রামের সকল মানুষের বুঝতে বাকী থাকতো না উমুক বাড়ীতে ধান ভাঙার কাজ শুরু হয়ে গেছে। এ বাড়ীর ধান ভাঙার কাজ শুরু হয়ে গেলে তাদের দেখা দেখি অন্যান্য বাড়ীতে ঘুম থেকে জেগে ধান ভাঙার শুরু করে দিতো। কাকডাকা ভোর থেকে শুরু করে তারা দুপুর পর্যন্ত এ কাজে ব্যস্ত থাকতো। জাতা দ্বারা গুড়ো করা আটা দিয়ে কৃষাণীরা শীত মৌসুমে বিভিন্ন সুস্বাদু পিঠা, পায়েস, তৈরী করতো।বর্তমানে আমরা যা খায় তা ভেজালযুক্ত, নোংরা পরিবেশে তৈরী, অপবিত্র খেয়ে থাকি। গ্রমের মা বোনেরা আগেই মুড়ির ধান থেকে চাউল তৈরী করে রাখতো আসর নমাজ আদায় করে মুড়ি ভাজার কাজটি শুরু করে দিতো।সে মা বোনের হাতে ভাজা মুড়ি কতই না মজা লাগতো। ঘ্রাণে আপন মনে খেতে ইচ্ছা করতো। এখন বাজার থেকে ভেজাল যুক্ত, রাসায়নিক সার যুক্ত মুড়ি, চিড়ার সে স্বাদ লাগে না, খেতে ইচ্ছা হয় না। মুখে দিলে কেমন অরুচি ভাব লাগে। এমন কোন কৃষকের  বাড়ী ছিল না যে বাড়ীতে ঢেঁকি, জাতা ছিল না। বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তির যুগে রূপসী বাংলার ঢেঁকি, জাতা ব্যবহার প্রায় বিলুপ্ত হয়ে পড়েছে। এ গুলোকে সংরক্ষন ও সংগ্রহ করার কোনই ব্যবস্থা নেই। গ্রামীণ ওই সব লোকজ শিল্প গুলোকে সংরক্ষণ করা না হলে এক সময় আর খুঁজে পাওয়া যাবে না।

আগামী প্রজন্ম এ গুলো চিনতে পারবে না। ব্যবহার বুঝতে পারতে না। শুধু ১ বৈশাখে ঘটা বাংলা নর্ববর্ষ পালন করলে, পান্তা ইলিশ খেলে, মুড়ি, উখড়া, পাঞ্জানী, পাইজাম, ধুতি পড়লে কিংবা সে দিন মাটির কলস, মাটির পাতিল, টাপর তোলা গরু-মহিষের গাড়ী বর-বধু সেজে বাংলা নববর্ষ পালন করলে হবে না। প্রতিটি দিন এগুলো সংরক্ষক করতে হবে, ব্যবহার বাড়াতে হবে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email