মঙ্গলবার ৩০ মে ২০২৩ ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

উত্তরের তিন জেলায় দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ ॥ বিপাকে যাত্রী ও ব্যসায়ীরা

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ বৃহত্তর দিনাজপুরের তিন জেলায় (দিনাজপুর, পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও) চার দিন ধরে সকল প্রকার দূর পাল্লার বাসসহ সকল প্রকার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ ও ব্যবসায়ীরা।

কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতাসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধির দাবিতে গত রোববার থেকে তিন জেলার (দিনাজপুর, পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও) মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নেতাদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গাড়ি চলাচল বন্ধ রয়েছে।

এ ব্যাপারে গত (১৪ জুন) মঙ্গলবার ঠাকুরগাঁয়ে তিন জেলার মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন নেতাদের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে বাস মালিকদের পক্ষ থেকে তাদের দাবী-দাওয়া মেনে না নেয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য বাস চলাচল বন্ধ থাকবে বলে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দিনাজপুর জেলা মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মো. সাইফুর রাজ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বী, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক দিলিপ সরকার, ঠাকুরগাঁও জেলা মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি দানেশ আলী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল জব্বার, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহদাৎ হোসেন, পঞ্চগড় জেলা মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. রেনু, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ, পঞ্চগড় বাস, মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আব্বাস আলীসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

এ দিকে পরিবহন শ্রমিকদের ধর্মঘটের কারণে দিনাজপুর, পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও থেকে দুরপাল্লার যাত্রী ও ব্যবসায়ীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন। ব্যবসায়ীরা ঈদ উপলক্ষে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে তাদের মালামাল নিয়ে বিপাকে পড়েছেন।

দিনাজপুরের ব্যবসায়ী ইমান আলী জানান, ঈদের সময় একটু ব্যবসা করবো কিনা তারও শান্তি নেই। এখন ঢাকা যাওয়ার গাড়ি বন্ধ। ঈদের জন্য মাল আনার জন্য ঢাকা যেতে হবে। গাড়ী বন্ধ থাকায় যেতে পারছি না। আমরা মোটর পরিবহন শ্রমিকদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছি।

এ ব্যাপারে ঠাকুরগাঁও মোটর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহদাৎ হোসেন জানান, এটা আমাদের অনেক আগের দাবি। অন্য গাড়ির তুলনায় হানিফ পরিবহনের বেতন অনেক কম। তাই সবার সিদ্ধান্ত  মোতাবেক গাড়ি চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। গত রোববার বিকেলে রাজশাহীতে এ বিষয়ে মিটিং ছিল। কিন্তু ওই মিটিংয়ে কোনো প্রকার সমাধান হয়নি। বেতন বাড়ালে আবার গাড়ি চলাচল শুরু হবে।