শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

উত্তরের ৮ জেলায় আলুর বাম্পার ফলনপরিবহন সংকটে পানির দরে বিক্রি

জাহাঙ্গীর আলম রেজা, ডিমলা, নীলফামারী : নীলফামারী সহ দেশের উত্তরাঞ্চলের রংপুর-দিনাজপুর কৃষি অঞ্চলের আট জেলায় আলুর বাম্পার ফলন হলেও আলু চাষীরা টানা অবরোধ ও বিছিন্ন হরতালের কারনে পরিবহন সংকোটে আলু ব্যবসায়ীরা আলু ক্রয় না করায় নায্যমূল্য পাচ্ছে না আলু চাষীরা।

গত বছর আলু বেশী দরে বিক্রি করায় এবার কৃষকরা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশী জমিতে আলু চাষ করেছেন। রংপুর ও দিনাজপুর অঞ্চলের ৮ জেলায় এবার ১ লক্ষ ৫৯ হাজার ৫৮০ হেক্টরে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হলেও চাষ হয়েছে ১ লাখ ৬৬ হাজার ২২৬ হেক্টরে। সংশি­ষ্ট সূত্রে জানা যায় চলতি রবি মৌসুমে রংপুর কৃষি অঞ্চলের ৫ জেলা যথাক্রমে নীলফামারী, রংপুর, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট এবং গাইবান্ধায় আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৮৮ হাজার ৮৩৬ হেক্টর জমিতে। সেখানে আলু চাষ হয়েছে ৯১ হাজার ৯২১ হেক্টরে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩ হাজার ৮৫ হেক্টর জমিতে বেশী আলু চাষ করা হয়েছে। অপরদিকে দিনাজপুর অঞ্চলের ৩ জেলা যথাক্রমে দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও এবং পঞ্চগড়ে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭০ হাজার ৩০৫ হেক্টরে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩ হাজার ৮৫ হেক্টর জমিতে বেশী আলু চাষ করা হয়েছে। কৃষকরা জানায়, আগাম জাতের আলু বিশেষ করে গ্রানুলা, ডায়মন্ড, কারেজ ও সেভেন জাতের আলু প্রতি হেক্টরে উৎপাদন হয়েছে প্রায় ২১ টন করে। আর লেট ভ্যারাইটি জাতের আলু ক্ষেত থেকে কৃষি বিভাগ আশা করছে এবারে রংপুর-দিনাজপুর কৃষি অঞ্চলের ৮ জেলা থেকে ৩২ লাখ ৪৬ হাজার ৩৯৩ টন আলু উৎপাদিত হবে। যা গত বারের তুলনায় প্রায় দেড় গুন। চলতি মৌসুমে আবহওয়া প্রতিকুল থাকায় আলুর বাম্পার ফলন হলেও আলু চাষীরা আশাব্যঞ্জক মূল্যে আলু বিক্রি করতে পারছেনা। গত বছর ক্ষেত থেকে আলু তোলার সময় আলু ব্যবসায়ীরা ক্ষেতেই প্রতি বস্তা আলু ১৫ শত হতে ২ হাজার টাকা দরে ক্রয় করত বর্তমানে তা ৩ শত হতে ৫ শত টাকা দরে বিক্রি করতে হচ্ছে। কারন হিসেবে দেখা গেছে এবারে ক্ষেত হতে আলু তোলার উপযুক্ত সময় থেকে টানা অবরোধ ও বিছিন্ন হরতাল থাকায় আলু ব্যবসায়ীরা পরিবহন সংকটের কারনে আলু বহন করতে না পারায় আলু ক্রয় করছে না তাই কৃষকরা পানির দরে আলু বিক্রি করছে।

Spread the love