রবিবার ১৪ এপ্রিল ২০২৪ ১লা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

উৎসব মুখর পরিবেশে পালিত হচ্ছে বড়দিন

আজ ২৫ ডিসেম্বর। বিশ্বজুড়ে দিনটি পালিত হচ্ছে বড়দিন বা ক্রিসমাস ডে হিসেবে। দিনটি পালনের মূল উদ্দেশ্য যিশু খ্রিষ্টের জন্মদিন উদযাপন। খ্রিষ্টধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস পৃথিবীতে যিশুর আগমন হয়েছিল মানুষের মুক্তির জন্য। সেজন্যই খ্রিষ্টের জন্ম খ্রিষ্টধর্মাবলম্বীদের কাছে এত তাৎপর্যপূর্ণ।

প্রতি বছরের মতো আজ বৃহস্পতিবার রাত ১২টা ১ মিনিট থেকে রাজধানীর গির্জাগুলোতে পালন করা হচ্ছে এ উৎসব।

এর আগে বুধবার রাতে রাজধানীর বিভিন্ন গির্জায় শুরু হয় বড়দিনের বিশেষ প্রার্থনা। কাকরাইলের সেন্ট ম্যারিস গির্জায় প্রধান ধর্মীয় গুরু আর্চবিশপ প্যাট্রিক ডি রোজারিও প্রার্থনা অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন। সন্ধ্যার পর থেকেই প্রার্থনায় অংশ নিতে যীশু ভক্তরা গির্জায় আসতে শুরু করেন। ভক্তিমূলক গানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় প্রার্থনা।

এদিকে বড়দিন উপলক্ষে গির্জাগুলোকে বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে, যীশুর জন্মস্থানের আদলে স্থাপন করেছে গোশালা। বড়দিনের উৎসব নির্বিঘ্নে পালনে গির্জাগুলো নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা।

বড়দিনের উৎসবকে ঘিরে রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও, দ্য ওয়েস্টিন ঢাকা, ঢাকা রিজেন্সি হোটেল সাজানো হয়েছে রঙিন বাতি, বেলুন, ক্রিসমাস ট্রি আর ফুল দিয়ে। এছাড়া খ্রিস্টানরা নিজ নিজ বাড়িতেও তৈরি করেছেন ক্রিসমাস ট্রি, সাজিয়েছেন নানা সাজে। আজ বড়দিনের উৎসবের পাশাপাশি চলছে রাতের প্রার্থনা। যীশু খ্রিস্টের আগমনের এ দিনকে ঘিরে চলবে রাতের প্রার্থনা।

এদিকে বড়দিন উপলক্ষ্যে খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীসহ দেশবাসীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেত্রী রওশন এরশাদ এবং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

 

রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেছেন, মানবজাতিকে কল্যাণ ও সত্যের পথে পরিচালিত করতে যুগে যুগে যেসব মহামানব পৃথিবীতে এসেছেন তাঁদের মধ্যে যিশু খ্রিষ্ট অন্যতম। তিনি মানুষকে সত্য, ন্যায় ও সম্প্রীতির পথে চলার আহ্বান জানিয়েছেন, সৃষ্টিকর্তার সান্নিধ্য লাভের পথ দেখিয়েছেন। এদেশের খ্রিষ্টধর্মাবলম্বীরা শিক্ষা ও সমাজ উন্নয়নে যে ভূমিকা রাখছে তা প্রশংসনীয়। বাণীতে তিনি সুখী-সমৃদ্ধ এবং অসাম্প্রদায়িক দেশ গঠনে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে অব্যাহত প্রয়াস ও চেষ্টা চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব বড়দিন উপলক্ষে এ সম্প্রদায়ের সব সদস্যকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন। তিনি তার বাণীতে বলেন, শোষণমুক্ত সমাজব্যবস্থা প্রবর্তনের জন্য পৃথিবীতে ন্যায় ও শান্তি প্রতিষ্ঠা করাই ছিল যিশু খ্রিষ্টের অন্যতম ব্রত। যিশু তাঁর জীবনাচরণ ও দৃঢ় চারিত্রিক গুণাবলির জন্য মানব ইতিহাসে অমর হয়ে আছেন। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এখানে রয়েছে সব ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষের নিজস্ব ধর্ম পালনের পূর্ণ স্বাধীনতা। আশা করি, বড়দিন দেশের খ্রিষ্টান ও অন্যান্য সম্প্রদায়ের মধ্যকার বিরাজমান সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতিকে আরও সুদৃঢ় করবে।

Spread the love