শনিবার ২ মার্চ ২০২৪ ১৭ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

একটি যুগোপযোগী, দক্ষ ও শক্তিশালী সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তুলতে চাই-প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের অধীনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শান্তিরক্ষা, গণতন্ত্রে উত্তরণ, সামাজিক উন্নয়ন, স্বাস্থ্য ও শিক্ষা ব্যবস্থাপনাসহ পুনর্গঠন কার্যক্রমে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রাখছেন। তাদের সাফল্যে সারাবিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি আরও উজ্জ্বল হয়েছে।

মঙ্গলবার মিরপুর সামরিক বাহিনী কমান্ড ও স্টাফ কলেজ স্নাতক ডিগ্রি প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

এ সময় তিনি ফোর্সেস গোল ২০৩০ এর আওতায় সশস্ত্র বাহিনীর উন্নয়নে বিভিন্ন পদক্ষেপও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষাসহ জাতিগঠনে সশস্ত্র বাহিনীর ভূমিকারও প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী।

এ অনুষ্ঠানে জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদ, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ, মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া বার্নিকাট, তিন বাহিনীর প্রধানসহ বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, সামরিক ও বেসামরিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর ঐতিহ্যবাহী সামরিক বাহিনী কমান্ড ও স্টাফ কলেজ  থেকে ‘পিএসসি’ ডিগ্রি অর্জন সশস্ত্র বাহিনীর যেকোন অফিসারের জন্যই গৌরবের বিষয়।

তিনি বলেন, আমার বিশ্বাস এ প্রশিক্ষণ আপনাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব দক্ষতার সঙ্গে পালনে এবং যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আরও আত্মপ্রত্যয়ী হতে শেখাবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সম্পদ সীমিত। আর সে সীমিত সম্পদ দিয়েই একটি যুগোপযোগী, দক্ষ ও শক্তিশালী সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তুলতে চাই। এ লক্ষ্য অর্জনে উন্নত প্রশিক্ষণ ও অনুশীলনের ওপর আরও বেশি গুরুত্ব দিতে হবে। সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে তিনি বলেন, আমরা ২০২১ সালে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ হিসেবে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করতে চাই।

এ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী মিরপুর সেনানিবাসে দেশি বিদেশি গ্রাজুয়েট অফিসারদের ডিগ্রি প্রদান করেন। সশস্ত্র বাহিনীর দেশি বিদেশি ২১৪ জন অফিসার এবার কৃতিত্বের সাথে ডিগ্রি সম্পন্ন করলেন। এর মধ্যে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর ১২ জন নারী রয়েছেন।

এছাড়া বিশ্বের ২২টি দেশে ৫২জন সেনা নৌ ও বিমান বাহিনীর কর্মকর্তা প্রধানমন্ত্রীর হাত থেকে সনদপত্র গ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী গ্রাজুয়েটদের অভিনন্দন জানান। সশস্ত্র বাহিনীতে নারীর অংশ গ্রহণ আরো বাড়ানোর প্রতিও গুরুত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠান শেষে প্রধানমন্ত্রী তিন বাহিনীর প্রধান ও সেনা কর্মকর্তা, বিরোধীদলীয় নেতা, বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকদের সাথে কুশল বিনিময় করেন।

Spread the love