বৃহস্পতিবার ৩০ নভেম্বর ২০২৩ ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

একনেকে ৮৩২ কোটি টাকার নতুন বিদ্যুৎ প্রকল্প অনুমোদন

দেশের দক্ষিণ পশ্চিমের ২১টি জেলার ৩ লাখ নতুন গ্রাহককে বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় নিয়ে এসেছে সরকার। এ জন্য এসব জেলার ৪১টি উপজেলায় ১ হাজার ৮৫৮ কিলোমিটার নতুন বিদ্যুৎ লাইন স্থাপন করা হবে। আজ মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ সংক্রান্ত একটি প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সভায় মন্ত্রিপরিষদের মন্ত্রিবর্গ, সরকারের সচিবগণসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন। অনুমোদিত এ প্রকল্পের নাম বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা শক্তিশালীকরণ। ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী (ওজোপাডিকো) ২০১৪ সালের জুলাই থেকে ২০১৮ সালের জুনের মধ্যে এ প্রকল্পটি দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমের ২১টি জেলার ৪১টি উপজেলায় বাস্তবায়ন করবে। জেলাগুলোর মধ্যে রয়েছে- রাজবাড়ী, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, শরীয়তপুর, ফরিদপুর, খুলনা, বাগেরহাট, যশোর, সাতক্ষীরা, নড়াইল, ঝিনাইদহ, মেহেরপুর, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, মাগুরা, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, পটুয়াখালী, বরগুনা ও ভোলা।
এ প্রকল্পের জন্যে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৮৩২ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকার দেবে ৭৮৮ কোটি টাকা। অবশিষ্ট ৪৪ কোটি টাকা ওজোপাডিকো’র নিজস্ব খাত থেকে দেয়া হবে। ১ হাজার ৮১ কিলোমিটার নতুন বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণ ছাড়াও এ প্রকল্পের আওতায় ৭৭৭ কিলোমিটার বিদ্যুৎ লাইন পুনর্বাসন, ৩টি নতুন বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র নির্মাণ, ১১টি বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র পুনর্বাসন ইত্যাদি কাজ করা হবে। এদিকে বিদ্যুতের ক্রমবর্ধমান চাহিদা ও এর যোগানকে ইতিবাচক মনে করে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল একনেক সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে বলেন, দেশের অর্থনীতির চাকা যত ঘুরবে বিদ্যুতের চাহিদা ততই বেড়ে যাবে। এটাই স্বাভাবিক। আমরা বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে সবসময়ই সর্বাত্মক কাজ করে যাবো। আমাদের লক্ষ্য হলো ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশের সকর গ্রামে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়া।
আজকের এ প্রকল্পটি নিয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমের এই ৩ লাখ গ্রাহককে বিদ্যুৎ সেবার আওতায় আনার ফলে অতিরিক্ত ২৩০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে যাবে। সরকার অবশ্যই এ বর্ধিত চাহিদা পূরণ করবে। ওজোপাডিকো জানিয়েছে, এই ২১ জেলার ৪১টি উপজেলায় ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছাতে হলে প্রায় ১২ হাজার ৭৯০ কিলোমিটার বিতরণ লাইন নির্মাণ করতে হবে। ওজোপাডিকো এ পর্যন্ত ৯ হাজার ৯৭০ কিলোমিটার বিতরণ লাইন নির্মাণ করেছে। অবশিষ্ট নির্মাণ কাজ শেষ হলে ২১ জেলায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ থাকবে বলেও তারা জানায়।
রাজশাহী বিসিক শিল্প নগরীতে শিল্প প্লটের চাহিদা মেটাতে আজকের একনেক সভায় ‘রাজশাহী বিসিক শিল্প নগরী সম্প্রসারণ প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। এরফলে রাজশাহীর পবায় ৩০ একর ভূমি অধিগ্রহণ করে ২০০টি শিল্প প্লট ইউনিট নির্মাণ করবে সরকার। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক) ২০১৪ সালের জুলাই থেকে ২০১৭ সালের জুনের মধ্যে এ প্রকল্পটি শেষ করবে। এতে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ৫৩ কোটি টাকা। এ বরাদ্দের সবটুকু সরকার দেবে। বিসিক জানিয়েছে- বর্ধিত এ শিল্প নগরীতে তারা ৩ ধরনের শিল্প ইউনিট স্থাপন করবে। টাইপ-এ-তে থাকবে ৬ হাজার বর্গফুটের ৮৩টি শিল্প ইউনিট, টাইপ-বি-তে থাকবে ৪৫০০ বর্গফুটের ৮৯টি ইউনিট এবং টাইপ-এস-এ থাকবে ৩৫০০ থেকে ৮০০০ বর্গফুটের ২৮টি শিল্প ইউনিট।
এ প্রকল্পটিকে শিল্পভিত্তিক অর্থনীতি উল্লেখ করে পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, ২০০টি শিল্প প্লটের ১০ ভাগ মহিলা উদ্যোক্তাদের জন্যে সংরক্ষিত থাকবে। এ থেকে অনেক কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে বলেও মন্ত্রী জানান। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে দেশে ৭৪টি বিসিক শিল্প নগরীতে মোট ১০ হাজার ৩৩৮টি শিল্প ইউনিট রয়েছে যার মধ্যে ৪ হাজার ১০০ ইউনিটে শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপিত রয়েছে। তবে রাজশাহীর ক্ষেত্রে বিষয়টি ভিন্ন। এখানে শিল্প প্লটের চাহিদা বেশি। এ শিল্প নগরীর ৬০ ভাগ ক্ষেত্রেই কৃষি প্রক্রিয়াকরণ ও এসএমই শিল্প গড়ে উঠবে। পরিকল্পনা মন্ত্রী জানিয়েছেন, শিল্প মন্ত্রণালয় বিভিন্ন বিসিক শিল্প নগরীর শিল্প ইউনিট কেনো খালি পড়ে আছে তার ওপর একটি ইনডেপথ রিপোর্ট অচিরেই একনেক সভায় পেশ করবে।
ঢাকার কেরানীগঞ্জে ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের পাশে দুটি জেলখানা নির্মাণের জন্য একটি সংশোধিত প্রকল্পেরও অনুমোদন দেয় আজকের একনেক সভা। প্রকল্পটির নাম ‘ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার (কেরানীগঞ্জ) (২য় সংশোধিত)’। এ প্রকল্পের মধ্যদিয়ে একটি পুরুষ ও একটি মহিলা কারাগার নির্মাণ করা হবে। এতে ৪ হাজার পুরুষ এবং ২ হাজার নারী আসামীর স্থান সংকুলান হবে। পুরুষ কারাগারে বিচারাধীন ও সাজাপ্রাপ্ত পুরুষ কয়েদী ভবনসহ বিভিন্ন শ্রেণীর বন্ধী সেল নির্মাণ করা হবে। প্রকল্পের আওতায় সাজাপ্রাপ্ত বিচারাধীন মহিলাদের জন্য বিভিন্ন ভবন নির্মাণ করা হবে।
এ ছাড়া, ২০ শয্যার একটি হাসপাতালও নির্মাণ করা হবে। কারা অধিদপ্তর ও গণপূর্ত অধিদপ্তর যৌথভাবে ২০১৭ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। কারা অধিদপ্তর জানিয়েছে, ২০০৬ সালে একনেকে এটি যখন প্রথম অনুমোদন পায় তখন এর ব্যয় ধরা হয়েছিল ৩১৭ কোটি। ৮ বছর পর এর ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে ৬৯ ভাগ। আজ এর ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০৬ কোটি টাকা। সাইট উন্নয়নে ব্যয় বৃদ্ধি, নির্মাণ সামগ্রীর ব্যয় বেড়ে যাওয়া, গণপূর্ত অধিদপ্তরের রেট সিডিউল পরিবর্তন ইত্যাদিকে এ প্রকল্পের ব্যয় বেড়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে বলেছে কারা অধিদপ্তর।
ভোলা জেলার লালমোহন উপজেলার ঝুঁকিপূর্ণ অংশে নদী তীর সংরক্ষণ (২য় পর্যায়) (১ম সংশোধিত) নামের ১৩৪ কোটি টাকার একটি সংশোধিত প্রকল্প এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়ন নামের ১১০ কোটি টাকার অপর একটি প্রকল্পও আজকের একনেক সভায় অনুমোদন দেয়া হয়। প্রকল্পটি নিয়ে সভায় জানানো হয়- বুয়েটে বর্তমানে ৭ হাজার ৬৪০ শিক্ষাত্রী রয়েছে। এর মধ্যে ২ হাজার ১০ জন ছাত্রী। অথচ ৬টি হলের মধ্যে মাত্র একটি ছাত্রী হল। এ জন্য ১২ তলা বিশিষ্ট একটি ছাত্রী এবং অপর ১২ তলা বিশিষ্ট একটি ছাত্র হল নির্মাণ করা হবে।
উল্লেখ করা যেতে পারে আজকের একনেক সভা এ অর্থ বছরের ১১তম সভা। এ সভায় ১ হাজার ৫৩৫ কোটি টাকার ৫টি প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়। এর মধ্যে তিনটি নতুন বাকি দুটি সংশোধিত প্রকল্প। মোট বরাদ্দের মধ্যে সরকারি খাত থেকে ১ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা এবং অবশিষ্ট ৪৪ কোটি টাকা সংস্থার নিজস্ব খাত থেকে দেয়া হবে।

Spread the love