বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

একাত্তরের পরাজিত শক্তিকে নিয়ে খালেদা জিয়া দেশের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন-প্রধানমন্ত্রী

Pm bpশনিবার ১১টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ১৯ম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণে নতুন বাজার খোঁজার জন্য ব্যবসায়ীদের আহ্বান জানান। একই সাথে তিনি পণ্য রফতানির ক্ষেত্রে মানের সাথে আপোষ না করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, যে পণ্য আপনারা বিদেশ রফতানি করবেন তার মান যেন ঠিক থাকে। বাংলাদেশের বদনাম যাতে না হয়। আগে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু ভবিষ্যতে যেন আর না ঘটে।
প্রধানমন্ত্রী শ্রমিকদের প্রতি যত্নবান হতেও ব্যবসায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, আপনারা কারখানা চালান। এক্ষেত্রে শ্রমিকদের ভালোমন্দ আপনাদেরই লক্ষ্য রাখতে হবে। সরকার এক্ষেত্রে সব সময আপনাদের সহায়তা দিয়ে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ একটি সম্ভাবনাময় দেশ। উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে বাংলাদেশ এখন বিশ্বে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করা আমাদের লক্ষ্য। আর এবারের নির্বাচনী ইশতেহারে আমরা যেভাবে বলেছে ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত দেশ হিসেবে বিশ্ব দরবারে প্রতিষ্ঠিত হবে।
বিরোধী জোটের আন্দোলনের লাগাতার হরতাল-অবরোধ প্রসঙ্গে তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দিনের পর দিন অবরোধ-হরতাল সত্ত্বেও আমরা আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছি। আপনারা যারা ব্যবসা-বাণিজ্য করেন তাদের সব ধরনের সহায়তা অব্যাহত রেখেছি। আমরা পোর্ট সচল রেখেছি, রফতানি অব্যাহত রেখেছি। এতে হরতাল-অবরোধ সত্ত্বেও আমাদের ১৮ শতাংশ রফতানি প্রবৃদ্ধি হয়েছে। অথচ বিরোধী দলের লাগাতার হরতাল-অবরোধের কারণে দেশের ও মানুষের ক্ষতি হয়েছে। কিন্তু কি উদ্দেশ্যে এই ক্ষতি?
প্রধানমন্ত্রী বিএনপি নেত্রী বেগম জিয়াকে উদ্দেশ্য করে বলেন, উনি যেন একটা প্রতিহিংসা পরায়ণতায় মেতে উঠেছেন। একাত্তরে আমরা যে শক্তিকে পরাজিত করেছিলাম সেই শক্তির পক্ষ নিয়েই তিনি দেশের বিরুদ্ধে, মানুষের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন।

এবারের বাণিজ্য মেলায় দেশীয় পণ্যের পাশাপাশি ভারত, পাকিস্তান, ইরান, চীন, মালয়েশিয়া, হংকং, থাইল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, তুরস্ক ও সিংঙ্গাপুরসহ ১২টি দেশের পণ্য প্রদর্শিত হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

মাসব্যাপী এ বাণিজ্য মেলা আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত টানা চলবে। এবারের মেলায় প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ৩০ টাকা এবং অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ২০ টাকা প্রবেশমূল্য রাখা হয়েছে। আর প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত মেলা খোলা থাকবে।
বাণিজ্য মেলায় লে-আউট প্লান অনুযায়ী বরাদ্দের প্রদানযোগ্য স্থাপনার সংখ্যা ৪৭১টি। এরমধ্যে বিভিন্ন ক্যাটাগরির প্যাভেলিয়নের সংখ্যা- ৯৬টি, মিনি প্যাভিলিয়নের সংখ্যা ৪৯টি, স্টলের সংখ্যা ৩১৬টি এবং রেস্তোরা ১০টি। প্রতিবারের মতো এবারের বাণিজ্য মেলায়ও কসমেটিকস, স্টেশনারি, ইলেকট্রনিক্স পণ্য, পাটজাত পণ্য, কার্পেট, চামড়াজাত পণ্য ও পাদুকা, জুয়েলারি, খেলনা, সিরামিকস পণ্য, মেলামাইন বস্ত্র, আসবাবপত্র, হস্তজাত তৈজসপত্রসহ নানা ধরনের পণ্য প্রদর্শিত হবে।
এবারের মেলায় নতুনত্ব আনার চেষ্টা করা হয়েছে জানিয়ে বাণিজ্য সচিব বলেন, প্রত্যেক প্যাভিলিয়নে ও স্টলে নির্ধারিত সংখ্যক অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র রাখা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। গত বছর ২০১৩ সালের মেলা থেকে ১৫৭ কোটি টাকার রফতানির আদেশ পাওয়া গিয়েছিলো। এবছর আরো বেশি আদেশ পাওয়া যাবে বলে আশা করেছেন বাণিজ্য সচিব মাহবুব আহমেদ।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email