রবিবার ২ অক্টোবর ২০২২ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এক বেলার বিলাসী পান্তা!! ——————-মোঃ রিয়াজুল ইসলাম—————-

images_018গানটি প্রায় সবারই মুখে মুখে থাকে। স্ত্রীরা স্বামীদের কাছে, মেয়েরা বাবার কাছে বায়না ধরেন বৈশাখী রঙে সাজতে বাহরি শাড়ি আর সালোয়ার-কামিজ নিজের করে পেতে। বাহরি সাজে শহরের বাহারি মানুষগুলো বেরিয়ে আসেন রাস্তায় সূর্যোদয়ের হাত ধরে। টাকডুম টাকডুম বেজে উঠে বাংলাদেশের ঢোল। শখ করে পান্তা খাই বাহারি ইলিশ ভাজা দিয়ে। পাত্রটি অবশ্যই মাটির সানকি হওয়া চাই।

পহেলা বৈশাখে নব নব রঙে সেজে শহরের মানুষগুলো প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হন পান্তা খাওয়ার। শক্ত পান্তা ভাতগুলো তারা চিবিয়ে খান দলা দলা করে। আর সঙ্গে ইলিশের স্বাদ তো আছেই। বিষয়টিকে আরও বিশ্বসত্ম করতে পামত্মার সঙ্গে এক টুকরো পিঁয়াজ আর তেলে ভাষা একটি শুকনো মরিচ স্থান পায়।

প্রথমেই বলা যাক শহরের পান্তাগুলো কি প্রক্রিয়ায় তৈরি। আধুনিক মানুষগুলো পান্তা বলতে বুঝে থাকেন শুকনো ভাতে পানি ঢেলে দেয়া। সীমিত জ্ঞান হেতুই ভোরবেলা কিংবা কখনো কখনো সকাল বেলাতেও গরম ভাত রান্না করে তাকে বিদ্যুৎ পাখায় ঠান্ডা করে পানি ঢেলে দিয়েই নিয়ে আসা হয় একদিনের জন্য বিশেষভাবে তৈরি বাহরি দোকানে। তারপরের দৃশ্যতো আগেই বলেছি।

এবার একটু ঘুরে আসি গ্রাম থেকে। দেশের শতকরা ৮০ ভাগ মানুষেরই বাস গ্রামে, যাদের অধিকাংশেরই দারিদ্রসীমার নিচে অবস্থান। এই মানুষগুলো পান্তা বলতে কী বুঝেন? পামত্ম বলতে তারা বুঝেন বারবার চুলা জ্বালানোর ক্ষমতা না থাকায় রাতের জন্য রান্না করা ভাতের সঞ্চয়ে পানি ঢেলে রাখা , যা দিয়ে সকালের ক্ষুধার্ত পেট সামান্য স্বস্তির দেখা পায়। সারারাত ভাগুলো পানির সঙ্গে যুদ্ধ করে পচতে আরম্ভ করে। প্রায় গলে যাওয়া ভাতগুলো লবণ, কাঁচা মরি আর পিঁয়াজের সংমিশ্রণে মৌলিকত্ব হারালৌ জন্ম দেয় নতুন স্বাদের। গ্রামের দারিদ্র মানুষগুলোর মুখে প্রায়ই শোনা যায়, ‘বাসি পাস্তা খায়া কোন রকমে বাঁচি আচি বাজান’। ওরা প্রতিদিনই খেয়ে থাকেন। সেই পান্তার সঙ্গে কোনদিনই জোনে না তেলে ভাজা শুকনা মরিচ কিংবা পদ্মার তাজা ইলিশ। ওরা মাছে-ভাতে বাঙালি নয়। পান্তা ভাতে বাঙালি। এখনও অনেক মানুষ আছেন যারা ভেজা শাড়ির এক মাথা গায়ে চড়িয়ে অন্য মাথা রোদে শুকিয়ে নেন। রকমারি নকশায় সাজানো বাঙালিত্বের দেখা তারা কোনদিন পান না। রঙ মেঝে সঙ সেজে আয়েশী আড্ডায় ওদের মন ভরে না।

বৈশাখের খরতাপে, কখনও ঘুর্ণিঝড়ের প্রজন্ডতার সঙ্গে যুদ্ধ করে প্রতিদিনের খাবার জোগাড় করতে হয় যাদের তারা কেন জানি আজও বাঙালি হয়ে উঠলো না। রবীন্দ্রনাথ বহু আগেই বলেছিলেন, ‘সাত কোটি সমত্মানের হে মুগ্ধ জননী-রেখেছো বাঙালি করে, মানুষ করনি’। খেটে খাওয়া মানুষগুলোর জীবনযুদ্ধকে কাছে থেকে দেখলে শহরের বৈশাখী বাঙালিদের রবীন্দ্রনাথ হয়ে গালি দিতে ইচ্ছে হয় বটে কিন্তু সাধ্যকি গালি দেবার। ওরা যে সংখ্যালঘিষ্ট হয়েও শক্তিমান। এ বিশ্বে অর্থ, প্রতিপত্তি আর ক্ষমতাই সকল শক্তির উৎস। কেননা এই তিনটি থাকলে পেছনে জনতা থাক বা না থাক ডর দেখিয়ে তাদের খোলসে বন্দি করে রাখা যায় অতি সহজেই। এ বিশ্বে এখন সেসবই ঘটনা যেখানে থাকে কৃত্রিমতা। মৌলিকত্বের এতাটুকু ছোঁয়াও সেখানে নেই।

আর এই বিলাসী মানুষের কাছে বেশাখ শুধুই বাঙালি সাজার ফ্যাশান মাত্র। যে পান্তা ভাত খেয়ে (বলা ভাল মজা করে খেয়ে) আমরা বাঙালি সাজছি, তাদের কি ভাববার এতোটুকু অবসর আছে আমাদের বাঙালিত্বের অহংকার যেখানে লুকিয়ে সেই জায়গাটা কতটা অনাদরে অবহেলায় জীর্ণশীর্ণ আকার ধারণ করেছে! বাঙালিত্ব আজ বিভক্ত হয়ে পড়েছে। অবসর নেই। নেই কারণ বিভক্তিকরণ কার্যটা যে তাদের হাতেই সম্পন্ন হয়েছে। সহজ একটি প্রশ্ন, আমরা প্রথমে বাঙালি নাকি বাংলাদেশী? কিন্তু আয়! স্বার্থ সিদ্ধির অজুহাতে কেউ কেউ আমরা লালন করতে আরম্ভ করেছি বিপরীত আদর্শকে। তাদেরই মানায়। তারাই সত্যিকারের গুণী অভিনেতা-অভিনেত্রী। মঞ্চয় তাদের সব সময়ের জন্যই প্রস্ত্তত। গোটা দেশটাই তাদের রঙ্গমঞ্চে পরিণত হয়েছে। আজ একথা বললে আর অত্যুক্তি করা হয় না যে বাংলাদেশীটাই পরিণত হয়েছে – A stage of তামাশা। তামাশাই যে মঞ্চে সর্ব সময়ের জন্য অভিনীত হচ্ছে সেখানে বৈশাখের অগামেন রকম রকম শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে পান্তা ভাতের পসরা নিয়ে বসলে সেখানে সাধারণ চোখে আর কৃত্রিমতা ধরা পড়ে না। সে সবই স্বাভাবিক। আবারও হয়তো রবীন্দ্রনাথ এই ধরাধামে জেগে লিখবেন আরেকটি বিখ্যাত কবিতা- ‘বিশ কোটি সন্তানের হে মুগ্ধ জননী’- শিখিয়েছো অভিনয় শুধু, ভালবাসতে শেখাওনি’! (লেখক পরিচিতি-সাহিত্যিক ও বার্তা সম্পাদক দৈনিক প্রতিদিন)।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email