বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ-সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

Pmপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বর্তমান সরকার ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার ধারাবাহিকতায় সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়নের কার্যক্রম শুরু করেছে। সরকার দারিদ্র্য পীড়িত হত দরিদ্রদের কল্যাণ বিবেচনায় একটি সামগ্রিক নিরাপত্তা বেষ্টনি কৌশলের প্রয়োজন উপলব্ধি করে ‘জাতীয় সামাজিক সুরক্ষা কৌশল’ প্রণয়নও করতে যাচ্ছে।

বুধবার সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদের অধিবেশনে তার জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে সরকারি দলের এনামুল হকের ‘দেশের অর্থনীতিকে আরো উন্নত করার লক্ষ্যে সরকারের পরিকল্পনা’ সম্পর্কিত প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।
শেখ হাসিনা বলেন, সরকারের বিগত মেয়াদের উন্নয়ন পরিকল্পনার ধারাবাহিকতায় বর্তমান সরকার আমাদের নির্বাচনী ইশতেহার ‘এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ’-এর আলোকে অচিরেই রূপকল্প-২০২১-কে একটি প্রকৃত দীর্ঘমেয়াদী প্রেক্ষিত পরিকল্পনা হিসাবে রূপকল্প-২০৪১-এ রূপান্তর করবে। তিনি বলেন, এই রূপকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে ২০৪১ সালের বাংলাদেশ হবে উন্নত বিশ্বের সাথে তুলনীয় এক শান্তিপূর্ণ, সমৃদ্ধ, সুখী এবং উন্নত জনপদ।
প্রধানমন্ত্রী বর্তমান সরকারের দীর্ঘমেয়াদী অর্থনৈতিক পরিকল্পনার উল্লেখযোগ্য কয়েকটি দিক তুলে ধরেন। পরিকল্পনাগুলো হচ্ছে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ, ২০২১ সালের মধ্যে দারিদ্র্য রেখার নিচে বসবাসকারী মানুষের সংখ্যা ১৩ শতাংশে নামিয়ে আনা, একই সময়ের মধ্যে সবার জন্য দৈনিক ন্যূনতম ২১২২ কিলো ক্যালরি খাদ্য গ্রহণ ও জনসংখ্যার অন্তত পক্ষে ৮৫ শতাংশের জন্য মানসম্মত পুষ্টিকর খাদ্য নিশ্চিত করা।
এছাড়াও বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা বর্তমান ১০ হাজার মেগাওয়াট থেকে ২৪ হাজার মেগাওয়াট উন্নীতকরণ, বিদ্যুৎ সুবিধাপ্রাপ্ত জনগোষ্ঠীর বর্তমান হার ৬২ শতাংশ হতে বৃদ্ধি করে ২০২১ সালের মধ্যে সকলের ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়া। অন্যান্য উল্লেখযোগ্য পরিকল্পনাগুলো হচ্ছে রাজস্ব আয়ের বর্তমান হার জিডিপি’র ১৪ দশমিক ১ শতাংশ হতে ২০২১ সালের মধ্যে ২০ শতাংশ উন্নীত করতে বাজেটের আকার বর্তমান জিডিপির ১৮ দশমিক ৭ শতাংশ হতে ২০২১ সালের মধ্যে ২৫ শতাংশ বৃদ্ধি, দ্বিতীয় পদ্মা সেতু ও দ্বিতীয় যমুনা সেতু নির্মাণসহ সোনাদিয়ায় গভীর সমুদ্র বন্দর প্রতিষ্ঠাসহ মহেশখালীতে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস স্থাপনা (এলএনজি টার্মিনাল) নির্মাণ।

প্রধানমন্ত্রী দৃঢ়তার সাথে বলেন, আগামী ২০২১ সালের মধ্যেই মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে বাংলাদেশ বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবে। স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য রুস্তম আলী ফরাজির সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা দুর্নীতি ও জঙ্গি দমন, আমলাতন্ত্র নিয়ন্ত্রণ এবং দেশের যে হতাশাজনক অর্থনীতি ছিল সেটি কাটিয়ে দেশকে অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে সফলতা অর্জন করেছি। তিনি বলেন, ২০০৯ সালে যখন সরকার গঠন করা হয় তখন বিশ্বে বাংলাদেশ একটি দুর্নীতিবাজ, সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদ দেশ হিসেবে পরিচিত ছিল।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা যখন সরকার গঠন করি দেশে তখন একদিকে দুর্নীতি, সন্ত্রাসবাদ অন্যদিকে আতংকিত জাতি। আমরা সেই সব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে বাংলাদেশকে একটি সম্ভাবনাময় রোল মডেল দেশ হিসাবে প্রতিষ্ঠা করেছি। জাতিসংঘের ৬টি এমএজি গোল আমরা অর্জন করতে পেরেছি। তিনি  বলেন, আমাদের উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারবো। যে কোন প্রতিকূল অবস্থা মোকাবেলা করার মত মনোবল আমাদের আছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email