শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এবার গাজারয় জাতিসংঘের স্কুলে হামলা : নিন্দা-প্রতিবাদের ঝড়

intএবার গাজায় বাস্তুচ্যুত বেসামরিক ফিলিস্তিনিদের আশ্রয় নেয়া জাতিসংঘের একটিস্কুলে বর্বর হামলা চালিয়েছে ইসরাইল। আর এ হামলার নিন্দার ঝড় বয়ে চলেছেবিশ্বব্যাপী। নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘ এবং যুক্তরাষ্ট্রও। বুধবার চালানো ওইহামলায় ১৬ জন বেসামরিক মানুষ নিহত হয়েছে। ওই স্কুলে হামলার পরপরইনিকটবর্তী একটি বাজারে আরেকটি ইসরাইলি হামলায় ১৭ জন নিহত হয়েছেন। এ দিনগাজায় ইসরাইলি হামলায় এ পর্যন্ত ১১১ ফিলিস্তিনী নিহত ও আরো ২০০ জন আহতহয়েছেন বলে জানিয়েছেন ফিলিস্তিনের এক কর্মকর্তা।
কোস্টরিকা সফররতজাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন গাজার জাতিসংঘ স্কুলে হামলার নিন্দা জানিয়েছেন।এ হামলার জবাবদিহিতা ও বিচার হওয়া দরকার বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি।স্কুলে হামলাকে অগ্রহযোগ্য ও নীতিবিরুদ্ধ বলে নিন্দা জানিয়েছেন জাতিসংঘমহাসচিব। তিনি বলেন, জাতিসংঘের একটি স্কুেল অগ্রহণযোগ্য হামলা চালানোহয়েছে। স্কুলটিতে কয়েক হাজার ফিলিস্তিনী আশ্রয় নিয়েছিলেন।
ইসরাইলের এবর্বরোচিত হামলার প্রেক্ষিতে সতর্ক ভাষায় মন্তব্য করেছে হোয়াইট হাউস।হোয়াইট হাউস এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্র গাজায় জাতিসংঘের স্কুলেইসরাইলের গোলা বর্ষণের নিন্দা জানাচ্ছে। ওই হামলায় শিশু ও জাতিসংঘেরমানবাধিকার কর্মীসহ নিরপরাধ ফিলিস্তিনী নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে।
ফিলিস্তিনীপ্রেসিডেন্ট মাহ্মুদ আব্বাস বান কি মুনের কাছে লেখা এক চিঠিতেফিলিস্তিনীদের জীবন রক্ষায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য প্রয়োজনীয় সকলপদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন। চিঠিতে তিনি ইসরাইলের বিরুদ্ধে ‘যুদ্ধাপরাধ ও সন্ত্রাসী অভিযানের মাধ্যমে গণহত্যার অভিযোগ এনেছেন।মানবাধিকার সংস্থা এমনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ওয়াশিংটনের প্রতি ইসরাইলেঅস্ত্র সরবরাহ বন্ধের আহবান জানিয়েছে।
গাজার জাতিসংঘের স্কুলে আশ্রয়নেয়া মঈন আল-আতামনা বলেন, তারা (ইসরাইল) বাড়িঘর ও স্কুলসহ সব জায়গায় বোমাহামলা চালাচ্ছে। গাজার কোন স্থানই নিরাপদ নয়। কানাডার প্রধানমন্ত্রীস্টিফেন হার্পার বুধবার গাজায় বেসামরিক নাগরিকদের প্রাণহানির ঘটনার জন্যহামাসকে দায়ী করেছেন। চলমান এ ভয়াবহ সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত ১৩৬০ ফিলিস্তিনী ও৫৮ ইসলাইলি নিহত হয়েছে। নিহত ইসরাইলিদের মধ্যে ৫৬ সৈন্য ও ২ বেসামরিকনাগরিক ।
ওই দিনই গাজায় পেতে রাখা বোমার বিস্ফোরণে ৩ ইসরাইলি সেনা নিহতহয়েছে। এছাড়া গাজার খান ইউনিস এলাকায় ইসরাইলি বিমান হামলায় আরো সাতজনগাজাবাসী নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফিলিস্তিনি চিকিৎসকরা। ইসরাইলি হামলায়নিহতদের অধিকাংশই বেসামরিক মানুষ বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো।এদিকে ইসরাইলে নিহত বেসামরিক মধ্যে একজন দেশটিতে কর্মরত এক থাই নাগরিকরয়েছেন।
৩ সপ্তাহ অতিক্রান্ত হলেও এখনো পর্যন্ত ভয়াবহ রক্তক্ষয়ী এ লড়াইবন্ধ হওয়ার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। অন্যদিকে ফিলিস্তিনের মূল অংশ থেকেবিচ্ছিন্ন এ ভূখণ্ডটিতে হামলা চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসরাইলেরমন্ত্রিসভার নিরাপত্তা বিভাগ। জাতিসংঘের ত্রাণ ও কর্ম সংস্থা ইউএনআরডব্লিউএজানিয়েছে, বুধবার ভোরে জাবালিয়া শরণার্থি শিবিরে জাতিসংঘের স্কুলটিতেইসরায়েলি হামলার সময় সেখানে নারী ও শিশুসহ ৩,৩০০ জন ফিলিস্তিনি আশ্রয় নিয়েছিল।
গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় স্কুলটিতে ১৫ জন নিহত ও ১০০ জন আহতহয়েছে বলে জানিয়েছে। কিন্তু জাতিসংঘ নিহতের সংখ্যা ১৬ জন বলে জানিয়েছে।যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট দপ্তর হোয়াইট হাউস থেকে দেশটির জাতীয় নিরাপত্তাকাউন্সিলের মুখপাত্র বার্নাডেট মিয়ান বলেছেন, হাজার হাজার বাস্তুচ্যুতফিলিস্তিনি, ইসরায়েলি সেনাবাহিনী যাদের ঘরবাড়ি ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশদিয়েছিল, তারা গাজায় জাতিসংঘের আশ্রয়কেন্দ্রেও নিরাপদ না হওয়ায় আমরাগভীরভাবে উদ্বিগ্ন।
পাশাপাশি গাজার জাতিসংঘের আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতেঅস্ত্র লুকিয়ে রাখার জন্য দায়ীদেরও নিন্দা জানান তিনি। জাতিসংঘের আক্রান্তস্কুলটি পরিদর্শন শেষে ইউএনআরডব্লিউএর প্রধান পিয়েরে ক্রেইয়েনবল বলেছেন, আমাদের প্রাথমিক পর্যালোচনা হচ্ছে ইসরায়েলি গোলা আমাদের স্কুলে আঘাতহেনেছে। এরপর গাজার ধারাবাহিক হত্যাযজ্ঞ বন্ধ করার জন্য আন্তর্জাতিকসম্প্রদায়কে আন্তরিক রাজনৈতিক উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email