শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এশিয়া কাপ জয় শ্রীলঙ্কার ঘরে

শ্রীলঙ্কা ১২তম এশিয়া কাপের ট্রফি জিতে নিলো । পুরো টুর্ণামেন্টে অপরাজিত থেকে পাকিস্তানকে ৫ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে বিজয়ী খেতাব জিতে নিলো শ্রীলংকা। এর আগে ২৬১ রানের লক্ষ্যে নেমে ৫৬ রানের উদ্বোধনী জুটি গড়ে দারুণ শুরু করেছিল শ্রীলঙ্কা। তবে সাঈদ আজমল তার দ্বিতীয় ওভারে কুশল পেরেরা ও কুমার সাঙ্গাকারাকে সাজঘরে ফিরিয়েছেন পরপর দুবলে। মাহেলা জয়াবর্ধনে এ দুসরা বোলারকে তার হ্যাটট্রিক বঞ্চিত করেন। তার পরও ৪৬ ওভার ২ বলে ৫ উকেট হারিয়ে ২৬১ রান নিয়ে জয়ের লক্ষে পৌঁছে যায় শ্রীলংকা।
আজ শনিবার মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে লাথিস মালিঙ্গার মারাত্মক বোলিংয়ের পরও ফাওয়াদ আলমের শতকে ৫ উইকেটে ২৬০ রান করে পাকিস্তান। জবাবে ৪৬ ওভার ২ বলে ৫ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় শ্রীলঙ্কা। কৌশল পেরেরার সঙ্গে থিরিমান্নের ৫৬ রানের উদ্বোধনী জুটি শ্রীলঙ্কাকে ভালো সূচনা এনে দেয়। একাদশ ওভারের প্রথম দুই বলে কৌশল ও কুমার সাঙ্গাকারাকে ফিরিয়ে দিয়ে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগান সাঈদ আজমল।
লাহিরু থিরিমান্নের শতকে এশিয়া কাপ জিতেছে শ্রীলঙ্কা। প্রতিযোগিতার ফাইনালে সহজেই গতবারের চ্যাম্পিয়ন পাকিস্তানকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে তারা। ২০০৮ সালে পাকিস্তানে ৪র্থ এশিয়া কাপ শিরোপা জয়ের পর থেকে ফাইনালে সাফল্য পাচ্ছিল না শ্রীলঙ্কা। তারপর থেকে ৩টি বিশ্বকাপ ফাইনালে অর্থাৎ ২০১১ সালের ওয়ানডে এবং ২০০৯ ও ২০১২ সালের টি২০ বিশ্বকাপের ফাইনালে হেরেছে তারা। এ জয়ে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ ৫ বারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে স্পর্শ করলো শ্রীলঙ্কা।
এরপর মাহেলা জয়াবর্ধনের সঙ্গে থিরিমান্নের ১৫৬ রানের জুটিতে শ্রীলঙ্কার জয়ের ভিত রচিত। দলকে ২ উইকেটে ২১২ রানের দৃঢ় অবস্থানে পৌঁছে দেয়ার পর বিদায় নেন জয়াবর্ধনে (৭৫)। তার ৯৩ বলের ইনিংসে ছিল ৯টি চার ও ১টি ছক্কা। শতকে পৌঁছানোর পর আজমলের ৩য় শিকারে পরিণত হন থিরিমান্নে (১০১)। তার ১০৮ বলের ইনিংসে ছিল ১৩টি চার। জয়ের জন্য শ্রীলঙ্কার তখন প্রয়োজন মাত্র ১৪ রান। অবশ্য তার আগেই আশনা প্রিয়াঞ্জনকে বিদায় করেন জুনায়েদ খান। চতুরঙ্গ ডি সিলভাকে নিয়ে বাকি কাজটুকু সহজেই সারেন অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস।
ইনিংসের শুরুতেই পর পর তিন ওভারে তিন উইকেট নিয়ে পাকিস্তানকে চাপে ফেলেন মালিঙ্গা। প্রথম ওভারের শেষ বলে শারজিল খানকে থিসারা পেরেরার এবং তৃতীয় ওভারের শেষ বলে আহমেদ শেহজাদকে সাঙ্গাকারার ক্যাচে পরিণত করেন তিনি। পঞ্চম ওভারে আবার আঘাত। এবার সাঙ্গাকারার গ্লাভসবন্দী হয়ে বিদায় নেন মোহাম্মদ হাফিজ। ১৮ রানে প্রথম তিন ব্যাটসম্যানের ব্যাটসম্যানের বিদায়ের পর অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হকের সঙ্গে ১২২ রানের জুটি গড়ে প্রতিরোধ গড়েন ফাওয়াদ। প্র্রাথমিক ধাক্কা সামাল দিলেও এ দুজনের রান তোলার গতি ছিল খুব ধীর।
টানা তিন ম্যাচে ব্যর্ততার পর রানের দেখা পাওয়া মিসবাহকে (৬৫) থিসারা পেরেরার ক্যাচে পরিণত করে ৩২.১ বল স্থায়ী জুটি ভাঙ্গেন মালিঙ্গা। ৩৭তম অর্ধশতকে পৌঁছানো মিসবাহর ৯৮ বলের ইনিংসে ছিল ৩টি চার ও ২টি ছক্কা। পঞ্চম উইকেটে উমর আকমলের সঙ্গে মাত্র ৭৮ বলে ১১৫ রানের আরেকটি চমৎকার জুটি উপহার দেন প্রথম শতকে পৌঁছানো ফাওয়াদ। ১১৪ রানে অপরাজিত এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের ১৩৪ বলের ইনিংসটি ৮টি চার ও ৩টি ছক্কায় সাজানো।
ওয়ানডেতে পাকিস্তানের কোনো বাঁহাতি মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানের এটাই প্রথম শতক। আগের সেরা ছিল ৮৬ রান। ১৯৯০ সালের ফেব্রুয়ারি মেলবোর্নে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এই রান করেছিলেন ওয়াসিম আকরাম। পাকিস্তান ইনিংসের শেষ ওভারে মালিঙ্গার পঞ্চম শিকারে পরিণত হওয়ার আগে ৪২ বলে ৭টি চারের সাহায্যে ৫৯ রান করেন আকমল। সপ্তমবারের মতো পাঁচ উইকেট নেয়া মালিঙ্গার খরচ ৫৬ রান। অপরদিকে ১০ ওভার বল করে ৫৬ রান দিয়ে ৫ উইকেট নেয়ায় ম্যন অবদ্যা ম্যাচ হয়েছেন শ্রীলংকার লাসিথ মালিঙ্গা।

ফাইনালে পাকিস্তান দলে ছিলেন
সারজীল খান, আহমেদ শেহজাদ, মোহাম্মদ হাফিজ, মিসবাহ উল হক, উমর আকমল, ফাওয়াদ আলম, শহীদ আফ্রিদি, মোহাম্মদ তালহা, উমর গুল, সাঈদ আজমল ও জুনাইদ খান।

আর শ্রীলঙ্কান দলে ছিলেন
কুশল পেরেরা, লাহিরু থিরিমান্নে, কুমার সাঙ্গাকারা, মাহেলা জয়াবর্ধনে, আশান প্রিয়ঞ্জন, এঞ্জেলো ম্যাথুস, চতুরঙ্গ ডি সিলভা, থিসারা পেরেরা, সাচিত্রা সেনানায়েক, সুরাঙ্গা লাকমল ও লাসিথ মালিঙ্গা।

পাকিস্তানের সংক্ষিপ্ত স্কোর
৫০ ওভারে ২৬০/৫ (শারজিল ৮, শেহজাদ ৫, হাফিজ ৩, মিসবাহ ৬৫, ফাওয়াদ ১১৪*, আকমল ৫৯, আফ্রিদি ০*; মালিঙ্গা ৫/৫৬)

শ্রীলঙ্কার সংক্ষিপ্ত স্কোর
৪৬.২ ওভারে ২৬১/৫ (কৌশল ৪২, থিরিমান্নে ১০১, সাঙ্গাকারা ০, জয়াবর্ধনে ৭৫, প্রিয়াঞ্জন ১৩, ম্যাথিউস ১৬*, চতুরঙ্গ ৬*; আজমল ৩/২৬, জুনায়েদ ১/৫৬, তালহা ১/৫৬)

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email