শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

এসপি বাবুল আকতারকে চাকরি থেকে অব্যাহতি

অবশেষে বহুল আলোচিত সেই পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আকতারকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ।

সোমবার বিকেলে তার অব্যাহতির আবেদন অনুমোদন করা হয়েছে বলে আজ মঙ্গলবার বিকেলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পুুলিশ অধি শাখার উপসচিব মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে তার অব্যাহতির বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

জনস্বার্থে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলেও জানানো হয় ওই প্রজ্ঞাপনে। এর মধ্যদিয়ে চট্টগ্রামে দুর্বৃত্তদের গুলিশে স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু খুন হওয়ার পর বাবুল আকতারের এ অব্যাহতির ফলে তাকে কেন্দ্র করে বেশ কিছু দিন ধরে চলে আসা নাটকের আপাত অবসান হলো।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ২৪তম বিসিএস (পুলিশ) ক্যাডারে যোগদান কৃত জনাব বাবুল আক্তার (বিপি- ৭৫০৫১০৯০২৯) অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার, সিএমপি, চট্টগ্রাম (বর্তমানে পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি প্রাপ্ত এবং পুলিশ সদর দপ্তরে সংযুক্ত) কে তার আবেদনের প্রেক্ষিতে চাকরি (পুলিশ ক্যাডার) হতে এতদ্বারা অব্যাহতি দেয়া হলো। জনস্বার্থে জারীকৃত এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে।

জানা যায়, গত ৫ জুন সকালে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় চট্টগ্রামের জিইসি এলাকায় দুর্বৃত্তদের গুলি ও ছুরিকাঘাতে খুন হন এসপি বাবুলের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। ঘটনার সময় বাবুল আক্তার নতুন কর্মস্থলে (পুলিশ সদর দফতর) যোগ দিতে ঢাকায় অবস্থান করছিলেন। স্ত্রী হত্যার খবর পেয়ে তিনি চট্টগ্রাম ছুটে যান। এ ঘটনায় দেশজুড়ে শুরু হয় তোলপাড়। হত্যাকান্ডের ঘটনায় বাবুল আক্তার অজ্ঞাত পরিচয় ৩ ব্যক্তিকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় পুলিশ ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে।
গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে কয়েকজন ওই ঘটনায় নিজেদের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। তাদের জবানবন্দিতে মিতু হত্যাকান্ডের মূল হোতা হিসেবে নাম এসেছে কামরুল সিকদার ওরফে মুছার। আর এ মুছা ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আক্তারের বিশ্বস্ত সোর্স। মিতু হত্যাকান্ডের সঙ্গে মুছার জড়িয়ে পড়ায় এবং বেশকিছু তথ্য মেলায় বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদের সিদ্ধান্ত নেয় পুলিশ। এ প্রেক্ষিতে ২৪ জুন রাতে এসপি বাবুলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বাড়ি থেকে তুলে নেয়ার পর শুরু হয় নানা গুঞ্জন।

জিজ্ঞাসাবাদের নামে প্রায় ১৫ ঘণ্টা তাকে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়। পরে তাকে বাসায় পৌঁছে দেয়া হলেও দীর্ঘদিন চাকরিতে যোগদান না করে এক প্রকার স্বেচ্ছাবন্দি জীবনযাপন করতে থাকেন তিনি। আর এতেই জনমনে নানা সন্দেহের ডালপালা মেলতে থাকে। এ পর তিনি চাকুরি থেকে অব্যাহতি চেয়ে সকারের কাছে আবেদন করেন। তার সেই পদত্যাগপত্র গৃহীত হওয়ার পর আজ মঙ্গবার প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

এর আগে এসপি বাবুল আক্তারের চাকরিতে থাকা না থাকা নিয়ে বেশ কিছুদেন ধরে চোর-পুলিশ খেলা হয়েছে। তার পদত্যাগ নিয়ে রীতিমতো নাটক জমে উঠেছিল। অবশ্য সে নাটকে রসদ জুগিয়েছিলেন তিনি নিজেই। চাকরি থেকে অব্যাহতিপত্র প্রত্যাহার এবং চাকরি ফেরত চেয়ে তিনি ইতিমধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব এবং পুলিশ সদর দফতরে দুটি আবেদন করে এ নাটক সৃষ্টি করেন তিনি।

Spread the love