রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ওরা ফেরিওয়ালা! সংসার স্বচ্ছল রাখতে তারা চাঁপাই থেকে দিনাজপুরে

সুবল রায়, বিরলঃ পরিবারকে স্বচ্ছল রাখতে এরা যে কোন কষ্টের কাজ করে। সারাদিন মাথায় কিংবা সাইকেলে প্লাস্টিকের মালপত্র গুছিয়ে নিয়ে বিভিন্ন পলি­ গ্রামে এবং পাড়া মহল­্লায় মহল­ায় ফেরিকরে বিক্রি করেন তারা।

বৃদ্ধ মা বাবা ছেলে মেয়ে আর পরিবারের অন্যাদের সুখের জন্য তারা চাঁপাই নবাবগঞ্জের বিভিন্ন স্থান থেকে দিনাজপুর শহরে এসেছেন শহরের রামনগর এলাকায় প্রায় এধরনের ৭০/৮০জন ফেরিওয়ালা বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করে। তারা একসাথে ৪/৫ জন বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন এবং নিজের হাতে রান্না করে খান। সকাল ৭টা থেকে ৮টার মধ্যে বেরিয়ে পরেন ফেরি করতে। সদর উপজেরার প্রতিটি গ্রামের আনাচে কানাচে ও দুয়ারে গিয়ে হাকেন ‘‘লাগবে নাকি প­াস্টিকের জিনিসপত্র’’ ফেরিওয়ালার ডাক শুনে মহিলার আসেন জিনিস কিনতে। এদের কাছে দাম যেমন সসত্মা তেমনি ঘরের দুয়ারে বসে দশটা জিনিস দেখেও পছন্দমত একটা জিনিস কিনেন।

চাঁপাই নবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ থানার অমত্মরগত বাওপুর গ্রামের বাসিন্দা মনিরম্নল ইসলাম জানায়, তার পরিবারের লোক সংখ্যা ৪জন নতুন বিয়ে করছেন তিনি। পিতা-মাতা ও স্ত্রী দুবেলা দুমুঠো ভাত যোগার করতে এবং তাদের দৈনন্দিন চাহিদা মেটাতে দিনাজপুরে এসে ফেরিওয়ালার কাজ করে। এত কষ্ট করে মাথায় বোঝা নিয়ে মাইলের পর মাইল হাটতে আর ভালো লাগে না। তাই মনিরম্নল ভাবছে কিছু পুজি জমা হলে দেশ গিয়ে মুদিখানার দোকান দিবেন। অন্যদিকে ৫২বছর বয়সী কালু দিনাজপুরে থাকে প্রায় ১১ বছর ধরে। তার বড় পুত্র এবার বুয়েট এ ফাইনাল ইয়ারের ছাত্র তাই পুত্র পাশ করলে এখানে আর ফেরিওয়ালার কাজ করবেন না। এখন ছেলের পড়ার খরচ যোগার করতে ফেরি করে বেড়ান। তারা ২/৪ মাস পর পর নিজ গ্রামে যান আবার এর মধ্যে কেউ নিজ গ্রামে গেলে তার হাতে টাকা ও অন্যান্য জিনিস পাঠান। এমনি ভাবে এখানে এসেছেন মতিউর, তৈমুর, লোকমান. কালুহ অনেকেই।

Spread the love