সোমবার ১৪ জুন ২০২১ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

করোনায় তারকাদের শুটিং স্থগিত

করোনার সংক্রামণ কমাতে লকডাউনের ঘোষণা দিয়েছিলো সরকার। কিন্তু সে সময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুটিং করায় কোন বাধা ছিলো না। এরপরেও অনেক অভিনয়শিল্পীই শুটিং এ অংশ নেননি। এদের মধ্যে কেউ কেউ আবার লকডাউনের পরে শুটিং করবেন বলে জানিয়ে দিয়েছেন। 

এদিকে এমন পরিস্থিতিতে প্রায় ২০০টির মতো শুটিং বাতিল করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের দাবি, এসবের বেশির ভাগ নাটকই আসছে ঈদে প্রচার হওয়ার কথা ছিলো। শুটিং-এ না আসার প্রসঙ্গে অনেক অভিনয়শিল্পীই বলেছেন- তারা সহকর্মীদের কাছ থেকে খবর নিয়ে জানতে পেরেছেন, শুটিং ইউনিটে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা সম্ভব হচ্ছে না। তাই সংক্রমণের ঝুঁকি থেকেই যায়। আর এ কারণেই ঘরবন্দী অভিনয়শিল্পীরা করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি বুঝেই কাজে ফিরতে চান।

স্থগিত নাটকগুলোতে কাজ করার কথা ছিলো শোবিজ অঙ্গনের পরিচিত মুখগুলোরই। তাদের মধ্যে ছিলেন- মোশাররফ করিম, জাহিদ হাসান, মেহ্‌জাবীন চৌধুরী, তৌসিফ, আফরান নিশো, অপূর্বসহ আরো অনেকের। সব তারকাদেরই অনেক নাটকের শুটিং বন্ধ করতে হয়েছে। 

এদিকে আফরান নিশো, অপূর্ব, সাফা কবির, মেহ্‌জাবিনসহ আরো একাধিক অভিনয়শিল্পীদের নিয়ে শুটিং করতে যাওয়া কয়েকজন পরিচালক বলন, এই পরিস্থিতিতে তারা কেউই শুটিং করতে রাজি নন। 

নির্মাতা মিজানুর রহমান আরিয়ান বলেন, আমি ইতোমধ্যে তিনটি কাজ বন্ধ করেছি। এর মধ্যে ‘যদি কোনো দিন’ নাটকে অপূর্ব ও মেহ্‌জাবীনের অভিনয় করার কথা ছিল। ঈদের আগে কাজ করতে পারব কি না, জানি না। তারকারা কেন কাজ করছেন না? মোশাররফ করিম জানালেন, পরিস্থিতি কাজের উপযোগী নয়। কিছু নাটকের শিডিউল এখনো দেয়া আছে। তবে ঝুঁকি নিয়ে কোনো কাজ করব না।

গত বছর মার্চে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার কারণে শুরু হয় সাধারণ ছুটি। এরপরে ছুটির পর কলাকুশলীদের কথা ভেবে প্রথম দিকেই শুটিংয়ে ফিরেছিলেন জাহিদ হাসান। তবে এবারের পরিস্থিতি একদম ভিন্ন। তিনি বলেন, পরিস্থিতি এবার মোটেও আগের মতো নয়, খুবই ভয়ানক। চারপাশের পরিচিত মানুষগুলো মারা যাচ্ছে, এসব খবর দেখে আর কাজ করতে ইচ্ছা করে না। পরিস্থিতি ভালো হলে হয়তো ঈদের আগে দু–একটি কাজ করতে পারি।

জাহিদ হাসানের মতো অনেকেই ভেবে রেখেছিলেন পরিস্থিতি ভালো হলে আবার আগের মতো কাজ শুরু করবেন। কারণ, গত বছরও লকডাউনের কারণে ঈদের শুটিং করতে পারেননি অনেকেই। কিন্তু এবারো কাজের সেই ফ্যাঁকড়া হয়ে দাঁড়ালো করোনা। ঈদ উপলক্ষে বেশ কিছু নাটকে শিডিউল দিয়েছিলেন তাহসান খান। প্রথম দিকে ভেবেছিলেন কাজ করবেন। কিন্তু এখন এই অভিনেতা বলেন, এই পরিস্থিতিতে পাঁচটি নাটকের শুটিং বাতিল করেছি। লকডাউন শিথিল করলে হয়তো কিছু কাজ করতে পারি।

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উত্তরা ও পুবাইলের দুটি শুটিং ইউনিটে ঈদের একক ও সাত খণ্ডের ধারাবাহিক নাটকের শুটিং চলছে। তবে সেসব নাটকে প্রথম সারির কোনো অভিনয়শিল্পী নেই। শুটিং ইউনিট স্বাভাবিক সময়ের তিন ভাগের এক ভাগ লোক নিয়ে কাজ করছে। যতটা সম্ভব স্বাস্থ্যবিধি মেনেই কাজ করছেন তারা।

টেলিভিশন প্রডিউসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজু মুনতাসির জানান, যাদের নাটকের ক্রেজ বেশি তারাই শুটিং করছেন না। পরিস্থিতি ঠিক হলে যতদূর কাজ করা যায় করতে হবে, তা না হলে ঈদে নাটকের ঘাটতি হতে পারে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email