বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কর্তৃপক্ষ খতিয়ে দেখবেন কি ? বিরলে সামাজিক বনায়নে সুফলভোগির তালিকায় সমাজের বিত্তবান ব্যাক্তিরা

তাজুল ইসলাম, বিরল (দিনাজপুর) থেকেঃ বিরলে সামাজিক বনায়নের আওতায় বিভিন্ন সড়কে সৃজিত বাগানে সমাজের বিত্তবান ব্যাক্তিদের নাম সুফলভোগির তালিকায়। সামাজিক বনায়ন এলাকার হত-দরিদ্র অসচ্ছল পরিবার গুলো বঞ্চিত। ফলে সামাজিক বনায়নের মাধ্যমে সরকারের গৃহিত দারিদ্র দুরীকরন প্রকল্প হত-দরিদ্রদের কোন কাজে আসছে না। বন বিভাগের উর্দ্ধতন কর্মকর্তার কাছে অস্বচ্ছল পরিবারের সদস্যদের প্রশ্ন ! কর্তৃপক্ষ বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন কি ?

 

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, বিগত ২০০৩-০৪ সালে বিরল উপজেলার ৫নং বিরল ইউনিয়নে হুসনা মোড় হতে রবিপুর এবং ব্রর্ম্মপুর পর্যমত্ম ২য় বারে সামাজিক বন বিভাগের তত্বাবোধানে সামাজিক বনায়নের আওতায় বাগান সৃজন করা হয়।

বাগানের আশপাশের হত-দরিদ্র অসচ্ছল পরিবারের লোকজনদের সুফলভোগি সদস্য নির্বাচন করার নিয়ম থাকলেও তা মানা হয়নি। অনিয়ম ও দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে সমাজের বিত্তবান একই পরিবারের ৭ হতে ৮ জন সুফলভোগি সদস্যর করা হয়েছে। সৃজিত বাগানের মেয়াদ উর্ত্তীন হওয়ার পর সুফলভোগিরা উপকৃত হওয়ার সময় এসব তথ্য বেরিয়ে আসছে। যেমন-রবিপুর গ্রামের বিশিষ্ট সমাজ সেবক নামে খ্যাত সমাজপতি আলহাজ্ব মোঃ নজমুল ইসলাম সরকার, স্ত্রী রোহিয়া খাতুন, বড় পুত্র আকতারম্নজ্জামান বাদল, বড় পুত্রবধু আকলিমা, নাতনী মৌ, ছোট পুত্র পারভেজ ও ছোট পুত্রবধুসহ ৭ জনের নাম পাওয়া গেছে। সামাজিক বন বিভাগের বিধিমালা অনুযায়ী একই পরিবারের ২ জন সুফলভোগির সদস্য হতে পাতে পারবে। কিন্তু সরকারের বিধিমালা লংঘন করে কোন ক্ষমতা বলে একই পরিবারের ৭/৮ জনের নাম সুফলভোগির তালিকায় অমর্ত্মভুক্ত করা হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা প্রয়োজন বলে এলাকার সচেতন মহল মনে করছেন।

বিষয়টি সুষ্ঠ্য তদন্ত সাপেক্ষে এসব অনিয়মের সাথে জড়িত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দৃষ্টামত্মমুলক শাসিত্মর ব্যবস্থা গ্রহণসহ ঐসব সুফলভোগিদের তালিকা থেকে সমাজের বিত্তবানদের নাম বাদ দেয়ার ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য এলাকার সচেতন মহল বিভাগীয় বন কর্মকর্তা, সামাজিক বন বিভাগ, দিনাজপুরসহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের আশু-হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

 

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email