রবিবার ২৬ মার্চ ২০২৩ ১২ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কামারুজ্জামানের ফাঁসি কার্যকর

একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত জামায়াত নেতা মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়েছে। শনিবার রাত ১০টা ৩১ মিনিটের দিকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে তার ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়। তবে কারা সূত্রে জানা যায় রাত ১০টা ১ মিনিটে ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়।

শনিবার রাত ১০টা ৩১ মিনিটে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় কার্যকর করেন নির্ধারিত জল্লাদরা।

রাত ১০টা ৩১ মিনিটে কামারুজ্জামানকে ফাঁসিতে ঝুলানো হয় বলে আইজি প্রিজন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন আহমেদ নিশ্চিত করেছেন। একই কথা জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া।

ঢাকা জেল সুপারের উপস্থিতিতে ঢাকা জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তার হাতে থাকা লাল রুমাল মাটিতে ফেলে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জল্লাদরা ফাঁসি কার্যকর করেন। এর আগে কামারুজ্জামানের মুখ কালো কাপড় ও মাথা কালো টুপি দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয়। এরপর ফাঁসির দড়িটি তার গলায় জড়িয়ে দেওয়া হয়। জল্লাদ রাজুর নেতৃত্বে ৫ সদস্যের জল্লাদবাহিনী ফাঁসি প্রদান করে।

ফাঁসির দড়িতে দীর্ঘক্ষণ ঝুলে থাকার পর কামারুজ্জামানের মৃত্যুর বিষয়ে মোটামুটি নিশ্চিত হওয়ার পর তাকে দড়ি থেকে নামানো হয়। এরপর দায়িত্বরত সিভিল সার্জন আবদুল মালেক মৃধা তার ঘাড়, হাত ও পায়ের রগ কেটে মৃত্যু নিশ্চিত করেন।

এর আগে শনিবার সন্ধ্যা ৬টা ৫০ মিনিটে কারাগারে প্রবেশ করেন মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন। সন্ধ্যা ৭টার দিকে এ্যাডিশনাল আইজি (প্রিজন) বজলুল কবির কারাগারে প্রবেশ করেন। রাত আটটার পর আসেন লালবাগ জোনের ডিসি মফিজ উদ্দিন আহমেদ। এর পর পরই প্রবেশ করেন ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনারের পক্ষে উপ-পুলিশ কমিশনার শেখ নাজমুল আলম (ডিবি পশ্চিম)।

রাত নয়টার দিকে ঢাকা জেলা প্রশাসক তোফাজ্জেল হোসেন ও সিভিল সার্জন আবদুল মালেক মৃধা কারাগারে যান।

শনিবার বিকেলে স্ত্রী নূরুননাহার বেগম, বড় ছেলে হাসান ইকবাল ওয়ামীসহ পরিবারের ২১ সদস্য কেন্দ্রীয় কারাগারে কামারুজ্জামানের সঙ্গে শেষ সাক্ষাৎ করেন।

সুপ্রীম কোর্টের আপিল বিভাগের রিভিউ খারিজের রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি বুধবার সন্ধ্যায় কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছায়। এরপর কামারুজ্জামানকে তা পড়ে শোনানো হয়। রাষ্ট্রপতির নিকট প্রাণভিক্ষার আবেদন করবেন কিনা, তা জানতে চাওয়া হয় কামারুজ্জামানের কাছে। এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে তিনি তার আইনজীবীদের সঙ্গে পরামর্শ করার কথা জানান। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় এ্যাডভোকেট শিশির মো. মনিরের নেতৃত্বে পাঁচ আইনজীবী তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎ শেষে তারা সাংবাদিকদের জানান, তিনি একটি যৌক্তিক সময়ের মধ্যে তার প্রাণভিক্ষা চাইবেন কিনা, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাবেন। তিনি কিছুটা সময় চেয়েছেন।

কামারুজ্জামান রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইবেন কিনা, তা জানতে শুক্রবার সকাল ১০টায় ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রবেশ করেন ম্যাজিস্ট্রেট মাহফুজ জামিল ও তানভীর মো. আজিম। বেলা ১১টা ৩৮ মিনিটে তারা কারাগার থেকে বের হন। এ সময় সাংবাদিকরা তাদের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করলেও তারা কোনো কথা না বলেই দ্রুত গাড়িতে উঠে কারাগার ত্যাগ করেন।