রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কাহারোলের্ মোহাম্মদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহফুজা খানমের অপসারনের দাবীতে মানববন্ধন

রফিকুল ইসলাম ফুলাল,প্রতিনিধি দিনাজপুরঃঅনিয়ম, র্দুনীতি,স্বজনপ্রীতি ও শিক্ষার্থীদের উপ-বৃত্তির টাকা আত্বসাৎসহ বিদ্যালয়ে বিধি বর্হিভুত কার্য্যক্রম চালানোর কারনে দিনাজপুরের কাহারোল্উপজেলার মোহাম্মদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিÿক মাহফুজা খানমের অপসারনের দাবীতে মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করেছে অভিভাবক,শিক্ষার্থী ও স্থানীয়রা।

গতকাল সকাল সাড়ে ১১টায় দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার ২০ নং মোহাম্মদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সন্মুখ সড়কে প্রধান শিক্ষক মাহফুজা খানমের অপসারনের দাবীতে ঘনটাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করেছে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অভিভাবক ও শিক্ষার্থী এবং স্থানীয়রা।Dinajpur Fulal Pic -01

মানববন্ধন চলাকালে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তারা বলেন,প্রধান শিক্ষক মাহফুজা খানম দীর্ঘদিন ধরে ওই বিদ্যালয়ে সহকারী ছিলেন এবং পরবর্তীতে প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ার পর হতে অবৈধভাবে শিক্ষার্থীদের উপ-বৃত্তির টাকা আত্বসাৎ, ক্ষমতার অপ-ব্যবহার করে আসছেন। দীর্ঘ এই সময়ে তার দূর্নীতি ,অনিয়ম এবং অপকর্ম সর্ম্পকে ইতিমধ্যেই উপজেলা চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করা হলেও অদৃশ্য শক্তির কারনে কোন ব্যবস্থাই নেয়া হচ্ছে না, তারা বলেন, আমরা বিদ্যালয়টির উন্নয়ন কল্পে এধরনে দূর্নীত পরায়ন শিক্ষকের অপসারনের দাবী করছি।

মানববন্ধনে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয় পরিচালননা কমিটির বিদুৎসাহী সদস্য মোঃ আবুল কাশেম, মুকুন্দপুর ইউনিয়নের ৯নং ওর্য়াডের সদস্য গোলাম রববানী হাবু,হাশির উদ্দীন,মতিবুল ইসলাম প্রমুখ।

এদিকে একই দিন বেলা সাড়ে ১২টায় কাহারোল উপজেলা শিক্ষা অফিসার কার্যালয় হতে মোহাম্মদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহফুজা খানমের অনিয়ম তদন্তে গঠিত তদন্ত কমিটির আহবায়ক এটিও মোঃ আব্দুল হাই চৌধুরী ও সদস্য মোঃ রবিউল ইসলাম সরেজমিনে বিদ্যালয় পরিদর্শন করেন। তারা প্রধান শিক্ষক মাহফুজা খানমের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সর্ম্পকে উপস্থিত অভিভাবক, সাধারন মানুষের কাছে জিজ্ঞাসাবাদ ও শুনানী করেন।

বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে উপস্থিত অভিভাবক মোঃ মোসাফিজুর রহমান,মোঃ শফিকুল ইসলাম,আনোয়ারম্নল ইসলাম,গনেশ ও ফুলজাহানসহ ৪৫-৫০জন নারী-পুরুষের কাছে তদন্ত কর্মকর্তাদ্বয় প্রধান শিক্ষকের কর্মকান্ড সর্ম্পকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সকলেই একবাক্যে বলেন,অভিযোগ শতভাগ সত্য আমরা এধরনের দূর্নীতি পরায়ন শিক্ষককে আর দেখতে চাইনা। তারা বলেন,এই শিক্ষক ছাত্রছাত্রীর উপ-বৃত্তির টাকা আত্বসাৎ থেকে শুরু করে কমলমতি শিশুদের দিয়ে হাত-পা টিপানোর কাজটি পর্যন্ত করিয়ে নেন।

Spread the love