শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কায়সারের ফাঁসির আদেশ

১৯৭১ সালের মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধ মামলায় এরশাদ সরকারের প্রতিমন্ত্রী সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারকে ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

বিচারপতি ওবায়দুল হাসান নেতৃত্বাধীন ৩ সদস্যের বিচারিক প্যানেল আজ মঙ্গলবার এ মামলার রায় ঘোষণা করেন।

ট্রাইব্যুনাল চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ১৬৬১ প্যারার ৪৮৪ পৃষ্ঠার রায়ের সার সংক্ষেপ পড়া শেষে এ আদেশ দেন। এ রায়ে ১৪টি অভিযোগ প্রমানিণ হয়েছে। ১৬টি অভিযোগের মধ্যে ৪ ও ১৫ নম্বর অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। বিচারক প্যানেলের অপর ২ সদস্য হলেন- বিচারপতি শাহিনুর ইসলাম ও বিচারপতি মো. মুজিবুর রহমান মিয়া। কায়সারের মামলায় উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক পেশের পর গত ২০ আগস্ট রায় যে কোন দিন ঘোষণার (সিএভি) আদেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল। ওইদিন কায়সারের জামিন বাতিল করে তাকে কারাগারে পাঠানোরও নির্দেশ দেয়া হয়।
এর আগে সাক্ষ্য জেরা ও দুই পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে গত ২০ আগস্ট মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখা হয়। অপেক্ষমাণ রাখার ৪ মাস ২ দিন পর মঙ্গলবার এ মামলার রায় হলো। এটি হচ্ছে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার ১৪তম রায়। যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের দুটি বেঞ্চে এর আগে ১৩টি মামলার রায় হয়েছে। সাবেক এ প্রতিমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ১৬টি অভিযোগ এনেছে প্রসিকিউশন।

প্রসঙ্গত সৈয়দ কায়সারের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধকালে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গত ২ ফেব্রুয়ারি অভিযোগ গঠন করা হয়। তার বিরুদ্ধে গণহত্যার একটি, হত্যা, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ ও লুণ্ঠনের ১৪টি এবং ধর্ষণের দুটিসহ মোট ১৬টি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ আনা হয়। গত বছরের ১৪ নভেম্বর তার বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ আমলে নেয়া হয়। গত বছরের ৫ আগস্ট শর্তসাপেক্ষে জামিন পেয়ে কায়সার রাজধানীতে তার ছেলের বাসায় ছিল। কায়সার হচ্ছে ২য় কোনো আসামি যে শর্তসাপেক্ষে জামিন পায়। এর আগে বিএনপি নেতা আব্দুল আলীমও শর্তসাপেক্ষে জামিন পেয়েছিলেন।

Spread the love