বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কি মধু আছে রেলওয়েতে……………

মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ কি মধু আছে বাংলাদেশ রেলওয়েতে? যে মধুর লোভে রাষ্ট্রপতির আদেশ ক্রমে জারী করা নোটিশে চাকরীর স্থান পরিবর্তন করে বদলী করা হলেও তোয়াক্কা করেননি বাংলাদেশ রেলওয়ের পঞ্চিমাঞ্চল বিভাগের পাকশি ডিভিশনাল স্টেট অফিসার মোস্—াক আহমেদ৷ তাকে গত বছরের ১৪ নভেম্বর তার নিজ কর্মস্থল পাকশি হতে নতুন কর্মস্থল গাজিপুর সিটি কর্পোরেশনের আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে বদলী করা হয়৷ সে মোতাবেক সেখানে তাকে যোগদানের আদেশ প্রদান করা হয়৷ কিন্তু এ নির্দেশের পরও তিনি আজও সেখানে যোগদান করেননি৷ এতে সংশি­ষ্টদের মধ্যে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে যে, বাংলাদেশ রেলওয়েতে কি মধু আছে?

একটি সূত্র জানায়, পাকশির এ বিভাগীয় কর্মকর্তার অধীনে পাকশী, পার্বতীপুর, সৈয়দপুর রেলওয়ে বিভাগীয় অঞ্চলে রেলওয়ের ১৫ একর ভূ-সম্পত্তি রয়েছে৷ এর মধ্যে শুধুমাত্র সৈয়দপুরেই রয়েছে অর্ধেক অর্থাত্ ৮ শত একর জমি৷ এসব সম্পত্তি বিভিন্নভাবে বেদখল করেছে স্থানীয় প্রভাবশালীরাসহ ছিন্নমূল লোকজন৷ এই বেদখলকৃত ভূ-সম্পত্তি হতে দখলদারদের উচ্ছেদ করার পরিকল্পনা নিলেই দায়িত্বরত ওই বিভাগীয় কর্মকর্তার পকেটে ঢুকে যায় কোটি কোটি টাকা৷ বিশেষ করে রেলওয়ের ভূ-সম্পত্তি দখল করে গড়ে ওঠা বহুতল ভবন, বানিজ্যিক কেন্দ্রগুলোর মালিকরা তাকে ম্যানেজ করতে ঢেলে দেয় বিপুল টাকা৷ এ টাকা তুলতেই মাঝে মাঝে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের হিড়িক ওঠে৷ আর এই টাকা হাতিয়ে নেয়ার কৌশলকে জায়েজ করতে চালানো হয় লোক দেখানে উচ্ছেদ অভিযান৷ এতে সব খরগ নেমে আসে খেটে খাওয়া অসহায় মানুষগুলোর উপর৷ তাদের উপার্জনের একমাত্র সম্বলটুকুও কেড়ে নেয়া হয় উচ্ছেদের নামে আর যারা বড় বড় বিল্ডিং গড়ে তুলে দিনে লাখ লাখ টাকা কামাই করছে তাদের কাছ থেকে উত্কোচ নিয়ে সটকে পড়ে এই কর্মকর্তা৷ আর সেই অবৈধ টাকার জোড়েই কি রেলওয়ের উপর তলার কর্তাব্যক্তিদের হাত করে উপেক্ষা করে স্বয়ং রেল বিভাগের উপ-সচিব ও রাষ্ট্রপতির নির্দেশকৃত বদলী নোটিশ৷ রেলওয়ের এই মধুর হাড়ি ছেড়ে যেতে চায়না কেউই৷ তাইতো রসিকজনের মন্তব্য কি আছে এই বাংলাদেশ রেলওয়েতে যে, রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ কর্তা কর্তৃক প্রদত্ব আদেশকেও বৃদ্ধাঙ্গলী দেখাতে সামান্য দ্বিধা নেই কারও৷

 

Spread the love