মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কুড়িগ্রামে বিয়ের এক মাস পর লাশ হলো নববধূ

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : অনেক আশা আর আকাঙ্ক্ষা নিয়ে স্বামীর ঘরে গিয়েছিল কিশোরী তারামনি। উনিশ বছরের তারামনি তার ত্রিশোর্ধ স্বামী হাফিজুর রহমান হাবু মিয়ার ঘরে তৃতীয় স্ত্রী হিসেবে প্রবেশ করে। এখনও মেহেদীর রঙ গায়ে লেগে আছে তারামনির। সেই তারামনির মরদেহ পাওয়া গেল স্বামীর ঘরে। মৃতদেহ রেখে পালিয়ে গেছে স্বামী হাফিজুর রহমান হাবু মিয়া। এটি স্বাভাবিক মৃত্যু নাকি হত্যাকাণ্ড তা নিয়ে জনমনে জন্মেছে নানা প্রশ্ন।

সোমবার (১৯ এপ্রিল) সকালে অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার রামখানা ইউনিয়নের চাঁদেরহাট এলাকার দোলারপাড় গ্রামে। এ ঘটনায় তারামনির বড় ভাই আজাদুল ইসলাম বাদী হয়ে নাগেশ্বরী থানায় স্বামী হাফিজুর রহমান হাবু মিয়ার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। পুলিশ মরদেহের সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ কুড়িগ্রাম মর্গে প্রেরণ করেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, একমাস আগে নাগেশ্বরীর দোলারপাড় গ্রামের আবদার আলীর পুত্র হাফিজুর রহমান হাবু মিয়ার সাথে পার্শ্ববর্তী ভূরুঙ্গামারী উপজেলার পাইকেরছড়া ইউনিয়নের ফুটানি বাজার এলাকার আব্দুস ছালামের কন্যা তারামনির বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই স্বামীর ঘরে অবস্থান করছিল তারামনি। সোমবার ভোরে সেহরি খাবার শেষে পরিবারের সবাই ঘুমিয়ে পরে। অনেক বেলা অবধি তারামনির সাড়া না পেয়ে তাকে ডাকতে যায় বাড়ির লোকজন। ভিতর থেকে সাড়া না পেয়ে দরজা ভাঙতে গিয়ে সবাই লক্ষ্য করে দরজা বাইরে থেকে ছিটকিনি লাগানো। দরজা খুলে বিছানায় তারামনির নিথর দেহ পরে থাকতে দেখা যায়। পরে স্থানীয়রা থানায় ও মেয়ের পরিবারের লোকজনকে খবর দেয়।

এ ব্যাপারে তারামনির বড় ভাই আজাদুল ইসলাম জানান, বোনের মরদেহ দেখে সন্দেহ করা হচ্ছে সেহরি থেকে সূর্যোদয় পর্যন্ত কোন এক সময় হাফিজুর জোড় করে কীটনাশক পান করিয়ে বা শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যা করেছে। পরে বাইরে থেকে ছিটকিনি লাগিয়ে সে পালিয়ে গেছে। এ কারণে আমি থানায় একটি অভিযোগ করেছি। আমি তারামনি হত্যার সুষ্ঠু বিচার চাই।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নাগেশ্বরী থানার অফিসার ইনচার্জ রওশন কবীর জানান, প্রকৃত ঘটনা উদঘাটনের চেষ্টা চলছে। লাশ সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়াও হাফিজুরকে খোঁজা হচ্ছে। সুরতহাল রিপোর্ট পেলে জানা যাবে এটি হত্যাকাণ্ড নাকি স্বাভাবিক মৃত্যু।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email