রবিবার ২৬ জুন ২০২২ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কৃষক আমজাদের তৈরি জার্মানির পতাকা ফিফার ওয়েব সাইটে

Jarman Flagএবার আন্তর্জাতিক ফুটবল সংস্থা ফিফার ২০তম বিশ্বকাপ উপলক্ষে চালু করা অফিসিয়্যাল ওয়েব সাইটের ফটো গ্যালারিতে প্রদর্শন করা হচ্ছে বাংলাদেশের গরিব কৃষক আমজাদ মোল্লার (৬৫) তৈরি করা প্রায় সাড়ে ৩ কিলোমিটার লম্বা জার্মানির জাতীয় পতাকা। ব্রাজিল বিশ্বকাপের ফাইনালের মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগে রবিবার বংলাদেশ সময় রাত ৮টার দিকে ফিফার অফিসিয়্যাল পেজে এ ছবিটি প্রদর্শন করতে দেখা গেছে। ছবিটির ক্যাপশনের পতাকাটির সংক্ষিপ্ত বর্ণনাও দেয়া হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ফিলিপ লামের নেতৃত্বাধীন জার্মান দলের সমর্থনে বাংলাদেশের প্রতন্ত গ্রামের এক কৃষক আমজাদ মোল্লা এ পতাকাটি তৈরি করেছেন। গতকাল ১২ জুলাই শনিবার স্থানীয় স্টেডিয়ামে সাড়ে ৩ কিলোমিটার লম্বা এ পতাকাটি প্রদর্শন করা হয়। ছবিটি এএফপির সৌজন্যে প্রকাশ করা হয়েছে।
এদিকে গতকাল শনিবার দুপুরে ঢাকায় নিযুক্ত জার্মানির ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত ড. ফরদিনান্দ ফন ভায়া দেখলেন তার দেশকে ভালবেসে বাংলাদেশের গরিব কৃষক আমজাদ মোল্লার তৈরি করা প্রায় সাড়ে ৩ কিলোমিটার লম্বা দেশটির জাতীয় পতাকা দেখতে যান। ভালোবাসার স্বীকৃতি হিসেবে জার্মান সরকারের পক্ষ থেকে তাকে সম্মাননাও জানান তিনি। তিনি মাগুরার রামনগর এলাকায় জার্মান সরকারের অর্থায়নে পরিচালিত টেকসই গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প দেখতে আসেন। ওই প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন শেষে বেলা ২টার দিকে তিনি যান মাগুরা স্টেডিয়ামে। সেখানে আমজাদ হোসেনের তৈরি করা পতাকাটি প্রদর্শন করা হয়। পতাকাটি দেখে মুগ্ধ ও আবেগাপ্লুত হন তিনি। জার্মানির প্রতি আমজাদের ভালোবাসায় গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে রাষ্ট্রদূত বলেন, আমি অভিভূত। ভালোবেসে জার্মানির এত বড় পতাকা এর আগে কেউ তৈরি করেছে বলে আমার জানা নেই। বাংলাদেশের একজন কৃষক ওই পতাকা তৈরি করায় তার প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ।
ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত জার্মানির প্রতি আমজাদের ভালবাসার সম্মাননা হিসেবে তার হাতে জার্মান ফুটবল দলের ফ্যান ক্লাবের আজীবন সদস্যের কাগজ তুলে দেন। এ সময় তাকে একটি ফুটবল ও জার্মানির জার্সিও উপহার হিসেবে দেন রাষ্ট্রদূত। অন্যদিকে আমজাদ মোল্লা জার্মান রাষ্ট্রদূতের হাতে কুলা, বাঁশি, ঢালাসহ কিছু উপহার সামগ্রী তুলে দেন। এ সময় মাগুরা জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা ও জার্মান উন্নয়ন ব্যাংক বাংলাদেশের সেক্টর বিশেষজ্ঞ মেহেদী হাসান উপস্থিত ছিলেন। এরপর রাষ্ট্রদূত ঘোড়ামারা গ্রামে আমজাদ মোল্লার বাড়িতেও যান।
জানা যায়, আজ থেকে প্রায় ৩ দশক আগে জটিল রোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন মাগুরা পৌরসভার ঘোড়ামারা গ্রামের কৃষক আমজাদ মোল্লা। শত ওষুধে কাজ হচ্ছিল না। শেষ পর্যন্ত জার্মানির তৈরি একটি হোমিও ঔষধ খান। তাতে কাজ হয়। ক্রমেই জটিল রোগ থেকে মুক্তি লাভ করেন আমজাদ। ওই ঘটনায় জার্মানির প্রতি তার ভালোবাসা ও কৃতজ্ঞতা জন্মে। তিনি জানান, জার্মানির প্রতি কৃতজ্ঞতাবোধ থেকে ২০০৬ সালে প্রায় ৩৫০ গজ লম্বা জার্মানির একটি পতাকা তৈরি করেন। ওই বছর বিশ্বকাপ চলাকালে ওই পতাকাটি প্রদর্শনের জন্য মাগুরা শহরে নিয়ে যান। মানুষ তখন এটিকে পাগলামি বলেই ধরে নিয়েছিল। তবুও জার্মানির প্রতি তার ভালোবাসা এতটুকু কমেনি, বরং বেড়েছে। ওই বিশ্বকাপের পর পতাকা বড় করার কাজে মনোযোগী হন আমজাদ।
২০১০ সালের বিশ্বকাপের আগে পতাকাটি প্রায় ৭ হাজার গজ লম্বা করেন আমজাদ। ওই বছর গ্রামের লোকজন নিয়ে পতাকাটি মাগুরা শহরের নোমানী ময়দানে এসে প্রদর্শন করেন। চলতি বিশ্বকাপের আগে পতাকাটি প্রায় সাড়ে ৩ কিলোমিটার পর্যন্ত লম্বা করেন। তিনি জানান, ধীর ধীরে পতাকা তৈরি কাজটি করেছেন তিনি। ৩ জন দর্জিকে মোট ৪০ হাজার টাকা মজুরি দিয়েছেন। পতাকা তৈরিতে তার খরচ হয়েছে প্রায় ২ লাখ ৪০ হাজার টাকা। এক যুগ ধরে তিনি অল্প অল্প করে ওই পতাকা তৈরি করেছেন। অভাবী সংসারে এজন্য তাকে নানা গঞ্জনাও সহ্য করতে হয়েছে। তবে তার এ ভালোবাসা বৃথা যায়নি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email