শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কৃষি জমি রক্ষা করে নগরায়ন করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

Pmপরিকল্পিত নগরায়ন ও দেশব্যাপী নাগরিক সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধির ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার প্রত্যেক উপজেলার জন্য মাস্টার প্লান তৈরির নির্দেশ দিয়েছে। অপরিকল্পিত নগরায়নে প্রতিবছর কৃষি জমি বিনষ্ট হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, কৃষি জমি রক্ষা করে নগরায়ন করতে হবে। তিনি আরো বলেন, গ্রাম, ইউনিয়ন ও উপজেলা সদর দপ্তরকে সড়ক সংযোগের আওতায় আনার অঙ্গীকার রয়েছে সরকারের। সরকারের এসব অঙ্গীকার বাস্তবায়নে স্থানীয় সরকার বিভাগকে আরও আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করতে হবে বলেও উল্লেখ করেন তিন। আজ বৃহস্পতিবার সকালে বাংলাদেশ সচিবালয়ে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন (এলজিআরডি) ও সমবায় মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে মন্ত্রণালয়সহ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে ভাষণে তিনি একথা বলেন।
প্রানমন্ত্রী ছাড়াও এলজিআরডি ও সমবায় মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। এ সময় এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙা, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবদুস সোবহান সিকদার, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. আবুল কালাম আজাদ, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মনজুর হোসেন, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় সচিব এম এ কাদের সরকার, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব এ কে এম শামিম চৌধুরী এবং মন্ত্রণালয়ের পদস্থ কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতায় উন্নয়ন কর্মকান্ড- বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সরকার গত পাঁচ ছরে বরাদ্ধ দ্বিগুণ করেছে। ২০০৯-১০ অর্থবছরে এ বিভাগের বাজেট ছিল ৮ হাজার ২১২ কোটি টাকা। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১৫ হাজার ৪৬৮ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এ অর্থ সঠিকভাবে জনকল্যাণে ব্যয় নিশ্চিত করতে হবে। বাস্তবায়নের প্রতিটি স্তরে মনিটরিং জোরদার করতে হবে।
সমবায় খাতকে একটি সম্ভাবনাময় খাত হিসাবে চিহ্নিত করে শেখ হাসিনা বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গ্রাম সমবায় নিয়ে কাজ শুরু করেছিলেন। গ্রামে-গঞ্জে মেহনতী মানুষের যৌথ মালিকানায় স¤পদ সৃষ্টি ও অর্থনৈতিক কর্মকা- বিস্তারের প্রয়াস নিয়েছিলেন। তিনি বলেন, দেশের বিভিন্ন এলাকায় উদ্যোগী যুব সমাজ সমবায়ের মাধ্যমে তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সফলতা লাভ করছে। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। নারী ও অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নের জন্য কার্যকর সমবায় ভিত্তিক সংগঠন গড়ে উঠবে বলে প্রধানমন্ত্রী আশাবাদ ব্যাক্ত করেন।
সমবায় ব্যাংকের কার্যক্রমকে আরও গতিশীল ও শক্তিশালী করার উপর গুরুত্বারোপ করে সংসদ নেতা বলেন, সমবায়কে সামাজিক আন্দোলনে পরিণত করতে হবে। সমবায়ের নামে কেউ যাতে প্রতারণা করতে না পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, তার সরকার গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর আয়বর্ধনমূলক কর্মসংস্থান, কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি, সমবায়ভিত্তিক ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প স্থাপনের জন্য সহজ শর্তে মূলধন যোগান দিচ্ছ। ক্ষুদ্র ঋণ সহ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা এবং অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করেছি। দুর্গম এলাকা, চরাঞ্চল ও দারিদ্র্যপীড়িত এলাকাগুলোতে বিশেষ উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।
এ ছাড়াও গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর আয়বর্ধনমূলক কর্মসংস্থান, কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধি, সমবায়ভিত্তিক ক্ষুদ্রও কুটির শিল্প স্থাপনের জন্য সহজ শর্তে মূলধন যোগান দিচ্ছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ক্ষুদ্রঋণ দিচ্ছি। প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেছি। অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করেছি। দুর্গম এলাকা, চরাঞ্চল ও দারিদ্র্যপীড়িত এলাকাগুলোতে বিশেষ উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। বর্তমান সরকার নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী দারিদ্র্য বিমোচন ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন,এ জন্য গ্রামগুলোকে সকল উন্নয়নের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করা হয়েছে। ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্র চালু করা হয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, তার সরকার দারিদ্র্যের হার প্রায় ২৫ শতাংশে নামিয়ে এনেছেন। এজন্য সরকার বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। এ প্রসঙ্গে তিনি দরিদ্র মানুষের আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টি, আয়বৃদ্ধিমূলক পেশা নির্বাচন ও বিকল্প আয়ের উৎস সৃষ্টির জন্য একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে বলেও বলেন। তিনি আরো বলেন, এ প্রকল্পের আওতায় দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাসরত ১ কোটি পরিবারের প্রায় সাড়ে চার কোটি মানুষকে পর্যায়ক্রমে দারিদ্র্যমুক্ত করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
জমির স্বল্পতা, জলবায়ু পরিবর্তন এগুলোকে বাস্তবতা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তা সত্ত্বেও আমাদেরকে কৃষি উৎপাদন বাড়াতে হবে। গ্রামের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে হবে। এজন্য পল্লী উন্নয়ন একাডেমিগুলোতে প্রায়োগিক গবেষণা করতে হবে। তিনি বলেন, দেশের টেকসই ও অন্তর্ভুক্তিমূলক অব্যাহত উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হবে। জনগণের মুখে হাসি ফুটাতে হবে। তাহলেই এদেশের লাখো শহীদের রক্তের ঋণ শোধ হবে। জাতির পিতার সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন পূরণ হবে। এ লক্ষ্য অর্জনের জন্য সকলকে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে একসাথে কাজ করার আহবান জানান তিনি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email