সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কেউ খাবে, কেউ খাবে না- তা হবে না: প্রধানমন্ত্রী

pmপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,

১০ম জাতীয় নির্বাচন সম্পর্কে

বিদেশীদের কাছে নালিশ করে বালিশ

পেয়েছেন বিএনপি নেত্রী।

বাংলাদেশে শ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠার

প্রত্যয় ব্যক্ত করে তিনি বলেন, কেউ খাবে,

কেউ খাবে না- তা হবে না। তিনি বলেন,

কিছু জনগোষ্ঠী আরাম-আয়েশে গা ভাসিয়ে

চলবে। আর বৃহৎ জনগোষ্ঠী না খেয়ে

থাকবে। বাংলাদেশে এ বৈষম্য চলবে না।

মহান মে দিবস উপলক্ষে  বৃহস্পতিবার

গাজীপুরের ভাওয়াল বদরে আলম কলেজ

মাঠে শ্রমিক লীগ আয়োজিত শ্রমিক

সমাবেশে প্রধান অতিথির ভাষনে তিনি এ

কথা বলেন।

জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর

মাহমুদের সভাপতিত্বে জনসভায় অন্যদের

মধ্যে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলির

সদস্য ও কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, যুগ্ম

সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম

হানিফ ও জাহাঙ্গীর কবির নানক,

সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মদ হোসেন, শ্রম

বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ,

গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আখতারুজ্জামান,

গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ

সম্পাদক আজমত উল্লাহ খান প্রমুখ বক্তব্য

দেন। এ ছাড়াও জনসভায় আওয়ামী লীগ

নেতাদের মধ্যে অসীম কুমার উকিল, ভুইয়া

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক, এ এইচ

খায়রুজ্জামান, আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন

প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ক্ষমতায় এসে

বিএনপির বন্ধ করা কারখানাগুলো খুলে

দিয়েছি। অথচ ন্যায্য মজুরি দাবি করায়

বিএনপি সরকার শ্রমিকদের রমজান মাসে

গুলি করে হত্যা করেছে। শ্রমিকদের শিল্পের

মালিকানা দেয়ার দৃষ্টান্ত আওয়ামী লীগ চালু

করেছিল। তিনি বলেন, হত্যা খুন ষড়যন্ত্রের

রাজনীতির ফাঁকে জিয়াউর রহমান ক্ষমতা

দখল করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস করে।

জিয়াউর রহমানই প্রথম দেশের মানুষের

ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলা শুরু করে।

বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ এবং

মাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষা অবৈতনিক করার

কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, গরীব

বাবা-মাদের সন্তানদের পড়াশোনার দায়িত্ব

আমরা নিয়েছি। আওয়ামী লীগ সরকার

নিয়েছে।

এর আগে জনসভায় অংশ নিতে দুপুরের পর

থেকেই গাজীপুর ও আশপাশের বিভিন্ন স্থান

থেকে জনসভায় মিছিল নিয়ে আসতে শুরু

করেছেন আওয়ামী লীগ ও এর বিভিন্ন

সহযোগী অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। বেলা

৩টার দিকে, পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের

মধ্যদিয়ে জনসভা শুরু হয়। এর পর

আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

এর আগে সমাবেশে বিএনপি চেয়ারপারসন

খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্যে করে বাণিজ্যমন্ত্রী

তোফায়েল আহমদ বলেন, পরবর্তী জাতীয়

সংসদ নির্বাচন ২০১৯ সালের ২৯ জানুয়ারির

আগের ৯০ দিনের মধ্যে যে কোনো দিন

হবে। এছাড়া নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান

খান শ্রমিকদের বাড়িভাড়া না বাড়াতে

বাড়ির মালিকদের প্রতি আহ্বান জানান।