সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতেই ত্রি-মুখী সংর্ঘষে দিনাজপুর জেলা বিএনপির কর্মীসভা ভন্ডুল

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক, জেলা প্রতিনিধি : কেন্দ্রীয় নেতাদের উপস্থিতিতে ত্রি-মুখী সংর্ঘষে দিনাজপুর জেলা বিএনপি‘র যৌথ কর্মী সভা ভন্ডুল হয়ে গেছে।

সংর্ঘষে কেউ আহত না হলেও ব্যাপক ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে ।

আজ বেলা ১১ টায় দিনাজপুর লোকভবনে জেলা বিএনপির যৌথ কর্মী সভায় এই ঘটনা ঘটে।

দল নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন ও নব বাকশাল সরকারের পতনের দাবীতে দিনাজপুর লোকভবনে যৌথ কর্মী সভার আয়োজন করে দিনাজপুর জেলা বিএনপি।

যৌথ কর্মী সভায় উপস্থিত ছিলেন,কেন্দ্রীয় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক সংসদ সদস্য লেঃ জেঃ মাহবুবুর রহমান, কেন্দ্রী বিএনপির যুগ্ম মহাসচীব সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু। তাদের উপস্থিতিতেই মঞ্চ দখলকে কেন্দ্র করে   বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব লুৎফর রহমান মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক মুকুর চেীধুরী ও বেগম জিয়ার বড় বোন মরহুম খুরশীদ জাহান হকের বড় ছেলে শাহরিয়ার আকতার হক ডন সমর্থীত সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আশরাফুল ইসলামের সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয় । এক পর্যায় তাদের মধ্যে সংর্ঘষ শুরু হলে পুলিশ এসে পরিস্থতি নিয়ন্ত্রনে নিয়ে আসে। এ সময় নেতা কর্মীদের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়লে তারা ছুঠো ছুটি শুরু করে। এই ঘটনায় কেউ আহত না হলেও মঞ্চে ব্যাপক ভাংচুর করা হয়।

পরে বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব লুৎফর রহমান মিন্টু ও বেগম জিয়ার বড় বোন মরহুম খুরশীদ জাহান হকের বড় ছেলে শাহরিয়ার আকতার হক ডন সমর্থীত সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আশরাফুল ইসলামের সমর্থকরা জেলা বিএনপির কার্যালয় দখলে নেয়ার চেষ্টা চালায়। এ সময় আবারো উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে সাবেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব আশরাফুল ইসলাম জেলা বিএনপির কার্যালয়ে প্রবেশ করে তার সমর্থকদের উদ্দশ্যে দেয়া বক্তব্য তিনি বর্তমান কমিটি ভেঙ্গে দেয়ার দাবী জানান।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে কেন্দ্রীয় নেতারা সভা স্থল ত্যাগ করে চলে যান।

এ ব্যাপারে দিনাজপুর জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হাসানুজ্জামান উজ্জল বলেন,অপ্রীতিকর ঘটনার কারণে আজকের এই কর্মীসভা স্থগীত করা হয়েছে। আগামীতে আলোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

কর্মী সভায় সংর্ঘষের বিষয়ে জানতে চাইলে দিনাজপুর জেলা বিএনপির প্রবীন নেতা ও জেলা কমিটির সদস্য এ্যাড, আব্দুল হালিম জানান,দিনাজপুর জেলা বিএনপি কয়েকটি অংশে বিভক্ত হয়ে আছে। এ কারণে জেলা বিএনপির প্রতিটি অনুষ্ঠানে কোন না কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটছে। বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দল ঠিক মত চালাতে পারছেনা। যার বর্হিপ্রকাশ আজকের এই সভা ভন্ডুল হয়ে যাওয়া । তাই যত দ্রুত সম্ভব এই কমিটি ভেঙ্গে দিয়ে নতুন করে কাউন্সিল করে সকল গ্রুপকে নিয়ে নতুন কমিটি গঠন করলেই কেবল এই অবস্থা থেকে পরিত্রান পাওয়া সম্ভব।

দিনাজপুর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এ কে এম খালেকুজ্জামান পিপিএম জেলা বিএনপির সংর্ঘষের কথা স্বীকার করে জানান,বর্তমানে পরিস্থতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

Spread the love