বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কোনো শিশু অশিক্ষিত থাকবে না : প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৫তম জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তোমরা মনে রাখবে বড় হতে হলে লেখাপড়া করতে হবে। লেখাপড়া শিখে মানুষের মতো মানুষ হতে হবে। এই বাংলার মাটিতে কোনো শিশু অশিক্ষিত থাকবে না। সুন্দরভাবে তাদের জীবনযাপন হবে।

মঙ্গলবার গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পর শিশু সমাবেশে বক্তব্য দেয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

ছোট্ট সোনামণিদের তিনি লেখাপড়া শিখে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠার আহ্বান জানিয়ে শিশুদের উদ্দেশ করে শেখ হাসিনা বলেন, তোমাদের মাঝেই আগামী দিনের নেতৃত্ব আছে। হয়তো তোমরাই কেউ প্রধানমন্ত্রী হবে। বৈজ্ঞানিক হবে। স্বাধীন দেশ হিসেবে বাংলাদেশ যেন মাথা উঁচু করে চলতে পারে শিশুদের সেভাবে গড়ে উঠার আহ্বান জানান তিনি। ছোটবেলা থেকে শুনেছি সব সময় জাতির পিতা আবৃত্তি করতেন ‘উদয়ের পথে শুনি কার বাণী, ভয় নাই, ওরে ভয় নাই’। এই আবৃত্তি শুনতে শুনতে বড় হয়েছেন বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা শেখ মুজিবের আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার আলোকে দেশকে গড়ে তুলতে সেভাবে তৈরি হতে শিশুদের পরামর্শ দেন তিনি।
সরকার শিক্ষাকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ছেলেমেয়েদের পড়ার জন্য এখন আর বই কিনতে হয় না। বিনামূল্যে দশম শ্রেণি পর্যন্ত বই বিতরণ করা হয়। জানুয়ারি মাসের প্রথম দিন বই শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছায়। বইয়ের মান আমরা উন্নত করেছি। সুন্দর বই আমরা ছাপাচ্ছি। এবছর আমরা ৩২ কোটি ৬৩ লাখ ৪৭ হাজার ৯২৩টি বই বিনামূল্যে সারা বাংলাদেশে বিতরণ করেছি।
দরিদ্র শিক্ষার্থীদের সহায়তায় তহবিল গঠনের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অনেক বাবা-মা ছেলে-মেয়েদের উচ্চ শিক্ষা দিতে পারে না। সে কথা মনে রেখে উচ্চ শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট ফান্ড গঠন করেছি। ব্যাচেলর ডিগ্রি পর্যন্ত আমরা বৃত্তি দিয়ে যাচ্ছি। পয়সার অভাবে কোনো ছেলেমেয়ে লেখাপড়া শিখবে না, এটা তো হতে পারে না।
বর্তমানে দেশে শিক্ষার্থীদের ঝরেপড়া কমে গেছে জানিয়ে তিনি বলেন, প্রত্যেকটা ছেলেমেয়ে যাতে শিক্ষা পায় সে ব্যবস্থা আমরা করে দিচ্ছি। স্কুলগুলোতে নতুন নতুন ভবন আমরা তৈরি করে দিচ্ছি। যেখানে ছেলেমেয়েরা একত্রে পড়াশোনা করে সেখানে মেয়েদের জন্য আলাদা টয়লেটের ব্যবস্থা আমরা করে দিয়েছি।

Spread the love